বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ২১
TheWall
TheWall

মা’কে মেরে চোখ ফুলিয়ে দেয় ছেলে, বাবার গালে চড়, বয়স্ক-নির্যাতন ৩৮% বেড়েছে শহরে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: • ছেলেকে লুকিয়ে স্ত্রীকে সন্দেশ খাইয়েছিলেন অশোকনগরের মানিকলাল বিশ্বাস। বয়স ৯০ বছর। একের পর এক থাপ্পড় কষিয়ে বুড়ো বাবার গাল ফাটিয়ে দিয়েছিল ছেলে।

• বৃদ্ধা মা’কে বারান্দায় তালা বন্ধ করে গুয়াহাটি ঘুরতে গিয়েছিল ছেলে-বৌমা। মায়ের জন্য বরাদ্দ ছিল স্রেফ আধ প্যাকেট মুড়ি। খিদের জ্বালায় কাঁদতে শুরু করেছিলেন বৃদ্ধা রায়মণি ভট্টাচার্য।

• লাঠিপেটা খেয়েও ছেলেকে ছেড়ে যেতে পারেননি নিমতার শান্তিপ্রভা দেব। রান্না বসাতে দেরি হওয়ায় লাঠির ঘায়ে বৃদ্ধা মায়ের চোখ-মুখে কালশিটে ফেলে দিয়েছিল ছেলে।

এই নামগুলো আমাদের কাছে পরিচিত। স্মার্টফোনের পর্দায় এই অশীতিপর, বয়স্ক মানুষগুলোকে নির্দয় ভাবে অত্যাচারিত হতে দেখে চোখে জল এসেছিল আমজনতার। ফুঁসে উঠেছিল পুলিশ। বৃদ্ধা মায়ের কান্নার ছবি ঘুরেছিল হাতে হাতে। এরপর ধরপাকড়, আইন-আদালত, সোশ্যাল মিডিয়ায় ‘হোক প্রতিবাদ’ ইত্যাদির পরিসর পেরিয়ে মানুষ ভেবেছিল বয়স্ক-নির্যাতনে বুঝি ইতি পড়েছে। কিন্তু সেটা যে একেবারেই নয়, ফের তা চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিল ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরোর (এনসিআরবি) রিপোর্ট।

ছেলের হাতে মার খাচ্ছেন অশোকনগরের মানিকলাল বিশ্বাস 

বৃদ্ধ বাবা-মা’কে পেটানো, বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেওয়া, অবহেলা-তাচ্ছিল্য, কটূ কথা, শারীরিক-মানসিক নির্যাতনের নির্লজ্জ প্রকাশে বাংলার শীর্ষেই রয়েছে আমাদের শহর কলকাতা। এনসিআরবি-র তথ্য বলছে, সার্বিক ভাবে বয়স্ক নির্যাতন বিপজ্জনক জায়গায় পৌঁছেছে এ শহরে। অপরাধের হার বেড়েছে ৩৮ শতাংশ। যেটা ২০১৬ সালের রিপোর্টে ছিল ২৬ শতাংশ ও ২০১৭ সালের হিসেবে ৩৬ শতাংশ।

ব্যারাকপুর কালিয়ানিবাসের রায়মণি ভট্টাচার্য। মা’কে ঘরে তালাবন্ধ করে গিয়েছিল ছেলে।

ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরোর সমীক্ষা আরও বলছে, বয়স্কদের মানসিক স্বাস্থ্য থেকে শুরু করে তাঁদের জন্য সরকারি প্রকল্প সম্পর্কে সচেতনতা— সব কিছুতেই পিছিয়ে আছে এই শহর। এখানে অর্ধেকের বেশি প্রবীণই নবীন প্রজন্মের সঙ্গে মানসিক ব্যবধান, সন্তানদের দূরে থাকা, স্বামী বা স্ত্রীর মৃত্যু বা স্মৃতিলোপের মতো উপসর্গে ভোগেন। বেশিরভাগেরই ঠাঁই হয়েছে বৃদ্ধাশ্রমে। যাঁরা সেই ছাউনিটুকু পাননি, তাঁদের কপালে জুটছে নির্মম নির্যাতন।

নিমতার শান্তিপ্রভা দেব। ৮০ বছরের বৃদ্ধাকে মেরে চোখ-মুখে কালশিটে ফেলে দিয়েছিল ছেলে।

তবে বয়স্কদের উপর নির্যাতনের নিরিখে পিছিয়ে নেই দেশের অন্যান্য রাজ্যও। এনসিআরবির সমীক্ষায় দেখা গেছে, মুম্বইতে প্রবীণদের উপর নির্যাতনের মামলা দায়ের হয়েছে সবচেয়ে বেশি, মোট ১,১১৫টি (২০১৭ সালের হিসেবে)। রাজধানীতে ৭৩৬টি, আহমেদাবাদে ৫৩৪টি, চেন্নাইতে ৪৮৪টি। সমীক্ষার রিপোর্টে উঠে আসছে, বয়স্কদের উপরে প্রতি ২৪টি নির্যাতনের মধ্যে একটি মাত্র ঘটনার অভিযোগ জমা পড়ে। বয়স্কদের উপরে নির্যাতনের ঘটনায় সবচেয়ে বেশি অভিযোগের আঙুল ছেলে এবং পুত্রবধূদের দিকে। কেন এই ধরনের ঘটনার অভিযোগ জমা পড়ে না, তার জবাবে দু’টি বিষয় উঠে এসেছে। প্রথমত, পারিবারিক গোপনীয়তা রক্ষার তাগিদ। দ্বিতীয়ত, কী ভাবে সমস্যার সমাধান করা যাবে, তা জানেন না অনেকেই। ফলে ঘটনাগুলির ক্ষেত্রে সব সময়ে ব্যবস্থা নেওয়া সম্ভব হয় না বলেই দাবি পুলিশকর্তাদের।

‘গ্লোবাল এজ ওয়াচ ইনডেক্স’ ৯৬টি দেশের বয়স্কদের বিষয়ে সমীক্ষা চালিয়ে বলেছে, ২০৫০ সালের মধ্যে এ দেশে প্রবীণেরা সংখ্যায় বেড়ে (এখন ৮.৬%) মোট জনসংখ্যার ২২ শতাংশ হয়ে উঠবেন। সেই সঙ্গে কমবে তাঁদের জীবনযাপনের মান। মূল্যবোধের অবক্ষয়ের কারণে বয়স্কদের উপর নির্যাতন বাড়বে।

ছেলের হাতে লাঠিপেটা খেয়েও কাঁদতে কাঁদতে কোনও মা হয়তো বলবেন, “ওর কোনও দোষ নেই। ছেলে আর আমার বোঝা টানতে পারছে না।”অথবা ঝাপসা চশমার কাঁচের আড়ালে চোখের জল লুকিয়ে অশোকনগরের মানিকলালবাবুর মতোই কোনও বুড়ো বাবা হয়তো বলবেন, “ছেলে আমাকে বড্ড ভালোবাসে। সেদিন একটু মাথা গরম করে ফেলেছিল। ওকে ক্ষমা করে দাও।”

সুনা সাঁওতালের কেঁদরার ছো

Comments are closed.