শনিবার, মার্চ ২৩

ফের এনআরএস, হাসপাতালের উঠোনেই কুকুরের কামড়ে জখম আট বছরের শিশু

দ্য ওয়াল ব্যুরো: এনআরএস আছে এনআরএসেই। ফের হাসপাতাল চত্বরে কুকুরের কামড়ে ক্ষতবিক্ষত হল রোগী।

মুর্শিদাবাদের জলঙ্গি থেকে এনআরএস-এ নিজের আট বছরের ছেলেকে চিকিৎসা করাতে এনেছিলেন ফুলমতী বিবি। বুধবার সকালে ছেলেকে কোলে নিয়েই এক ডিপার্টমেন্ট থেকে অন্য ডিপার্টমেন্টে ঘুরছিলেন ফুলমতী। এক সময় লাইনে দাঁড়িয়ে ছিলেন। মায়ের সঙ্গেই দাঁড়িয়েছিল উমর শেখ। সেই সময়ই একটি কুকুর এসে আচমকা কামড়ে দেয় উমরের বাঁ পায়ে। বেশ খানিকটা মাংস উঠে যায়।

এরপর ছেলেকে কোলে নিয়েই এ দিক সে দিক ছুটে বেড়ান ফুলমতী। জরুরি বিভাগ থেকে বলে দেওয়া হয় অ্যান্টি র‍্যাবিস ভ্যাকসিন নেই। বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে যান। ফুলমতী বলেন, ‘কলকাতায় কিচ্ছু চিনি না। কোথায় যাব, কী করব কিছুই বুঝতে পারছি না।’ সঞ্জয় বিশ্বাস নামের এক প্রত্যক্ষদর্শী বলেন, “অনেকে কুকুরের ভয়ে লাইন ছেড়ে বেরিয়ে গিয়েছেন। কুকুর আতঙ্কে ভুগছেন সবাই।”

বুধবার একমাস পূর্ণ হচ্ছে এনআরএস-এ কুকুর খুনের ঘটনার। গত ১৩ জানুয়ারি সন্ধে বেলা হাসপাতাল চত্বর থেকে উদ্ধার হয়েছিল ১৬টি কুকুরছানার বস্তাবন্দি দেহ। ঠিক তার ১০ দিনের মাথায় অর্থাৎ ২৩ জানুয়ারি হাসপাতালেই রানি মল্লিক নামের একটি শিশুকে কামড়ে দিয়েছিল কুকুর। রীতিমতো মাংস তুলে নিয়েছিল ওই শিশুটির। কয়েক মিনিট কামড় বসিয়ে রাখার পর শিশুটির চিৎকার শুনে আশেপাশের লোকজন ছুটে এসে কুকুরটিকে ছাড়ায়। ফের একবার এমন ঘটনা ঘটল হাসপাতাল চত্ত্বরে।

বুধবারের ঘটনা নিয়ে মুখে কুলুপ এঁটেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। অনেকের অনুমান আগে যে কুকুরগুলিকে নির্জীবকরণের জন্য হাসপাতাল থেকে তুলে নিয়ে গিয়েছিল পুরসভার লোকজন, তেমনই বেশ কয়েকটি কুকুরকে ফের ছেড়ে দিয়ে গিয়েছে। দূরদূরান্ত থেকে আসা রোগীদের একটাই প্রশ্ন, কবে কুকুরের উৎপাত বন্ধ হবে এনআরএস-এ?

Shares

Comments are closed.