জঙ্গিরা অনুপ্রবেশের জন্য ব্যবহার করছে ‘অ্যান্টি-থার্মাল’ জ্যাকেট, সতর্ক ভারতীয় সেনা

0

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো: পাকিস্তানে পালাবদল হলেও কাশ্মীরের পরিস্থিতি যে তাতে একটুও পাল্টাচ্ছে না তা সীমান্তে জঙ্গি কার্যকলাপেই প্রমাণিত। আরও এক কদম এগোল পাক সেনা। জঙ্গিদের নিরাপদে ভারতে অনুপ্রবেশের সুবিধার জন্য তাদের ‘অ্যান্টি থার্মাল’ জ্যাকেট দেওয়া হচ্ছে।

কী এই ‘অ্যান্টি-থার্মাল’ জ্যাকেট?

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে, এই ‘অ্যান্টি-থার্মাল’ জ্যাকেট পরে থাকলে নাইট ভিশন ক্যামেরা বা অন্য কোনও মাধ্যমে অনুপ্রবেশকারীদের চিহ্নিত করা যায় না। ফলে সহজেই সেনার চোখে ধুলো দিয়ে অনুপ্রবেশ করা সম্ভব হয়। আইএসআইয়ের মাধ্যমেই এই জ্যাকেট পৌঁছে যাচ্ছে জঙ্গি সংগঠনগুলোর কাছে। এমনকী পাক সেনার প্রত্যক্ষ মদতেই এই কাজ করা হচ্ছে বলে বিদেশমন্ত্রক সূত্রে খবর।

গোপন সূত্রে জানা গিয়েছে, সীমান্তের ওপারে বিভিন্ন জঙ্গি ঘাঁটিতে প্রায় ৬০০ জন জঙ্গি ভারতে অনুপ্রবেশের অপেক্ষায় রয়েছে। সেই সঙ্গে অনুপ্রবেশের চেষ্টায় রয়েছে পাক সেনার একাংশও। ভারত কয়েক মাস আগে পাক সেনার নিরুদ্ধে যে সার্জিক্যাল স্ট্রাইক করেছিল, তারই বদলা হিসেবে এই অনুপ্রবেশ ও হামলার ছক কষছে পাকিস্তান, জানিয়েছেন সেনার এক উচ্চ কর্তা।

প্রায় ২০০ ‘অ্যান্টি-থার্মাল’ জ্যাকেট এর মধ্যেই জঙ্গিদের হাতে পৌঁছে গিয়েছে বলে জানা গিয়েছে। এই ব্যাপার সামনে প্রথম আসে কয়েক মাস আগে। রাতের অন্ধকারে পাক রেঞ্জাররা ভারতীয় সেনার উপর কাছ থেকে গুলি চালায়। কিন্তু নাইট ভিশন ক্যামেরায় কারও গতিবিধি ধরা পড়েনি। পরে ভিডিওতে দেখা যায় কীভাবে নাইট ভিশন ক্যামেরাকে ধোঁকা দিয়ে কাছ থেকে এসে গুলি চালিয়েছে পাক সেনা।

কিন্তু এর বিরুদ্ধে ভারতীয় সেনা তৈরি আছে বলেই জানিয়েছেন ভারতীয় সেনার প্রধান বিপিন রাওয়াত। তিনি জানান, যতই প্রযুক্তি ব্যবহার করুক পাক সেনা ও জঙ্গিরা, ভারতীয় সেনা তৈরি আছে উত্তর দেওয়ার জন্য। ১৯৬৬, ১৯৭১, ১৯৯৯ তা প্রমাণ হয়েছে। যখনই তারা অনুপ্রবেশের চেষ্টা করবে, হেরে পালাতে হবে তাদের, বলেছেন ভারতীয় সেনার প্রধান।

 

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like

Leave A Reply

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More