রবিবার, জানুয়ারি ১৯
TheWall
TheWall

রাজৌরির পরে পুঞ্চ, সীমান্তরেখা বরাবর ফের উত্তপ্ত উপত্যকা, আর্মি ব্রিগেড হেডকোয়ার্টারে বিস্ফোরণ

Google+ Pinterest LinkedIn Tumblr +

দ্য ওয়াল ব্যুরো: সীমান্তরেখা বরাবর ফের যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করল পাকিস্তান সেনাবাহিনী। জম্মুও কাশ্মীরের পুঞ্চ সেক্টরে লাইন অফ কন্ট্রোল বরাবর আক্রমণ চালায় পাক সেনা। ভারতীয় সেনাবাহিনীর তরফে জানানো হয়ছে পুঞ্চ সেক্টরের ব্রিগেড হেডকোয়ার্টার লক্ষ্য করে গ্রেনেড ছোড়ে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী। যদিও এই ঘটনায় কোনও হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।

এই ঘটনার দু’দিনে আগেই সেনা-জঙ্গি সংঘর্ষে উত্তপ্ত হয়েছিল জম্মু ও কাশ্মীরের রাজৌরি সেক্টর। সেখানে সীমান্তরেখা বরাবর অনুপ্রবেশের চেষ্টা করেছিল একদল জঙ্গি। প্রচুর অস্ত্রও ছিল তাঁদের সঙ্গে। যদিও সফল ভাবেই অনুপ্রবেশ রুখে দেয় ভারতীয় সেনাবাহিনী। জওয়ানদের গুলিয়ে নিকেশ হয় দুই সশস্ত্র জঙ্গি। তবে শহিদ হয়েছিলেন তিন সেনা জওয়ানও। সেনাবাহিনীর তরফে জানানো হয়েছিল, ওই অনুপ্রবেশকারীরা ছিল পাকিস্তানের বর্ডার অ্যাকশন টিম (BAT)-এর সদস্য। শোনা যায় এই সংগঠন পাক সেনাবাহিনীরই একটি অংশ, যারা জঙ্গিদের প্রশিক্ষণ দেয়।

সেনাবাহিনী সূত্রে খবর, মঙ্গলবার রাত সাড়ে দশটা নাগাদ পুঞ্চ সেক্টরে আতর্কিতে হামলা চালায় পাকিস্তানি সেনা। ব্রিগেড হেডকোয়ার্টার লক্ষ্য করে রকেট প্রপেলড গ্রেনেড (RPG) ছোড়ে পাক সেনা। লেফটেন্যান্ট কর্নেল দেবেন্দ্র আনন্দ জানিয়েছেন, এই হামলার কারণে আগুন ধরে যায় ব্রিগেড হেডকোয়ার্টারে। পুঞ্চ পুলিশের এসএসপি রাজীব পাণ্ডে জানিয়েছেন, ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। প্রাথমিক ভাবে জানা গিয়েছে, সীমান্তরেখার দিক থেকে ব্রিগেড হেডকোয়ার্টারকে লক্ষ্য করে হামলা চালানো হয়।

গত রবিবার সকালে উত্তপ্ত হয়েছিল দক্ষিণ কাশ্মীরের কুলগাম। লুকিয়ে থাকা জঙ্গিদের খোঁজে কুলগামের লারো এলাকায় চিরুনি তল্লাশি শুরু করেছিল ভারতীয় সেনাবাহিনী। টের পেতেই আক্রমণ শুরু করে জঙ্গিরা। পাল্টা জবাব দেয় সেনাবাহিনী। সেনা-জঙ্গির গুলির লড়াইয়ে খতম হয় ৩ জঙ্গি। আহত হন ২ সেনা জওয়ান। সংঘর্ষের পরে কুলগাম থেকে একে-৪৭, গ্রেনেড লঞ্চার, দু’টি চাইনিজ পিস্তল, তিনটি গ্রেনেড এবং আর কিছু অস্ত্র উদ্ধার করেছে সেনাবাহিনী।

অন্য দিকে ৩ জঙ্গির নিকেশ হওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়ার পরেই ওই এলাকায় সেনাবাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে বিক্ষোভকারীরা। এনকাউন্টার শেষে এলাকা থেকে সরে যায় বাহিনী। আর তারপরেই স্থানীয় একটি বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয় তারা। এরপরে ঘটে একটি বিস্ফোরণ। মৃত্যু হয় ছয় জন স্থানীয় বাসিন্দার। আহত অবস্থায় প্রায় ৪০ জনকে ভর্তি করা হয় হাসপাতালে।

The Wall-এর ফেসবুক পেজ লাইক করতে ক্লিক করুন 

Share.

Comments are closed.