রবিবার, ডিসেম্বর ১৫
TheWall
TheWall

উন্মুক্ত স্তন নিয়ে বাড়িতে ঘুরে বেড়ান সৎ মা, মামলা ঠুকে দিল দুই ছেলেমেয়ে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বাড়িতে হোক বা জনসমক্ষে, উন্মুক্ত স্তন দেখালেই মহিলারা হবেন ‘যৌন অপরাধী।’ কড়া আইন রয়েছে এই রাজ্যে। ‘টপলেস’ হয়ে নিজের বাড়িতে ঘুরতে গিয়েই বিপাকে পড়েছেন এক মহিলা। সটান আদালতে মামলা দায়ের হয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে। ঘটনা নিয়ে তুলকালাম হচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

মহিলার নাম তিল্লি বুচানান। উটাহ-র সল্ট লেক সিটির বাসিন্দা। তিল্লির বিরুদ্ধে অভিযোগ গুরুতর। বাড়িতে নাকি তিনি খোলা বুকে ঘুরে বেড়াতেই বেশি পছন্দ করেন। মাঝেমধ্যে নগ্ন হয়ে থাকতেও দেখা যায় তাঁকে। তিল্লির বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ এনেছেন তাঁর স্বামীর আগের পক্ষের দুই ছেলেমেয়ে। একজনের বয়স ৯ বছর, অন্যজনের ১৩ বছর।

পুলিশকে দেওয়া সেই কিশোর কিশোরীর বয়ান অনেকটা এইরকম, ‘‘টপলেস হয়ে ঘুরে বেড়ান সৎ মা। নগ্ন হয়েও থাকতে দেখা যায় তাঁকে। একই ভাবে বাড়িতে ঘুরে বেড়ান বাবা। আমরা বিরক্ত। বিচার চাই।’’

উটাহ-র ‘আমেরিকান সিভিল লিবার্টিস ইউনিয়ন’-এর অ্যাটর্নি লেহ ফ্যারেল বলেছেন, এ রাজ্যে আইন রয়েছে রাস্তাঘাটে, এমনকি বাড়িতেও নগ্ন বুক দেখাতে পারবেন না মহিলারা। কোনওভাবে মহিলাদের স্তন দেখা গেলে তাঁদের বিরুদ্ধে মামলা হতে পারে। ইচ্ছাকৃতভাবে পাবলিক প্লেসে উন্মুক্ত স্তন নিয়ে ঘুরে বেড়ালে সেই মহিলাকে ‘যৌন অপরাধী’ বলা হবে। সেক্ষেত্রে তাঁর জেল এবং মোটা টাকা ফাইন হতে পারে। তিল্লি বুচানানের বিরুদ্ধে অভিযোগও তেমনই। তিনি আইনের চোখে ‘অপরাধী।’

যদিও নিজের মক্কেলের বিরুদ্ধে এইসব অভিযোগই উড়িয়ে দিয়েছেন তিল্লির আইনজীবী। তাঁর দাবি, ঘটনার দিন তিল্লি ও তাঁর স্বামী নিজেদের গ্যারাজ পরিষ্কার করছিলেন। খুব গরম ছিল। তাঁদের পোশাকও খারাপ হয়ে গিয়েছিল। তাই দু’জনেই শার্ট খুলে রেখেছিলেন। সেই সময় তাঁদের দেখে ফেলে ওই দু’টি ছেলেমেয়ে। ওদের বয়স কম, ভুল ভেবে অভিযোগ করে ফেলেছে।

বস্তুত সপ্তাহখানেক ধরেই তিল্লি বুচানানের বিরুদ্ধে এই মামলা চলছে আদালতে। অভিযোগ দায়ের হয়েছিল আরও মাসখানেক আগে। তিল্লির দাবি, ‘‘বাড়িতে নিজের মতো করে থাকার স্বাধীনতা সকলের আছে। আমি নগ্ন হয়ে ঘুরলে আমার স্বামীও তাই করেন। তাঁর বিরুদ্ধে তো কোনও মামলা হয়নি? আইন সকলের জন্যই সমান হওয়া উচিত।’’

তিল্লির আইনজীবী জানিয়েছেন তাঁর মক্কেলকে দোষী বলে দাগিয়ে দেওয়া হলে সর্বোচ্চ একবছরের জেল এবং প্রায় দু’লক্ষ টাকা (ভারতীয় টাকায়) ফাইন দিতে হবে তাঁকে। শুধু তাই নয় আগামী দশ বছর এই ‘যৌন অপরাধী’র কেচ্ছা তাড়া করে বেড়াবে তাঁকে। পেশার ক্ষেত্রেও সমস্যায় পড়তে পারেন তিল্লি। এই ঘটনার মীমাংসা এখনও হয়নি। বিচারক কারা পেট্টিট জানিয়েছেন, তিল্লির বিরুদ্ধে অভিযোগ গুরুতর। শাস্তি না হলে আগামী দিনে মহিলারা নিজেদের সংস্কার আর রুচির বাইরে চলে যাবেন। যেটা রাজ্যের পক্ষে মোটেও স্বস্তিদায়ক হবে না। এই মামলার পরবর্তী শুনানি হবে আগামী মাসে।

তিল্লি বুচানানের বিরুদ্ধে আনা নগ্নতার অভিযোগ ইতিমধ্যেই অন্য বিতর্ক উস্কে দিয়েছে। তিল্লির সমর্থনে উন্মুক্ত স্তন নিয়ে রাস্তায় নেমে আন্দোলন করার কথা জানিয়েছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অন্যান্য রাজ্যের মহিলারা। তাঁদের দাবি, মহিলাদের স্তনবৃন্ত দেখা গেলে যদি সেটা অপরাধ হয়, একই অপরাধে কেন দোষী হবেন না পুরুষরা!  এই আন্দোলনের নাম দেওয়া হয়েছে ‘ফ্রি দ্য নিপিল’।

Comments are closed.