শিশু ধর্ষকদের নির্বীজকরণ হবে জেলেই, রাসায়নিক ইঞ্জেকশন কমাবে যৌন উত্তেজনা, নয়া আইন ইউক্রেনে

শিশু ধর্ষণ, যৌন হেনস্থায় অভিযুক্তদের জোর করে নির্বীজকরণ করানো হবে জেলের ভিতরেই। নতুন আইন আনছে ইউক্রেন।

২৪

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরোরাসায়নিক ইঞ্জেকশনের কয়েকটা ডোজ। দিনক্ষণ ঠিক করে দেবেন ডাক্তাররাই। আর সেটাই হবে মোক্ষম শাস্তি। শিশু ধর্ষণ, যৌন নির্যাতন রুখতে নয়া আইন আনল ইউক্রেন সরকার। জেলের ভিতরেই ধর্ষকের নির্বীজকরণ করানো হবে। রাসায়নিক ইঞ্জেকশন কমাবে যৌন উত্তেজনা।

গত কয়েক বছরে ধর্ষণ, যৌন হেনস্থার মতো অপরাধ বেড়েছে ইউক্রেনে। সেখানকার প্রশাসন এমনটাই জানিয়েছে। সমীক্ষায় ধরা পড়েছে ভয়ঙ্কর তথ্য। ধর্ষণের অভিযোগে গত এক বছরে হাজারের বেশি অপরাধীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ধৃতদের অধিকাংশই শিশু বা নাবালিকা ধর্ষণে অভিযুক্ত। শুধু ধর্ষণ নয়, নৃশংস যৌন নির্যাতনের পরে নির্মম হত্যাকাণ্ডেও জড়িত এই অপরাধীরা। ধৃতদের বয়স ১৮ বছর থেকে ৬৫ বছরের মধ্যে।

ধর্ষণ, যৌন নির্যাতনের মতো অপরাধে যাবজ্জীবন বা মৃত্যুদণ্ডের সাজা নেই ইউক্রেনে। তাই এই বিকল্প পথ। ইউক্রেনের স্থানীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, জেলের ভিতরেই ধর্ষকদের কাউন্সেলিং করানো হবে। পরে তাদের রাসায়নিক ইঞ্জেকশন দেওয়া হবে। কোনও অপরাধী রাজি না হলে জোর করেই তাদের নির্বীজকরণ করানো হবে।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার সব দিক নজরে রেখেই এই অ্যান্টি-অ্যান্ড্রোজেন ড্রাগ বানানো হয়েছে বলে জানিয়েছে সে দেশের প্রশাসন। লোকাল অ্যানাস্থেশিয়া করে এই ড্রাগ টেস্টিক্যালসের কাছে শুক্রাণু বহনকারী টিউবে প্রয়োগ করা হবে। শুক্রাণু নির্গমনকে বাধা দেবে এই ইনজেকশন। এক বার ড্রাগ ইনজেক্ট করলে কম করেও ১৩ বছর কার্যকরী থাকবে এর প্রভাব। ফলে জেল থেকে ছাড়া পেলেও আর ওই ঘৃণ্য অপরাধ করতে পারবে না আসামিরা। যৌন উত্তেজনা কমাবে এই ড্রাগ, বিকৃত মানসিকতার অপরাধীদের সুস্থ জীবনে ফিরিয়ে আনতেও সাহায্য করবে।

ন্যাশনাল পুলিশ চিফ ভ্যাচেলসভ

ন্যাশনাল পুলিশ চিফ ভ্যাচেলসভ অ্যাব্রস্কিন বলেছেন, ২০১৭ সালের সরকারি সমীক্ষায় দেখা গেছে ইউক্রেনে শিশু ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে ৩২০টি। যৌন হেনস্থা, শিশুদের সঙ্গে অশ্লীল আচরণ, শারীরিক নির্যাতনের মতো অপরাধ আরও অজস্র। পুলিশ অফিসার জানিয়েছেন ধর্ষণের ঘটনা এমন মারাত্মক জায়গায় পৌঁছেছে যে, এমনও দেখা গেছে, এক সপ্তাহে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ইউক্রেনের চার জায়গায় পাঁচটি শিশুকে ধর্ষণ করে খুন করা হয়েছে।

সাম্প্রতিক ঘটনাগুলির মধ্যে সবচেয়ে ভয়ঙ্কর ১১ বছরের মেয়ে দারিয়া লুক্যানেনকো ধর্ষণ ও হত্যাকাণ্ড। কিশোরীর উপর নৃশংস যৌন নির্যাতন চালিয়েছিল ধর্ষক। তার পর গলা টিপে তাকে খুন করা হয়েছিল। মেয়েটির দেহ যখন উদ্ধার করা হয়, তারা সারা শরীরে অসংখ্য ক্ষতের দাগ ছিল, ছিন্নভিন্ন হয়েছিল যোনি। দোষী ২২ বছরের নিকোলে তারাসভকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। পুলিশ কর্তা জানাচ্ছেন, নিকোলের কাউন্সেলিং করতে গিয়ে দেখা যায় সে বিকৃত কামজনিত রোগে ভুগছে। এর আগেও একাধিক শিশুকে যৌন হেনস্থা করেছে সে। অপরাধের জন্য বিন্দুমাত্র অনুতাপ নেই যুবকের। এমন অপরাধীদের জন্যই এই দাওয়াই বলে জানিয়েছেন পুলিশ অফিসার ভ্যাচেলসভ। ইঞ্জেকশনের ডোজ কতদিন কার্যকরী থাকছে দেখার জন্য জেল থেকে ছাড়া পাওয়ার পরেও এমন অপরাধীদের নজরে রাখবে পুলিশ-প্রশাসন।

আসামি নিকোলে তারাসভ

ইউক্রেনের পার্লামেন্ট এই নতুন আইনের জন্য বিল পাস করে দিয়েছে। আগামী কিছুদিনের মধ্যেই নয়া আইন লাগু হবে। শুধু শিশু ধর্ষক নয়, যৌন হেনস্থায় অভিযুক্ত সকল আসামির উপরই প্রয়োগ করা হবে এই রাসায়নিক ইঞ্জেকশন। ইউক্রেনের মতো কাজাকাস্তানও ধর্ষকদের নির্বীজকরণ করানোর জন্য রাসায়নিক ইঞ্জেকশন আনছে। ইউক্রেন তার ড্রাগের রাসায়নিক ফর্মুলা না বললেও, কাজাকাস্তান জানিয়েছে এই ধরনের ড্রাগে থাকবে সাইপ্রোটেরন নামক স্টেরয়ডাল অ্যান্টি-অ্যান্ড্রোজেন যা প্রস্টেট ক্যানসারের চিকিৎসায় ব্যবহার করা হয়।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More