বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ২৫

সিগারেটে লম্বা টান দেওয়া পছন্দ? বয়স কত? ১০০ বছর বয়স না হলে এই দেশে ধূমপান নৈব নৈব চ

দ্য ওয়াল ব্যুরো: পরনে কেতাদুরন্ত পোশাক। হাতে দামি সিগারেট। একরাশ ধোঁয়ার রিং হাওয়ায় মিলিয়ে যাওয়ার আগেই আর একটা লম্বা টান। এটাই যদি আপনার স্টাইল স্টেটমেন্ট হয়, বা পছন্দের নেশা তাহলে ভুলেও এই দেশে পা দেবেন না। কারণ এই দেশে ধূমপান করতে হলে আপনার ভিসা, পাসপোর্ট থুড়ি ঠিকুজি কুষ্ঠীর থেকেও আপনার বয়স আগে যাচাই করে নেওয়া হবে। যদি আপনার বয়স ১০০ পার হয়, তাহলেই মজা করে সিগারেটে সুখটান দিতে পারবেন, নচেৎ কড়া চোখের পুলিশ এসে আপনাকে পাকড়াও করে নিয়ে যাবে।

শুনতে অবাক লাগলেও এটাই সত্যি। ধূমপানের প্রতি তরুণ প্রজন্মের আসক্তিতে লাগাম টানার জন্য এই অবিনব পন্থা নিচ্ছে হাওয়াই প্রদেশ। সিগারেট যে অতি বিষম বস্তু, তাতে মনের সুখ হলেও শরীরের যে পুরোপুরি বারোটা বেজে যায় সেটাই খাতায় কলমে বোঝানোর জন্য রীতিমতো আইন এনে ধূমপানে রাশ টানার প্রচেষ্টা চলছে।

বয়স ঠিক কত হলে হাতে সিগারেট তুলে নিতে পারবেন, তার একটা নির্দিষ্ট গণ্ডি বেঁধে দিযেছে বিশ্বের অধিকাংশ দেশই। ন্যূনতম বয়স ১৬-১৮ বছরের মধ্যেই ঘোরাফেরা করে। মার্কিন মুলুকে সেটা ২১ বছর। বর্তমান আইন অনুযায়ী ২১ বছর না পেরোলে হাওয়াইতেও ধূমপান নিষিদ্ধ। কিন্তু, তার পর? আইনের ধার্য করা বয়সের গণ্ডি পার হয়ে গেলেই তো কেল্লাফতে। সব কিছু তাই ভেবে চিন্তে আইনে বদল আনার জন্য সুপারিশ করেছেন ডেমোক্র্যাটিক পার্টির সদস্য রিচার্চ ক্রেগ্যান। সংসদে নতুন বিল উত্থাপন করে তিনি জানিয়েছেন, ধূমপান করার বয়স ২১ বছর থেকে অনেকটা বাড়ানোই দরকার। এবং ২০২০ থেকে ২০২৪ সালের মধ্যে এই বদলটা না এলে, সিগারেটের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে কিছুতেই তরুণ প্রজন্মকে বাঁচানো সম্ভব হবে না।

২০১৭ সালের জানুয়ারি মাসে হাওয়াই প্রদেশেই প্রথম ধূমপানের ন্যূনতম বয়স ১৮ থেকে বাড়িয়ে ২১ বছর করা হয়। যে কোনও মাদক সেবনেও সেখানে যথেষ্ট কড়াকড়ি আছে। ক্রেগ্যান জানিয়েছেন, নতুন বিলের নাম ‘এইচবি ১৫০৯।’ তাঁর মতে, ২০২০ সালে সিগারেট কেনার সবচেয়ে কম বয়স হোক ৩০ বছর, ২০২১ সালে সেটা বাড়িয়ে করা হোক ৪০ বছর, ২০২২ সালে ৫০ বছর, ২০২৩-এ ৬০ শেষে ২০২৪ সালে এক্কেবারে সেঞ্চুরি মানে ১০০ বছর। তবে ই-সিগারেট, টোবাকো, সিগারের ব্যাপারে ক্রেগ্যান কিছু বলেননি।

‘‘মানব সভ্যতায় সবচেয়ে ভয়ানক ও প্রাণঘাতী বস্তু হল সিগারেট,’’ এমনটাই জানিয়েছেন ক্রেগ্যান। পেশায় তিনি একজন চিকিৎসকও। নতুন আইন আসার আগেই তাই জেন এক্স, জেন ওয়াইকে সতর্ক করে তিনি বলেছেন, ‘‘নিয়মিত ধূমপান ওরাল ক্যাভিটি, শ্বাসনালীর ক্যানসারের বড় কারণ। বড় বিপদ ঘঠার আগেই তাই সাবধান হওয়া প্রয়োজন।’’

The Wall-এর ফেসবুক পেজ লাইক করতে ক্লিক করুন 

Shares

Comments are closed.