বুধবার, জানুয়ারি ২২
TheWall
TheWall

ভুয়ো খবর রুখতে চাই ডিজিটাল মিডিয়ার সঠিক প্রয়োগ, বাছাই করা টাটকা খবর পেতে ফেসবুক আনতে চলেছে ‘নিউজ ট্যাব’

Google+ Pinterest LinkedIn Tumblr +

দ্য ওয়াল ব্যুরো: নিউজ ফিড তো ফেসবুকের একচেটিয়া, এ বার ডিজিটাল মিডিয়াকে সঠিক ভাবে প্রয়োগের জন্য নতুন রাস্তা বার করলো ফেসবুক। ভুয়ো খবর নয়, নিত্যদিনের টাটকা, তাজা খবর গ্রাহকদের পাতে তুলে দিতে ফেসবুকের নয়া সংযোজন ‘নিউজ ট্যাব।’ এই ট্যাবে ক্লিক করলেই, হুড়হুড়িয়ে দিনের সমস্ত খবর চোখের সামনে ভেসে উঠবে। স্থানীয় সংবাদ সংস্থা হোক বা নামী মিডিয়া— পছন্দের সব খবরই থাকবে এই নিউজ ট্যাবে।

ভোটের সময় মিথ্যা, ভুয়ো, আপত্তিকর বার্তা রুখতে সব বিষয়কেই আতসকাচের নীচে ফেলতে চাইছে ফেসবুক। চুলচেরা বিশ্লেষণে ঠিক হবে কোন খবর নিউজ ফিডে দেখানো হবে, আর কোনটা নয়। নিউড ট্যাবের ক্ষেত্রেও তার ব্যতিক্রম নয়। খবরের সত্যতা যাচাই করেই সেটা ফেলা হবে ট্যাবে। নির্ভরযোগ্য এবং অবশ্যই বিশ্বাসযোগ্য সাংবাদিকতাকে জনগণের সামনে তুলে ধরতে চায় ফেসবুক, এমনটাই জানিয়েছেন ফেসবুক স্রষ্টা মার্ক জ়াকারবার্গ।

এই নিউজ ট্যাব বিষয়টা আসলে কী? জ়াকারবার্গের কথায়, এতদিন নিউজ ফিড ঘাঁটলেই দেশ-বিদেশের খবর মিলত। পছন্দের মিডিয়া পেজে লাইক করা থাকলে, সেই মিডিয়ার প্রকাশ করা সমস্ত আপডেট নিউজ ফিডেই পেতেন গ্রাহকরা। তবে সমস্যা হচ্ছে, নিউজ ফিড জায়গাটা যেহেতু পাঁচমিশেলি, সেখানে খবর ছাড়াও ব্যক্তিগত পোস্ট, ফ্রেন্ড জোনের শেয়ার করা পোস্ট ইত্যাদি সবকিছুই মিলেমিশে থাকে। চটজলদি খবর জানতে হলে গ্রাহককে নিউজ ফিডের এডিটেড অপশনে গিয়ে নিজের পছন্দ বেছে নিতে হয়। জ়াকারবার্গের কথায়, ফেসবুকে অন্তত ১০ থেকে ১৫ শতাংশ গ্রাহক রয়েছেন যাঁরা নিত্যদিনের খবর জানতে চান। রাজনীতি, অর্থনীতি, খেলা, ব্যবসাবাণিজ্য থেকে সফট, টেকনিক্যাল নিউজ— সব বিষয়েরই আলাদা আলাদা গ্রাহক রয়েছে। সকলের কথা ভেবেই তাই এই নিউজ ট্যাবের সিদ্ধান্ত।

ইউরোপের অন্যতম ডিজিটাল পাবলিশিং হাউস অ্যাক্সেল স্প্রিংগারের সঙ্গে ইতিমধ্যেই কথাবার্তা চালাচ্ছে ফেসবুক। জ়াকারবার্গের কথায়, ‘‘অ্যাক্সেল স্প্রিংগারের সিইও ম্যাথিয়াস ডপফিনারের সঙ্গে আলোচনা করেছি। কী ভাবে নিউজ ফিডকে নিয়ন্ত্রণ করা হবে তার একটা রূপরেখা ঠিক হয়েছে। আমরা অনেক বেশি নির্ভরযোগ্য খবর চাই, যেটা ডিজিটাল পাবলিশিং হাউজগুলোর জন্য যেমন লাভজনক হবে তেমনি লাভ হবে গ্রাহকদেরও।’’

নিউজ ট্যাবে চাইলে কিন্তু যে কোনও খবর পাবলিশড করা যাবে না, কড়া নজর থাকবে ফেসবুকের। জ়াকারবার্গ জানিয়েছেন, আলাদা করে কোনও সাংবাদিক রাখা হবে না এই ট্যাবের জন্য। বরং থাকবে কিউরেটর, যার দায়িত্ব হবে জমা করা খবর থেকে বাছাই করে সেরা খবরগুলো ট্যাবে পাবলিশড করা। সে ক্ষেত্রে চাইলেই যে কোনও ডিজিটাল মিডিয়া ফেসবুকের পার্টনার হতে পারে। তবে তাদের খবর নেওয়ার আগেও কড়া নজরদারি চালাবে ফেসবুক।

২০১৬ সালে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সময়ে ফেসবুক-সহ সোশ্যাল মিডিয়ার ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। ভুয়ো খবর আটকাতে ব্যর্থ হয় তারা। ভোটে প্রভাব খাটানোর অভিযোগ ওঠে। যার জেরে ফেসবুক কর্তা মার্ক জ়াকারবার্গকে মার্কিন সেনেটে প্রশ্নের মুখে পড়তে হয়। লোকসভা ভোটের মুখে ভুয়ো খবর, মিথ্যে তথ্য ছড়িয়ে ভোটারদের যাতে কেউ বিভ্রান্ত না করতে পারে তার জন্য ভারতে নির্বাচনের আগে আলাদা করে রকম ‘কন্ট্রোল রুম’ খুলছে ফেসবুক। দেশ জুড়ে ভুয়ো খবরের জেরে ছড়িয়ে পড়া হিংসা রুখতে খবরের সত্যতা যাচাই করতে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে গাঁটছড়াও বাঁধা হয়েছে। বিভিন্ন সংস্থার সঙ্গে মিলে ইংরাজি, হিন্দি ও বিভিন্ন আঞ্চলিক ভাষায় এই কাজ চলছে। ফেসবুকের দাবি, যদি তথ্য যাচাইয়ের পরে যদি কোনও ভুয়ো খবর খুঁজে পাওয়া যায়, সে ক্ষেত্রে ওই সূত্র থেকে আসা খবরের প্রকাশ ৮০% কমিয়ে দেওয়া হচ্ছে। সব দিক বিচার করেই তাই আলাদা করে নিউজ ট্যাব অপশন আনছে ফেসবুক। যেখানে শুরু থেকেই ঝাড়াই বাছাই করে সঠিক খবর পৌঁছে দেওয়া হবে গ্রাহকের কাছে।

Share.

Comments are closed.