জম্মুর রাজৌরি থেকে গ্রেফতার ৩ লস্কর জঙ্গি, উদ্ধার প্রচুর অস্ত্রশস্ত্র

১১

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো: জম্মুর রাজৌরি জেলা থেকে গ্রেফতার হয়েছে ৩ লস্কর জঙ্গি। সেনা সূত্রে খবর, পাক মদতপুষ্ট জঙ্গি সংগঠন লস্কর-ই-তৈবার সক্রিয় সদস্য ছিল এই তিনজন। তাঁদের কাছ থেকে বেশ কিছু অত্যাধুনিক আগ্নেয়াস্ত্রও উদ্ধার হয়েছে। জঙ্গিদের থেকে দুটি একে-৫৬ রাইফেল, দুটি পিস্তল, চারটে গ্রেনেড এবং নগদ এক লক্ষ টাকা উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন জম্মুর আইজিপি মুকেশ সিং। অস্ত্রশস্ত্রের সরঞ্জাম দেখে অনুমান, বড়সড় কোনও পরিকল্পনা ছিল এই ৩ লস্কর জঙ্গির। তাঁদের উদ্দেশ্য জানতে ইতিমধ্যেই ধৃতদের জেরা করা হচ্ছে। তারা কোথা থেকে কীভাবে রাজৌরিতে এল, এত আগ্নেয়াস্ত্রই বা এল কোথা থেকে সেইসব জানতে তদন্ত শুরু হয়েছে। প্রসঙ্গত, জম্মু ও কাশ্মীর পুলিশের সঙ্গে যৌথভাবে এই অভিযান চালিয়েছে নিরাপত্তাবাহিনী।

এর আগে গত সপ্তাহে ১১ সেপ্টেম্বর শুক্রবার সকালে জম্মু ও কাশ্মীরের কুপওয়ারা জেলা থেকে গ্রেফতার হয়েছিল জইশ-ই-মহম্মদের দুই জঙ্গি। সেনা সূত্রে খবর, কুপওয়ারা জেলার দ্রুগমুল্লা এলাকা দিয়ে গাড়িতে করে যাচ্ছিল ওই দুই জইশ জঙ্গি। সেই সময়েই তাদের গ্রেফতার করে নিরাপত্তবাহিনী। জানা গিয়েছে, ওই গাড়ি থেকে একে-৪৭ রাইফেলের পাশাপাশি ২টো গ্রেনেড, গোলা-বারুদ-বুলেট, নগদ ৭ লক্ষ টাকা এবং আরও অত্যাধুনিক অস্ত্রশস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছিল। উপত্যকায় জইশ-ই-মহম্মদের নতুন করে বড়সড় কোনও নাশকতার পরিকল্পনা ছিল কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ধৃত ২ জইশ জঙ্গিকে জেরাও করা হয়েছে বলে জানিয়েছে সেনাবাহিনী।

অন্যদিকে গত ৭ সেপ্টেম্বর জম্মু ও কাশ্মীরের বুদগাম এলাকায় নিরাপত্তাবাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষ হয় জঙ্গিদের। সেই সময় গুলি লাগে এক জঙ্গির ঘাড়ে। কিন্তু সেই অবস্থাতেই যে অঞ্চলে এনকাউন্টার হয়েছিল তার সংলগ্ন এলাকার সুকনাগ নালায় ঝাঁপিয়ে পড়ে আহত জঙ্গি। চারদিন ধরে অনেক খোঁজার পর অবশেষে ১১ সেপ্টেম্বর সকালে উদ্ধার হয় ওই জঙ্গির দেহ।

এছাড়াও গত ৫ সেপ্টেম্বর শনিবার জম্মু ও কাশ্মীরে নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর বন্দিপোরা জেলায় কৃষ্ণগঙ্গা নদী থেকে উদ্ধার হয়েছিল হিজবুল মুজাহিদিন জঙ্গি গোষ্ঠীর দুই জঙ্গির দেহ। নিরাপত্তাবাহিনীর অনুমান, পাক অধিকৃত কাশ্মীর থেকে ভারতীয় ভূখণ্ডে প্রবেশের সময় গুরেজ সেক্টরে এলাকায় মালানগম তুলাইল গ্রামের কাছে সম্ভবত নদীতে ডুবে গিয়েছিল এই দুই জঙ্গি। সেনাবাহিনীর তরফে জানানো হয় এই দুই জঙ্গির মধ্যে একজনের নাম সমীর আহমেদ ভাট। দক্ষিণ কাশ্মীরের পুলওয়ামা জেলার দাঙ্গেরপোরা এলাকার বাসিন্দা সে। অন্যজন নিসার আহমেদ রাথের। এই জঙ্গিও পুলওয়ামার ত্রাল এলাকার দাদসারা অঞ্চলের বাসিন্দা। জানা গিয়েছে, এই দুই জঙ্গিই হিজবুল মুজাহিদিনের সক্রিয় সদস্য ছিল। তবে ২০১৮ সাল থেকে প্রায় দু’বছর ধরে নিখোঁজ ছিল তারা।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More