বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ২৫

চপ্পল দিয়ে সেলফি! খুশি হতে গেলে মনের ইচ্ছেটাই যথেষ্ট, শেখাচ্ছে খুদেরা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ‘সেলফি’। এই শব্দের সঙ্গে এখন পরিচিত আট থেকে আশি। হাতে একটা স্মার্টফোন থাকলেই হলো। নিমেষেই ফ্রেমবন্দি হয়ে যাবে পছন্দের মুহূর্তে আপনার মুখের অভিব্যক্তি। একসঙ্গে কয়েক জন থাকলে সেই সেলফিরই নাম হয় ‘গ্রুপফি’। তবে এ বার স্মার্টফোন দিয়ে নয়, এক অদ্ভুত কায়দায় সেই গ্রুপফি তোলার চেষ্টা করে সোশ্যাল মিডিয়ায় রীতিমতো বিখ্যাত হয়ে গিয়েছে পাঁচ খুদে।

তাদের প্রত্যেকের বয়স বড় জোর পাঁচ কিংবা ছয়ের মধ্যে। একেবারেই কচিকাঁচার দল তারা। কিন্তু বুদ্ধিতে যেন টেক্কা দেবে বড়দেরও! পরনে ছাপোষা পোশাক। হাবভাব দেখে বোঝাই যাচ্ছে, খুবই সাধারণ গ্রাম্য পরিবেশে বড় হচ্ছে এই পাঁচ খুদে। আর এত ছোট বয়সে পকেটে ফোন না থাকাই তো স্বাভাবিক। কিন্তু বন্ধুরা একজোট হয়েছে। গ্রুপফি তো একটা তুলতেই হয়! পাড়া-প্রতিবেশী কিংবা পরিবারের বড়দের অথবা টিভির পর্দায়, তারা তো তেমনটাই করতে দেখেছে সকলে। অতএব গ্রুপফি চাই।

কিন্তু, ফোন নেই তো কী হয়েছে? পায়ের চটি তো আছে! আর সেই চটিই পা থেকে খুলে, হাতে গলিয়ে খুদে বাহিনীর এক জন বানিয়ে ফেলল ‘চপ্পল ক্যামেরা’। মুখের সামনে অবিকল স্মার্টফোনের ভঙ্গিতে উঁচু করে ধরল চপ্পলটি। আর সঙ্গে সঙ্গে পিছন থেকে পোজ় দিয়ে দাঁড়িয়ে পড়ল বাকি চার জনও।

ক্ষণিকেই এই মুহূর্ত লেন্সবন্দি করে ফেলেছিলেন পথচলতি কেউ। সঙ্গে সঙ্গেই শেয়ারও করেছিলেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। আর তার পরেই ভাইরাল হয়ে যায় এই পাঁচ খুদের কীর্তি। বলিউড তারকারাও শেয়ার করতে শুরু করেন সারল্যের হাসিমাখা এই পাঁচ জনের ছবি। সকলেরই একটাই মত, ‘খুশি হতে গেলে মনের ইচ্ছেটাই যথেষ্ট’।

জানা যায়নি, কোথায় তোলা হয়েছে এই ছবি। তবে ‘চপ্পল ক্যামেরা’-র গ্রুপফি এখন #picoftheday নামে সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রেন্ডিং। সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজের অ্যাকাউন্টে এই ছবি শেয়ার করেছেন অভিনেতা বোমান ইরানিও। লিখেছেন, “আপনি যে ভাবে চান সে ভাবেই খুশি হতে পারেন।” ছবি শেয়ার করেছেন সুনীল শেট্টি এবং অনুপম খেরও।

তবে বাকি অভিনেতাদের থেকে খানিক ভিন্ন মত প্রকাশ করেছেন অমিতাভ বচ্চন। তাঁর মতে এই ছবি ফোটোশপ বা এডিট করা হয়েছে। সোশ্যাল মিডিয়ায় ছবি শেয়ার করে তেমনটাই লিখেছেন বিগ বি। তাঁর মতে, ছবিতে যে বাচ্চাটিকে গ্রুপফি তুলতে দেখা গিয়েছে, তাঁর হাতের সঙ্গে বাকি দেহের অংশের নাকি পার্থক্য রয়েছে। তেমনটাই মত সিনিয়র বচ্চনের। তবে অমিতাভের মন্তব্যের উল্টোটাই বলেছেন নেটিজেনদের একটা বড় অংশ। তাঁরা সাফ জানিয়েছেন মোটেও এডিট করা হয়নি এই ছবি।

তবে তর্ক-বিতর্ক যাই হোক না কেন, সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাল থাকার বার্তা নিয়ে এখন রীতিমতো ভাইরাল এই ছবি।

Shares

Comments are closed.