যেভাবেই হোক জম্মু-কাশ্মীরে জঙ্গি ঢোকাতে চাইছে পাকিস্তান, গুরুতর অভিযোগ উপত্যকার ডিজিপির

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো: জম্মু-কাশ্মীরে জোর করে জঙ্গি ঢোকাতে চাইছে পাকিস্তান। শনিবার সাংবাদিক সম্মেলনে এমনই গুরুতর অভিযোগ করেছেন জম্মু ও কাশ্মীরের ডিজিপি দিলবাগ সিং। তিনি আরও বলেছেন যে বিভিন্ন জঙ্গি সংগঠনকে আর্থিক সাহায্যও দিচ্ছে পাকিস্তান।

সংবাদসংস্থা এএনআই সূত্রে খবর, উপত্যকার পুলিশ প্রধান বলেছেন, পাকিস্তান যে ভাবেই হোক জম্মু ও কাশ্মীরে জঙ্গি কার্যকলাপ বাড়াতে চাইছে। সে জন্য পাক মদতপুষ্ট বিভিন্ন জঙ্গি সংগঠনকে সবরকম সাহায্য দেওয়া হচ্ছে। পাশাপাশি জম্মু-কাশ্মীরের আন্তর্জাতিক সীমানা বরাবর জঙ্গিদের ভারতের ভূখণ্ডে প্রবেশ করানোর চেষ্টাও চলছে। এইসব ক্রিয়াকলাপ বোঝার জন্য উপত্যকার মাদক পাচারকারীদের উপর কড়া নজর রাখার কথা বলেছে পুলিশ। কারণ মাদক পাচারের মাধ্যমেই মূলত জঙ্গি গোষ্ঠীগুলিকে টাকার যোগান দেওয়া হয়।

কড়া ভাষায় পাকিস্তানের নিন্দা করে ডিজিপি দিলবাগ সিং এদিনের সাংবাদিক সম্মেলনে আরও বলেছেন, জম্মু-কাশ্মীরের শান্তি-শৃঙ্খলা নষ্ট করা পাকিস্তানের একমাত্র লক্ষ্য। নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর এবং জম্মু-কাশ্মীরের আন্তর্জাতিক সীমান্ত বরাবর জঙ্গিদের অনুপ্রবেশ করানোর পাশাপাশি ড্রোনের সাহায্যে জঙ্গিদের জন্য অস্ত্রশস্ত্রও সরবরাহ করা হচ্ছে। জম্মু-কাশ্মীরের বিভিন্ন এলাকায় ড্রোন থেকে অস্ত্র ফেলে দেওয়া হচ্ছে। এসব ড্রোনকে খুঁজে বের করা বেশ কঠিন। তবে পাকিস্তানের এইসব কৌশল ভেস্তে দেওয়ার জন্য তৈরি রয়েছে ভারতীয় সেনাবাহিনী এবং জম্মু-কাশ্মীর পুলিশ।

উল্লেখ্য, জম্মু-কাশ্মীরে গালার গ্রামের কাছে আন্তর্জাতিক সীমানা বরাবর একটি টানেল বা সুড়ঙ্গ খুঁজে পেয়েছিল বিএসএফ। ১৭০ মিটার দীর্ঘ ওই সুড়ঙ্গের মুখ প্লাস্টিকের বস্তা জাতীয় জিনিস দিয়ে আটকানো ছিল। তাতে আবার ছাপ ছিল করাচির। গত ২৮ অগস্ট ২০ থেকে ২৫ মিটার চওড়া এই সুড়ঙ্গের হদিশ পান বিএসএফ জওয়ানরা। এই প্রসঙ্গেও দিলবাগ সিং বলেন, ভারতের ভূখণ্ডে জঙ্গি অনুপ্রবেশের জন্যই এই সুড়ঙ্গ বানানো হয়েছিল। সেই সঙ্গে ড্রোনের মাধ্যমে জঙ্গিদের জন্য হাতিয়ার পাঠানোর ব্যবস্থাও করেছে পাকিস্তান।

প্রসঙ্গত, আজ সকালেও জম্মুর রাজৌরি জেলা থেকে গ্রেফতার হয়েছে ৩ লস্কর জঙ্গি। সেনা সূত্রে খবর, পাক মদতপুষ্ট জঙ্গি সংগঠন লস্কর-ই-তৈবার সক্রিয় সদস্য ছিল এই তিনজন। তাঁদের কাছ থেকে বেশ কিছু অত্যাধুনিক আগ্নেয়াস্ত্রও উদ্ধার হয়েছে। জঙ্গিদের থেকে দুটি একে-৫৬ রাইফেল, দুটি পিস্তল, চারটে গ্রেনেড এবং নগদ এক লক্ষ টাকা উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন জম্মুর আইজিপি মুকেশ সিং।

অস্ত্রশস্ত্রের সরঞ্জাম দেখে অনুমান, বড়সড় কোনও পরিকল্পনা ছিল এই ৩ লস্কর জঙ্গির। তাঁদের উদ্দেশ্য জানতে ইতিমধ্যেই ধৃতদের জেরা করা হচ্ছে। তারা কোথা থেকে কীভাবে রাজৌরিতে এল, এত আগ্নেয়াস্ত্রই বা এল কোথা থেকে সেইসব জানতে তদন্ত শুরু হয়েছে। জম্মু ও কাশ্মীর পুলিশের সঙ্গে যৌথভাবে এই অভিযান চালিয়েছে নিরাপত্তাবাহিনী। তাতেই অস্ত্র সমেত পাকড়াও হয়েছে ৩ লস্কর জঙ্গি।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More