শুক্রবার, ডিসেম্বর ১৪

বিজেপি সমাজকে বিভক্ত করতে চায়, দল ছাড়লেন সাংসদ ফুলে

দ্য ওয়াল ব্যুরো : বুলন্দশহরে পুলিশ খুনের ঘটনা নিয়ে ইতিমধ্যে বিপাকে উত্তরপ্রদেশের বিজেপি সরকার। এর মধ্যে দলের অস্বস্তি আরও বাড়িয়ে সরাসরি বিদ্রোহ করলেন সাংসদ সাবিত্রীবাই ফুলে। তিনি ঘোষণা করলেন, বিজেপি সমাজকে ভাগ করতে চায়। তাই তিনি দল ছাড়ছেন।

কিছুদিন আগে উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের বিরুদ্ধে সরব হয়েছিলেন ফুলে। রাজস্থানের আলোয়ারে ভোটের প্রচারে গিয়ে যোগী বলেন, বজরং বলি ছিলেন অরণ্যবাসী, বঞ্চিত ও দলিত। তিনি পূর্ব থেকে পশ্চিম, উত্তর থেকে দক্ষিণ, ভারতের মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করেছিলেন।

আরও পড়ুন ক’দিন লাগে তদন্ত করতে? সিআইডি কি ঘুমোচ্ছে? নন্দীগ্রাম নিখোঁজ মামলা নিয়ে ক্ষুব্ধ মুখ্যমন্ত্রী

তাঁর এই মন্তব্যের পরে বিতর্ক হয় নানা মহলে। অনেকে অভিযোগ করেন, হনুমানের জাতপাতের কথা বলে যোগী ভোটের আগে রাজনৈতিক ফয়দা তুলতে চান। তাঁর বিরুদ্ধে মুখ খোলেন ফুলেও। তিনি বলেন, যোগীর কথামতো হনুমান যদি দলিত হন, তাহলে সারা দেশে হনুমানের মন্দিরগুলিতে দলিতদের পূজারী হিসাবে নিয়োগ করা হোক।

তাঁর প্রশ্ন, হনুমান সবসময় রামচন্দ্রের সেবা করেছেন। কিন্তু তাঁর মূর্তিতে লেজ লাগানো হয় কেন? মুখে কালি লাগানো হয় কেন?

বাহরাইচের এমপি ফুলের দাবি, হনুমান ছিলেন মনুবাদীদের দাস।

রামমন্দির নিয়ে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, বিজেপির কাছে আর কোনও ইস্যু নেই। তাই তারা ওই বিষয়টিকে খুঁচিয়ে তুলছে।

তাঁর কথায়, আমাদের দেশে নতুন করে মন্দির গড়ার প্রয়োজন নেই। এতে কি বেকারত্ব কমবে? দলিত ও পশ্চাৎপদদের কোনও উপকার হবে? মন্দির তৈরি হলে ব্রাহ্মণদের উপকার হবে। তারা জনসংখ্যার মাত্র তিন শতাংশ। মন্দিরে যে অর্থ জমা পড়ে তা ব্রাহ্মণদের কাজে লাগে। ওই অর্থ দিয়ে তারা আমাদের দলিত সম্প্রদায়ের মানুষকে দাস বানিয়ে রাখে।

এদিন দলিতদের অধিকার নিয়ে সরব হন ফুলে। তিনি বলেন, সংবিধানে দলিতদের যে অধিকার দেওয়া হয়েছে, তা আমাদের দিতে হবে। হামকো অধিকার চাহিয়ে ওরনা কুর্সি খালি কর।

এর আগেও বিজেপির অস্বস্তির কারণ হয়েছিলেন ফুলে। তিনি প্রশ্ন তোলেন, বিজেপি নেতারা দলিতদের বাড়িতে খাদ্যগ্রহণ করেন কেন? আর একবার পাকিস্তানের প্রতিষ্ঠাতা মহম্মদ আলি জিন্নাকে তিনি বলেছিলেন ‘মহাপুরুষ’।

ফুলে যখন যোগীর বিরুদ্ধে মন্তব্য করেছিলেন, তখন বিজেপির মুখপাত্র বলেন, মনে হচ্ছে ওই এমপি ভারতীয় সংস্কৃতি সম্পর্কে কিছু জানেন না। কিন্তু এদিন ফুলে যখন দল ছাড়ার ঘোষণা করলেন, তাঁর সম্পর্কে মন্তব্য করেননি বিজেপির কেউ।

The Wall-এর ফেসবুক পেজ লাইক করতে ক্লিক করুন 

Shares

Comments are closed.