শনিবার, অক্টোবর ১৯

ব্যস্ত রাস্তায় হামাগুড়ি দিচ্ছে একরত্তি, পাশ দিয়ে সাঁইসাঁই করে ছুটে চলেছে গাড়ি, দেখুন ভিডিয়ো

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ব্যস্ত রাস্তা। সাঁইসাঁই করে ছুটছে গাড়ি। এমন রাস্তাতেই জিপ থেকে পড়ে গিয়েছে একরত্তি শিশু। বয়স মাত্র এক বছর। কিন্তু কিচ্ছু হয়নি তার। বরং অক্ষত অবস্থায় দিব্যি হামাগুড়ি দিচ্ছে সে। পাশ দিয়ে বেরিয়ে যাচ্ছে একের পর এক গাড়ি। অথচ বাচ্চাটির গায়ে স্পর্শ পর্যন্ত হচ্ছে না।

সম্প্রতি ভাইরাল হয়েছে এমনই এক ভিডিয়ো। জানা গিয়েছে, নেট দুনিয়ায় ভাইরাল হওয়া ওই ভিডিয়ো কেরলের মুন্নারের। পরিবারের সঙ্গে এসইউভি চড়ে যাচ্ছিল এক বছরের ওই মেয়েটি। গাড়িতে ঘুমিয়ে পড়েছিলেন বাকিরা। সে সময়েই গাড়ি থেকে পড়ে যায় শিশুটি। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভিডিয়ো দেখে অনেকেই বলছেন, সৌভাগ্য সঙ্গে নিয়েই জন্মেছে এই শিশু। নইলে এরকম ব্যস্ত রাস্তায় কখনও বেঁচে থাকে, হামাগুড়ি দেয়। গাড়ির তলায় তো পিষে যাওয়ার কথা!

পুলিশ জানিয়েছে, শনিবার রাত ৯টা ৪০মিনিট নাগাদ তাদের কাছে খবর আসে জঙ্গলের পাশে হাইওয়েতে ঘুরে বেড়াচ্ছে এক শিশু। দশটার মধ্যেই তড়িঘড়ি রেসকিউ টিম নিয়ে ছুটে যায় পুলিশবাহিনী। এরপর বাচ্চাটিকে উদ্ধার করে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয় তাকে। জানা গিয়েছে মাথায় চোট পেয়েছে বাচ্চাটি। তবে সেটা গুরুতর কিছু নয়। সেদিন রাত ১১টা নাগাদ পুলিশ জানতে পারে ঘটনাস্থল থেকে ৬ কিলোমিটার দূরে একটি থানায় এক পরিবার তাদের বাচ্চা নিখোঁজ হওয়ার মিসিং ডায়েরি করেছেন। সেই সূত্র ধরেই পরিবারের হাতে বাচ্চাটিকে তুলে দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

তবে সবকিছুর সঙ্গে এই ভিডিয়ো মনে করাচ্ছে সেলুলয়েডের এক বাচ্চাকে। হলিউড ছবি ‘বেবিজ ডে আউট’-এর একরত্তিকে। এই ইংরেজি ছবিটি আসলে নাকি বাচ্চাদের সিনেমা। কিন্তু বড়রা যে এ ছবি কতবার দেখেছেন তার ইয়ত্তা নেই। মধ্যবয়সী থেকে ষাট পেরনো প্রৌঢ় কিংবা বৃদ্ধ, সকলেরই বড্ড প্রিয় এই ছবি। গোটা সিনেমা জুড়ে রয়েছে নানান ঘটনা। রয়েছে অ্যাকশনও। তবে একেবারেই নেই রক্তপাত। বরং মজায় ভরপুর এই ছবি সব বয়সের বিনোদনের জন্য আদর্শ।

সিনেমার গল্পে সবকিছুর কেন্দ্রে ছিল একরত্তি শিশু। সেখানেও দেখা গিয়েছিল সাংঘাতিক ব্যস্ত রাস্তায় হাজার গাড়ি-ঘোড়ার ভিড়েও কিচ্ছু হয়নি বাচ্চাটির। রাস্তার উপরেই বসেছিল সে। আর তার উপর দিয়েই চলে যাচ্ছিল দ্রুত গতির গাড়ি। কিন্তু গাড়ির চাকা বাচ্চাটির গায়ে স্পর্শ করা তো দূরের কথা, কিছুই হয়নি তার। এক্কেবারে অক্ষত ছিল শিশুটি।

Comments are closed.