বুধবার, জুলাই ১৭

গাড়ি ঢুকতে বাধা, বহুতলের নিরাপত্তাকর্মীকে বেধড়ক মার, দেখুন ভিডিও

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বিলাসবহুল কমপ্লেক্সে ঢুকতে চেয়েছিল গাড়ি। কিন্তু গাড়ি আটকান নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা কর্মীরা। তাতেই বেজায় চটে যান গাড়ির সওয়ারিরা। নেমে এসে সটান মারধর শুরু করেন এক নিরাপত্তাকর্মীকে। হাত দিয়ে নয়, একেবারে ধারালো অস্ত্র, লাঠিসোটা নিয়ে শুরু হয় বেধড়ক মার। কমপ্লেক্সের গেটে থাকা সিকিউরিটি অফিসেও হামলা চালান গাড়ির যাত্রীরা।

গোটা ঘটনায় রেকর্ড হয়েছে সিসিটিভিতে। সোশ্যাল মিডিয়ায় তা প্রকাশ্যে আসতেই শিউরে উঠেছেন নেটিজেনরা। সামান্য একটা কারণ, যা হয়তো কথা বলেই মিটিয়ে নেওয়া যেত, তা না করে মারধর করার কী যুক্তি রয়েছে তাই নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অনেকেই। শুধু তাই নয়, কেউ কেউ বলছে যদি ওই নিরাপত্তাকর্মীরঅ দোষ থাকে তাহলেও ভদ্র ভাবে কথা বলেই ব্যাপারটা মিটিয়ে নেওয়া যেত। এমন নির্মম ভাবে মারধরের কোনও প্রয়োজনই ছিল না।

জানা গিয়েছে, উত্তর প্রদেশের গাজিয়াবাদে ঘটেছে এই অমানবিক ঘটনা। সেখানকার ক্রসিং রিপাবলিক এলাকায় প্রোভিউ লাবনী হাইরাইজের এক বাসিন্দার সঙ্গে দেখা করতে এসেছিলেন ওমবীর সিং নামের এক ব্যক্তি। নিজের এসইউভি কমপ্লেক্সের ভিতরেই রাখতে চেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু অনুমতি দেননি নিরাপত্তারকর্মীরা। ওমবীরের সঙ্গে একচোট ঝগড়াও হয় তাঁদের। সকলকে দেখে নেবে হুঁশিয়ারি দিয়ে তখন চলে যায় ওই ব্যক্তি। এরপর রাতের বেলা ফের ওই কমপ্লেক্সে আসেন ওমবীর। সঙ্গে নিয়ে আসেন আরও ৬-৭ জনকে।

আক্রান্ত নিরাপত্তাকর্মী জানিয়েছেন, তাঁদের সকলের হাতেই ছিল ধারালো অস্ত্র এবং মোটা লাঠি। ওই দলের একজন সোজা এসে নিরাপত্তাকর্মীর মাথায় আঘাত করেন বলে অভিযোগ। ঘটনার সময় রাত সাড়ে ন’টা বলেই জানিয়েছে পুলিশ। সহকর্মীকে মার খেতে দেখে ছুটে আসেন বাকি নিরাপত্তাকর্মীরা। তারপর নিজেদের কন্ট্রোল রুমে ফোন করে পুলিশে খবর দিতে যান তাঁরা। সে সময় কন্ট্রোল রুমেও ওই ৬-৭ জনের দল হামলা চালায় বলে অভিযোগ। কম্পিউটার থেকে শুরু করে জালনা-দরজার কাচ, সবই ভেঙে দেন তাঁরা।

গোটা ঘটনার তদন্তে নেমেছে গাজিয়াবাদ পুলিশ। খতিয়ে দেখা হচ্ছে সিসিটিভি ফুটেজ। হামলাকারীদের মুখ চিনে তাঁদের পাকড়াও করার চেষ্টাও চলছে। তবে এখনও পর্যন্ত সকলেই পলাতক। গ্রেফতার হননি কেউই।

ভিডিও সৌজন্যে এনডিটিভি। 

Comments are closed.