শুক্রবার, মে ২৪

মাত্র ২৪ ঘণ্টাতেই দেশ ছাড়তে বাধ্য হলেন বেলজিয়ান পর্যটক! কিন্তু কেন?

দ্য ওয়াল ব্যুরো: সুদূর বেলজিয়াম থেকে এসেছিলেন ভারত ভ্রমণে। কিন্তু অভিজ্ঞতা এতটাই তিক্ত যে মাত্র ২৪ ঘণ্টাতেই দেশ ছাড়তে বাধ্য হলেন বেলজিয়ান পর্যটক।

জানা গিয়েছে, গত বছর ডিসেম্বর মাসে এ দেশে এসেছিলেন এক বেলজিয়ান মহিলা। কিন্তু একদিনও টিকতে পারেননি এই দেশে। নিজের ভয়াবহ অভিজ্ঞতার কথা চিঠি লিখে বেলজিয়ান দূতাবাসেও পাঠিয়েছেন ওই মহিলা। আর এখন সেই চিঠি জমা পড়েছে দিল্লি পুলিশের দফতরে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

কিন্তু কী এমন হয়েছিল যে ২৪ ঘণ্টাতেই দেশ ছাড়তে বাধ্য হলেন বিদেশি পর্যটক?

ওই বেলজিয়ান মহিলার ভিযোগ, ভারতে আসার পর থেকে প্রতি পদে প্রতারিত হয়েছেন তিনি। প্রথমবার প্রতারণার শিকার হন এক অটো চালকের হাতে। নিউ দিল্লি রেলস্টেশনের বাইরে থেকে ওই অটো ভাড়া করেছিলেন মহিলা। কিন্তু গন্তব্যে না গিয়ে অন্য এক জায়গায় মহিলাকে নিয়ে যায় অটোচালক। মহিলার অভিযোগ, সেখানে আগে থেকেই পুলিশের বেশে হাজির ছিলেন অটোচালকের এক পরিচিত ব্যক্তি। এরপর দু’জনে মিলে তাঁকে বোঝায়, মহিলা যে গন্তব্যে যেতে চাইছেন সেখানে ভয়ঙ্কর বিক্ষোভ চলছে। তাই ওই এলাকায় যাওয়া সম্ভব নয়। বেলজিয়ান পর্যটকের দাবি, মোবাইলে তাঁকে বিক্ষোভের ছবিও দেখায় ওই দুই ব্যক্তি। মহিলার অভিযোগ, এরপর ওই দুই ব্যক্তি তাঁকে ভারত ছেড়ে চলে যাওয়ার কথাও বলে। ভয় দেখিয়ে বলে, এমনটা না হলে নাকি মহিলার সব গয়না চুরি হয়ে যাবে।

এখানেই শেষ নয়। পর্যটকের দাবি, এরপর ক্রমাগত ওই দু’জন বলতে শুরু করে মহিলার ঠিক করা হোটেল রুমের বুকিংও নাকি ক্যানসেল হয়ে গিয়েছে। ওই দু’জন জোর করে বেশি ভাড়ার হোটেল গছানোর চেষ্টা করে বলেও অভিযোগ করেছেন ওই বেলজিয়ান মহিলা। শেষ পর্যন্ত ৪০ ডলার খসিয়ে একটি রুম নিতে বাধ্য হন মহিলা। কিন্তু এত টাকা দেওয়ার পরেও জানলা ছাড়া একটি ঘর জুটেছিল মহিলার কপালে। অসাবধানতায় দরজা লক হয় যাওয়ায় ঘরেই আটকে পড়েন বিদেশি পর্যটক। কোনওমতে ফোন করে খবর দেন হৃষিকেশে থাকা নিজের এক বন্ধুকে। আর বন্ধুর পরামর্শেই বুঝতে পারেন ওই অটোচালক এবং তার সঙ্গী চরম ভাবে তাঁকে ঠকিয়েছে। ইতিমধ্যেই হোটেলের কর্মীরা এসে উদ্ধার করেন মহিলাকে। আর এক মুহূর্তই অপেক্ষা করেননি মহিলা। পরের বিমানেই ফিরে যান নিজের দেশে।

দিল্লি পুলিশের ডেপুটি কমিশনার মধুর বর্মা জানিয়েছেন, ইন্টারনেটের সাহায্যে প্রতারিত হওয়া পর্যটকের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ। পাশাপাশি এই ঘটনায় একটি এফআইআর-ও দায়ের করা হয়েছে। বেলজিয়ান দূতাবাসের তরফে যে অভিযোগ জানানো হয়েছে তার ভিত্তিতে তদন্তও শুরু করেছে পুলিশ। পলাতক অটোচালক এবং তার সঙ্গী থুড়ি ওই দুই দালালের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ।

Shares

Comments are closed.