শুক্রবার, এপ্রিল ২৬

ধর্ষণের মামলায় অভিযুক্তদের বেছে বেছে খুন করছে ‘হারকিউলিস’!

দ্য ওয়াল ব্যুরো: টানটান চিত্রনাট্য। হার মানাবে যে কোনও থ্রিলার ছবিকে। মিল রয়েছে অক্ষয় কুমার অভিনীত ‘গব্বর ইজ ব্যাক’ ছবির সঙ্গেও। সমাজের দুর্নীতিগ্রস্ত মানুষদের বেছে বেছে খতম করে দেওয়াই ছিল গব্বরের একমাত্র উদ্দেশ্য।

এ বার সেলুলয়েডের গব্বরের মতোই বাস্তবের গব্বরেরও হদিশ মিললো। যদিও নিজেকে সে ‘হারকিউলিস’ বলে দাবি করে। আর কাজ হলো ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্তদের শাস্তি দেওয়া। যেমন তেমন সাজা নয়। একেবারে মৃত্যুদণ্ড। গত দু’সপ্তাহে বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে উদ্ধার হয়েছে তিনটি মৃতদেহ। তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পেরেছে মৃত তিনজনই ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্ত। পুলিশের অনুমান, সম্ভবত একই লোক এই তিনটি খুনের ঘটনা ঘটিয়েছেন।

গত ১ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশের রাজপুর উপজেলা থেকে একটি দেহ উদ্ধার করে পুলিশ। মাথায় গুলি করে খুন করা হয়েছিল যুবককে। মৃতদেহের পাশে পড়ে ছিল একটি নোট। পুলিশ জানিয়েছে, সেখানে লেখা ছিল মৃতের নাম রকিব। এবং সে নাকি এক মাদ্রাসার পড়ুয়াকে ধর্ষণ করেছে। এরপরেই ছিল হাড়হিম করা হুমকি। ওই নোটে লেখা ছিল “একজন ধর্ষকের এমন পরিণতিই হওয়া উচিত। ধর্ষকরা সাবধান হও।“ পুলিশ জানিয়েছে। কুড়ি বছরের যুবক রকিব হোসেন স্থানীয় একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়া। ভান্ডারিয়া এলাকার একটি মাদ্রাসার এক ছাত্রীকে গণধর্ষণের ঘটনায় এই রকিব অভিযুক্ত ছিল বলে জানিয়েছে পুলিশ।

পুলিশ জানিয়েছে, গত ১৪ জানুয়ারি গণধর্ষণের শিকার হয় ওই কিশোরী। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করেন কিশোরীর বাবা। পুলিশ জানিয়েছে ওই অভিযোগে নাম ছিল রকিব হোসেন এবং সজল নামে আর এক যুবকের। গত ২৪ জানুয়ারি উদ্ধার হয় সজলের গুলিবিদ্ধ দেহ। পুলিশ জানিয়েছে, রকিবের মতোই সজলের দেহের পাশেও ছিল সেই একই নোট। ছেলের মৃত্যুর ঘটনায় থানায় অভিযোগে দায়ের করেছিলেন সজলের বাবা। ওই কিশোরীর বাবার বিরুদ্ধেই সজলকে খুন করার অভিযোগও এনেছিলেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। অন্যদিকে ১৭ জানুয়ারি উদ্ধার হয়েছে আরও একটি দেহ। পুলিশ জানিয়েছে এই যুবকও গণধর্ষণ এবং খুন ঘটনায় অভিযুক্ত ছিলেন। এমনকী এই বারেও মৃতদেহের পাশ থেকে উদ্ধার করা হয়েছিল হুমকি চিঠি।

গোটা ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে সমগ্র বাংলাদেশে। পুলিশ জানিয়েছে, এ ভাবে কেউই নিজের হাতে আইন তুলে নিতে পারেন না। তিন তিনটি মৃদেহ উদ্ধারের পর আতঙ্কে ভুগছেন এলাকাবাসী। পলাতক অভিযুক্তের খোঁজে ইতিমধ্যেই তল্লাশি অভিযান শুরু করেছে পুলিশ।

Shares

Comments are closed.