সোমবার, ডিসেম্বর ৯
TheWall
TheWall

ক্যানসার আমার জীবনে আশীর্বাদ হয়ে এসেছিল, কেন বললেন মনীষা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: নেপালের রাজপরিবারের মেয়ে তিনি। বলিউডে ডেবিউয়ের পর কেবল সৌন্দর্য নয় অভিনয় দক্ষতাতেও দর্শকের মনজয় করেছিলেন তিনি। তাঁর ছিপছিপে চেহারা, মিষ্টি হাসির জাদুতে মজেছিলেন জনগণ। রোম্যান্টিক ফিল্মের নায়িকাদের সারিতে অল্পদিনের মধ্যেই নিজের জায়গা পাকা করে নিয়েছিলেন তিনি। তবে এই সবকিছুর সঙ্গে এখন আরও একটা নামে দুনিয়া তাঁকে চেনে, ‘ক্যানসার সারভাইভার’। তিনি মনীষা কৈরালা।

দীর্ঘ সময়ের চিকিৎসার পর এখন মনীষা ক্যানসার মুক্ত। জীবনের এক কঠিন লড়াইয়ে জিতেছেন তিনি। হালফিলে নিজের সোশ্যাল মিডিয়ার বিভিন্ন পোস্টে ক্যানসারের মতো মারণরোগের সঙ্গে যাঁরা প্রতিনিয়ত লড়াই করছেন তাঁদের অনুপ্রেরণা দেওয়ার চেষ্টা করেন মনীষা। রবিবারও টুইটারে দুটো ছবির কোলাজ শেয়ার করেছেন অভিনেত্রী। সেখানে দেখা গিয়েছে একটি ছবিতে হাসপাতালের বেডে শুয়ে রয়েছেন মনীষা। নাকে লাগানো রয়েছে নল। আরেকটি ছবিতে দেখা গিয়েছে বরফে মোড়া পাহাড়ের মাঝে দাঁড়িয়ে প্রকৃতিকে উপভোগ করছেন অভিনেত্রী। ছবি শেয়ার করে মনীষা লিখেছেন, “দ্বিতীয়বার জীবনকে উপভোগ করার সুযোগ পেয়েছি। আজীবন কৃতজ্ঞ থাকব। এই জীবন বড় সুন্দর। আমি সুযোগ পেয়েছি সুস্থভাবে আনন্দের সঙ্গে বেঁচে থাকার।”

View this post on Instagram

My mood 🤪 resting..

A post shared by Manisha Koirala (@m_koirala) on

ক্যানসারের সঙ্গে লড়াইয়ে জিতে জীবনের ট্র্যাকে ফেরার পর মনীষা জানিয়েছিলেন এই মারণরোগই তাঁকে নতুন জীবন দিয়েছে। সোনালি বেন্দ্রের মতো মনীষারও চিকিৎসা হয়েছিল আমেরিকাতেই। সেসময় যে অঙ্কোলজিস্টের তত্ত্বাবধানে তিনিও মানসিকভাবে ভেঙে পড়তে দেননি মনীষাকে। বরং যাতে অভিনেত্রী তাড়াতাড়ি সুস্থ হন তার সব চেষ্টাই করেছেন। মনীষার কথায়, “আমার মনে হয় আমার জীবনে ক্যানসার এসেছিল উপহার হয়ে। জীবনের প্রতি আমার ধারণাই আমূল বদলে দিয়েছে এই মারণরোগ। মিষ্টি হেসে নিজের রাগ-ইমোশন সংযত করতে শিখেছি। বুঝতে শিখেছি আমার মন ঠিক কী চায়।”

জীবনযুদ্ধে ক্যানসারকে হারিয়ে পর্দাতেও দাপিয়ে কামব্যাক করেছেন মনীষা। সঞ্জয় দত্তের বায়োপিক ‘সঞ্জু’-তে অভিনেতার মায়ের চরিত্র থেকে শুরু করে সদ্য রিলিজ হওয়া ‘প্রস্থানম’ কিংবা নেটফ্লিক্সের ওয়েব সিরিজ—সবেতেই চেনা ছন্দে দেখা গিয়েছে মনীষাকে। চিকিৎসার ভারে চেহারা হয়তো ভেঙেছে। তবে পর্দায় এখন মনীষা যেন আরও পরিণত। নেপালের মেয়ে তিনি। পাহাড়ে ঘুরে বেড়াতে ভালোবাসেন ছোট থেকেই। তাই কঠিন যুদ্ধে জেতার পর এখন পাহাড়ের কোলেই অনেকটা সময় কাটান তিনি। ভক্তদের উৎসাহ দিতে মাঝে মাঝেই শেয়ার করেন নিজের এক্সপিডিশনের নানা ছবি। প্রতি মুহূর্তে বুঝিয়ে দেন ক্যানসার তাঁকে মোটেও হারাতে পারেনি।

Comments are closed.