রবিবার, নভেম্বর ১৭

বর্ষা বিদায়ের দিনে ঝেঁপে বৃষ্টি কলকাতায়, ফের মেজাজে মৌসুমী বায়ু

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বর্ষা বিদায়ের দিনেই ঝেঁপে বৃষ্টি নামল কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গের একাধিক জেলায়। বৃষ্টির তোড়ে সাদা হয়ে গিয়েছে চারপাশ। দু’হাত দূরের জিনিস দেখতেও চোখে ধাঁধাঁ লেগে যাওয়ার অবস্থা। এ দিকে আজ সকালেই আলিপুর আবহাওয়া দফতর জানিয়েছিল যে বুধবার ১৬ অক্টোবর দেশ থেকে পাকাপাকি ভাবে বিদায় নিচ্ছে দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমী বায়ু। তবে সেই দিনই ঝেঁপে বৃষ্টি শুরু হল কলকাতায়। বৃষ্টির তেজ দেখে অনেকেই বলছেন, বিদায়বেলায় ফের মেজাজ দেখাল বর্ষা।

বুধবার সকাল থেকে আকাশ ছিল পরিষ্কার। কিন্তু দিনের প্রথমার্ধ রোদ ঝলমলে থাকলেও বেলা গড়াতেই ঘন কালো মেঘে ঢাকে আকাশ। কলকাতা এবং সংলগ্ন এলাকায় শুরু হয় তুমুল বৃষ্টি। বাদ যায়নি বিভিন্ন জেলাও। হাওয়া অফিসের পূর্বাভাস, আজ সারাদিন মেঘলা থাকবে আকাশ। বজ্রবিদ্যুৎসহ বিক্ষিপ্ত বৃষ্টির সম্ভাবন রয়েছে দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন জেলায়। বইতে পারে ঝোড়ো হাওয়াও। ইতিমধ্যেই বৃষ্টির দাপটে জল জমে গিয়েছে শহরের বেশ কিছু অংশে। নাগাড়ে এরকম তীব্র বর্ষণ হলে সন্ধের পর তীব্র যানজটের আশঙ্কা করা হচ্ছে। আজ শহরের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। 

হাওয়া অফিস জানিয়েছে, ১৪ অক্টোবর কলকাতা থেকে ১৬ অক্টোবর দেশ থেকে বর্ষা বিদায় নিলেও পূর্বদিক থেকে যে হাওয়া আসছে তাতে প্রচুর জলীয় বাষ্প রয়েছে। এরফলে স্থলভাগের উপর ছোট ছোট মেঘ তৈরি হচ্ছে, যার জেরেই এই বৃষ্টি। বুধবার দুই মেদিনীপুর সহ হাওড়া, কলকাতা, দক্ষিণ ২৪ পরগণায় হাল্কা থেকে মাঝারি বিক্ষিপ্ত বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। হাল্কা বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে উপকূলের জেলাগুলোতেও। তবে এই বৃষ্টি মৌসুমী বায়ুর জন্য নয়। আর বৃষ্টির স্থায়িত্ব এবং তীব্রতাও কম হবে।

এ বছর নির্ধারিত সময়ের তুলনায় বেশ অনেকটাই দেরিতে বঙ্গে এসেছিল বর্ষা। তাই প্রথম দিকে ঘাটতি ছিলই। তবে পরে সক্রিয় হয় মৌসুমী বায়ু। সঙ্গে দোসর নিম্নচাপ এবং ঘূর্ণাবর্ত। আবহবিদদের আশঙ্কা ছিল যে সময় বর্ষা বিদায় নেওয়ার কথা সেই সময়েই ঘাটতি পূরণ করবে মৌসুমী বায়ু। হয়েছেও ঠিক তাই। সাধারণত সেপ্টেম্বরের দ্বিতীয় ভাগ থেকেই দুর্বল হতে শুরু করে মৌসুমী অক্ষরেখা। এবং অক্টোবরের প্রথমদিকে পাকাপাকি ভাবে বিদায় নেয় বর্ষা। তবে এ বছর সেপ্টেম্বরের দ্বিতীয় ভাগ থেকেই সক্রিয় হয়েছে মৌসুমী অক্ষরেখা। বেড়েছে বৃষ্টির পরিমাণ। এমনকি অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে দুর্গা পুজোর সময়েও বৃষ্টির দাপটে ভেসেছে শহর।

মৌসম ভবনের রিপোর্ট বলছে গত ২৫ বছরে এত বৃষ্টি দেয়নি কোনও বর্ষা। ১৯৯৪ সালের পরে এতটা বর্ষার বৃষ্টি পায়নি দেশ। সাধারণত জুন থেকে সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত স্থায়িত্ব থাকে বর্ষাকালের। তবে এ বছর বৃষ্টি হয়েছে জুন থেকে অক্টোবর মাসের প্রথমার্ধ পর্যন্ত।

পড়ুন দ্য ওয়াল-এর পুজোসংখ্যার বিশেষ লেখা…

কিছু মৃত্যু হবেই, তবুও বন্ধ হবে না পর্বতারোহণ, আকর্ষণ যে দুর্নিবার

Comments are closed.