রবিবার, মার্চ ২৪

১০০ কোটির ক্লাবে শীর্ষে এখন ভাইজান, প্রথম পাঁচেই নেই বাকি দুই খান

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বক্স অফিসে জমিয়ে ব্যবসা করছে রোহিত শেট্টির ছবি ‘সিম্বা’। প্রথম তিনদিনেই এই ছবি পৌঁছে গিয়েছিল ১০০ কোটির ক্লাবে।

২০১৮ সালে রিলিজ হওয়া আরও বেশ কিছু ছবি রয়েছে যাঁদের বক্স অফিস সাফল্য আকাশ ছোঁয়া। বেশ কিছু ক্ষেত্রে ছবির এমন সাফল্যের আশা করেননি খোদ পরিচালক-প্রযোজকরাও। তবে দর্শকদের ভালোবাসাই সেই সব ছবিকে পৌঁছে দিয়েছে ১০০ কোটির ক্লাবে। এর মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য মেঘনা গুলজারের ছবি ‘রাজি’। বলিউডি মশলার বাইরে গিয়ে এই ছবি ছিল একেবারেই অন্য ঘরানার। যার ইউএসপি ছিল আলিয়া ভাট এবং ভিকি কৌশলের দুরন্ত অভিনয়। সাফল্যের দৌড়ে এগিয়ে ছিল আয়ুষ্মান খুরানার ‘বাধাই হো’ এবং ‘অন্ধাধুন’। বক্স অফিসে হিট হয়েছিল রাজকুমার রাও অভিনীত হরর-কমেডি ‘স্ত্রী’-ও।

কিন্তু মুখ থুবড়ে পড়েছিল বিগ বাজেটের তিনটি ছবি। রিলিজের আগে থেকেই দর্শকদের মধ্যে চরম উন্মাদনা ছিল আমির খান অভিনীত ‘ঠগস অফ হিন্দোস্থান’ এবং শাহরুখের ‘জিরো’ নিয়ে। তালিকায় ছিল রজনীকান্তের ‘২.০’-ও। বক্স অফিস প্রথম তিনদিনে জমিয়ে ব্যবসা করেছে তিনটি ছবিই। রজনীর ছবির বিশ্বব্যাপী ব্যবসার পরিমাণও নেহাত মন্দ নয়। তবে দর্শকদের মন জয় করতে পারেনি এই তিনটি ছবির একটিও। টিকিট কেটে হলে যাওয়ার পরে হাত কামড়েছেন বহু দর্শক।

তবে বছর শেষে ১০০ কোটির ক্লাবে শীর্ষে রয়েছেন টিনসেল টাউনের ভাইজান। সল্লু মিঞার মোট ১৩টি ছবি এখনও পর্যন্ত ১০০ কোটির ক্লাবে পৌঁছেছে। খুব বেশি পিছিয়ে নেই বি-টাউনের খিলাড়ি অক্ষয় কুমার। আক্কির ১০টি ছবি রয়েছে ১০০ কোটির ক্লাবে। অজয় দেবগণও রয়েছেন এই তালিকায়। তাঁর ঝুলিতে রয়েছে ৮টি ছবি। নায়িকাদের মধ্যে ১০০ কোটির ক্লাবে জায়গা করে নিয়েছে দীপিকা পাড়ুকোন এবং ক্যাটরিনা কাইফ। দুই নায়িকারই ৭টি করে সিনেমা রয়েছে ১০০ কোটির ক্লাবে। পরিচালকদের মধ্যে একাই বাজার কাঁপাচ্ছেন রোহিত শেট্টি। সিম্বা সহ রোহিতের মোট ৮টি ছবি রয়েছে ১০০ কোটির ক্লাবে।

ট্রেড অ্যানালিস্ট তরণ আদর্শ বছর পয়ালাতেই টুইট করে জানিয়েছেন এই পরিসংখ্যান। দেখুন সিএ টুইট।

Shares

Comments are closed.