সোমবার, সেপ্টেম্বর ১৬

ইয়টে জন্মদিন সেলিব্রেশনে সিগারেট হাতে প্রিয়াঙ্কা, নেটিজেনদের সমালোচনার মুখে দেশি গার্ল

দ্য ওয়াল ব্যুরো : মায়ামিতে নিজের ৩৭তম জন্মদিন সেলিব্রেট করছেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। সঙ্গে রয়েছেন স্বামী নিক জোনাস, মা মধু চোপড়া, তুতো বোন পরিণীতি চোপড়া ও কিছু বন্ধুবান্ধব। সেখানে সেলিব্রেশনের ছবি দিচ্ছেন ইনস্টাগ্রামে। আর এরকমই এক ছবি নিয়ে শুরু হয়েছে সমালোচনা। ছবিতে দেখা যাচ্ছে, সিগারেট খাচ্ছেন পিগি চপস। আর তাঁর এই সিগারেট খাওয়া নিয়ে নেটিজেনদের রোষের মুখে প্রিয়াঙ্কা। কেউ তো আবার অসমের বন্যা পরিস্থিতিতে সেখানকার ব্র্যান্ড অ্যাম্বেসেডর হিসেবেও প্রিয়াঙ্কার সমালোচনা করেছেন।

মায়ামিতে ইয়টে জন্মদিন সেলিব্রেশন করছেন প্রিয়াঙ্কা। সেখানেই একটা ছবিতে দেখা যায়, একসঙ্গে বসে রয়েছেন নিক, প্রিয়াঙ্কা ও তাঁর মা মধু। সেখানে নিক ও মধুর মুখে সিগার আর প্রিয়াঙ্কার মুখে সিগারেট। আর এই সিগারেট নিয়েই সোশ্যাল মিডিয়ায় শুরু হয় কটাক্ষ। গত বছর দিওয়ালির সময় একটি পোস্ট করেছিলেন প্রিয়াঙ্কা। সেখানে তিনি দিওয়ালিতে সবাইকে বেশি বাজি না পোড়াতে বলেছিলেন। তাঁর বক্তব্য ছিল, তাঁর নিজের হাঁপানি রয়েছে। বেশ বাজি পোড়ালে দূষণ বাড়ে। ফলে পরিবেশ তো বটেই, যাঁদের হাঁপানি রয়েছে তাঁদেরও কষ্ট হয়।

এ দিন প্রিয়াঙ্কার হাতে সিগারেট দেখে কেউ লিখেছেন, ‘আপনার তো হাঁপানি ছিল। তার মধ্যেই সিগারেট খাচ্ছেন। বেশ তো।’ কেউ লিখেছেন, ‘না না দিওয়ালির বাজির ধোঁয়ায় হাঁপানি বাড়ে, সিগারেট খেলে নয়।’ কেউ আবার বলেছেন, ‘সিগারেট খাচ্ছেন খান। কিন্তু তা বলে হাঁপানি ও দূষণ নিয়ে এত জ্ঞান দিতে কে বলেছিল।’ অনেকে আবার রসিকতা করে বলেছেন, ‘না না সিগারেটটা নিশ্চয় পতঞ্জলির ছিল। তাই ওটা খেলে হাঁপানির কোনও সমস্যা হয় না।’

এর মধ্যেই অসমের বন্যা পরিস্থিতিতে প্রিয়াঙ্কার জন্মদিন সেলিব্রেট করা নিয়েও কটাক্ষ করেছেন অনেকে। একজন লিখেছেন, ‘যেখানে বিধ্বংসী বন্যায় অসমে এত লোক মারা যাচ্ছে, তখন আপনি অসমের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হয়ে মজা করে ছুটি কাটাচ্ছেন। আসতে না পারুন, একবার তো জিজ্ঞেস করতে পারতেন, সেখানে সবাই কেমন আছে।’ কেউ বলেছেন, ‘যখনই নাম কেনার দরকার হবে, তখনই অন্য কোনও দেশে গরিব মানুষের কাছে গিয়ে এঁরা হাজির হবেন। অথচ নিজেদের দেশের দিকে খেয়াল নেই।’

তবে এর মধ্যে অনেকে প্রিয়াঙ্কার পাশেও দাঁড়িয়েছেন। তাঁদের বক্তব্য, ‘সিগারেট খাওয়া অপরাধ নয়। পাশেই তো নিক জোনাস সিগার খাচ্ছেন। সেটা নিয়ে কেউ বলছে না। হতেই পারে, হয়তো প্রিয়াঙ্কা কারও কাছ থেকে সিগারেট নিয়ে ছবির জন্য পোজ দিয়েছেন। হতে পারে ওটা হার্বাল সিগারেট। আবার হতেই পারে উনি সিগারেট খাচ্ছেন। তাতে কী এসে গেল। গোটা পৃথিবী জুড়ে এত দূষণের কারণ তো আর তিনজনের সিগারেট খাওয়া নয়। আজ উনি যেখানে পৌঁছেছেন, সেটা নিজের ট্যালেন্টে। তাই সবাইকে সমালোচনা করা বন্ধ করুন। নিজেদের দেখুন।’

Comments are closed.