মঙ্গলবার, মার্চ ১৯

আদরের ডুগ্গুর জন্মদিন, নাকে নল নিয়েও হাসিমুখে সেলিব্রেশনে হাজির রাকেশ

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ‘থ্রোট ক্যানসার’-এ আক্রান্ত হয়েছেন পরিচালক রাকেশ রোশন। ইতিমধ্যেই হয়ে গিয়েছে অস্ত্রোপচারও। অপারেশনের পরেই হৃতিক জানিয়েছিলেন সফল হয়েছে অস্ত্রোপচার। রাকেশ রোশন নিজেও জানিয়েছিলেন, সুস্থ রয়েছেন তিনি। বলেছিলেন, “ঈশ্বরকে অশেষ ধন্যবাদ। খুব তাড়াতাড়ি বাড়ি ফিরবো।”

কথা দিয়েছিলেন জলদিই বাড়ি ফিরবেন। সেই কথা রাখলেনও রাকেশ। ছেলের ৪৫তম জন্মদিনের পার্টিতেই হাসিমুখে দেখা গেল তাঁকে। ১০ জানুয়ারি ছিল হৃতিক রোশনের জন্মদিন। ছেলের জন্মদিন বলে কথা। বাবা থাকবেন না তাই কখনও হয়? তাই হাসপাতাল থেকে ছুটি নিয়ে রাকেশ রোশন হাজির হয়েছিলেন হৃতিকের বার্থ ডে পার্টিতে। কিন্তু মুখ দেখে বোঝাই যাচ্ছিল শরীরে রয়েছে ক্লান্তি। অপারেশনের ধকল সামলাতে যে বেশ কদিন সময় লাগবে তাও অনুমান করাই যায়। তবে নাকে নল লাগানো অবস্থাতেও একগাল হাসি নিয়েই এ দিনের পার্টিতে হাজির ছিলেন রাকেশ রোশন। সবার সঙ্গে জমিয়ে সেলিব্রেট করেছেন তাঁর আদরের ডুগ্গুর জন্মদিন। এ দিন ছেলের সঙ্গে কেকও কেটেছেন রাকেশ রোশন।

ঘরোয়া এই অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন রোশন পরিবারের আরও অনেকেই। ছিলেন রাকেশের ভাই সঙ্গীত পরিচালক রাজেশ রোশনও। সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজের জন্মদিনের এই জমাটি সেলিব্রেশনের ছবি শেয়ার করেছেন হৃতিক। লিখেছেন, “ভালোবাসার শক্তিতেই বাবা সুস্থ রয়েছেন। সকলকে ধন্যবাদ যাঁরা এই সময়ে বাবার পাশে ছিলেন। আজ একটা দারুণ দিন।” 

চলতি সপ্তাহের শুরুতেই প্রকাশ্যে আসে রাকেশ রোশনের অসুস্থতার খবর। হৃতিকই প্রথম জানান বাবার অসুস্থতার কথা। অপারেশনের দিন সকালেই সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে অভিনেতা লেখেন, “কয়েক সপ্তাহ আগেই বাবার গলায় স্কোয়ামাস সেল কার্সিনোমা (ফার্স্ট স্টেজ) ধরা পড়েছে। কিন্তু এই খবর শোনার পরেও একটুও ভেঙে পড়েননি বাবা। স্পিরিট হারাননি। বরং ওঁর কনফিডেন্স দেখে বোঝাই যাচ্ছে, যুদ্ধের জন্য উনি প্রস্তুত।” এমনকী অপারেশনের দিন সকালেও ছেলের সঙ্গে জিমে গিয়েছিলেন রাকেশ রোশন। হৃতিক বলেন, “জানতাম আজও বাবা জিমে যাবেনই। তাই সকালেই বলেছিলাম ছবি তোলার কথা।” পাশাপাশি হৃতিক জানান, তাঁর চোখে দেখা সবচেয়ে স্ট্রং মানুষ রাকেশ রোশন। তিনি বলেন, “পরিবারে এমন এক জন লিডারকে পেয়ে আমরা ভাগ্যবান।”

The Wall-এর ফেসবুক পেজ লাইক করতে ক্লিক করুন 

Shares

Comments are closed.