মঙ্গলবার, মার্চ ১৯

বিতর্কিত মন্তব্যের জের, হটস্টার থেকেও বাদ পড়ল ‘রাহুল-হার্দিকের’ এপিসোড

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কয়েকদিন ধরেই সরগরম সোশ্যাল মিডিয়া। সৌজন্যে ভারতীয় ক্রিকেট টিমের দুই তরুণ সদস্য। হার্দিক পাণ্ড্য এবং কে এল রাহুল। করণ জোহরের জনপ্রিয় টক শো ‘কফি উইথ করণ’-এর সিজন সিক্সের ১২তম এপিসোডে হাজির হয়েছিলেন এই দুই ক্রিকেট তারকা। আর সেখানে গিয়ে র‍্যাপিড ফায়ার রাউন্ডে বেফাঁস মন্তব্য করেন হার্দিক এবং রাহুল। এ বার সেই বিতর্কিত এপিসোডই তুলে নেওয়া হলো ‘হটস্টার’ অ্যাপ থেকে।

ঠিক কী হয়েছিল করণের কফির আড্ডায়?

অস্ট্রেলিয়া সফরের আগেই ‘কফি উইথ করণ’-শোয়ে গিয়েছিলেন হার্দিক পাণ্ড্য এবং কে এল রাহুল। সঞ্চালক করণ জিজ্ঞাসা করেন, একই মেসেজ কপি পেস্ট করে বিভিন্ন মহিলাকে কে পাঠান। রাহুল আঙুল দেখান হার্দিকের দিকে। হার্দিক মেনেও নেন এই কথা। এবং বলেন, তিনি নাকি একসঙ্গে অনেক মেয়ের ব্যাপারেই একই রকম ‘ফিল’ করেন। আর তাই এমনটা করে থাকেন। এর পাশাপাশি হার্দিক জানান, একবার একটি পার্টিতে গিয়ে এক মহিলাকে দেখিয়ে তিনি তাঁর মা-বাবাকে জানিয়েছিলেন, এই মহিলার সঙ্গেই প্রথমবার শারীরিক সম্পর্ক হয়েছিল তাঁর। হার্দিক বলেন, মায়ের সঙ্গে তিনি নাকি খুবই ফ্র্যাঙ্ক। বান্ধবীদের ব্যাপারে মায়ের সঙ্গে খোলামেলা ভাবেই আলোচনা করেন তিনি।

এ দিকে হার্দিক নাকি কোনও পার্টিতে গিয়েই নিজে থেকে মেয়েদের নাম জিজ্ঞাসা করেন না। এমন আচরণের কারণ জানতে চাওয়ায় সঞ্চালককে হার্দিক বলেন, “আমি প্রথমে দেখি মেয়েটি কতটা আগ্রহী। আমি একটু কালো তো। তাই মেয়েদের তরফ থেকে কীরকম আগ্রহ আসছে সেটাই আগে দেখি।”

টেলিভিশনে এই এপিসোড সম্প্রচারের পরেই শুরু হয় গণ্ডগোল। রাহুল ও পান্ডিয়া মহিলা বিরোধী ও লিঙ্গবৈষম্যমূলক মন্তব্য করেছেন বলে সোশ্যাল মিডিয়ায় সমালোচনার ঝড় বয়ে যায়। পরিস্থিতি বেগতিক দেখে ক্ষমাও চেয়ে নেন হার্দিক। টুইট করে তিনি লেখেন, “আমি ওই শোয়ের ফরম্যাটে একটু ভেসে গেছিলাম। কাউকে আঘাত দিয়ে আমি কিছু বলতে চাইনি। তাও আমার কথায় কারও যদি খারাপ লেগে থাকে, আমি ক্ষমা চাইছি।”

কিন্তু ক্ষমা চাওয়ার পরেও পরিস্থিতি ঠান্ডা হয়নি। বুধবার ৯ জানুয়ারি দুই ক্রিকেটারকেই শো-কজ নোটিস পাঠায় বিসিসিআই। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তাঁদের জবাব দিতেও বলা হয়। তবে ২৪ নয় ১২ ঘণ্টার মধ্যেই বিসিসিআই-কে মেল করে শো-কজের জবাব দেন হার্দিক পাণ্ড্য। বলেন, “আমি একটা চ্যাট শোয়ে অংশ নিয়েছিলাম। আমি বুঝতে পারিনি যে ওই শোতে আমার করা কিছু মন্তব্য দর্শকদের জন্য অপমানজনক ও কুরুচিকর বলে মনে হবে। এই কথার জন্য আমি ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি।” তিনি আরও বলেন, “আমি সবাইকে নিশ্চিত করে জানাতে চাই, এই মন্তব্যের পিছনে আমার কোনও অসৎ উদ্দেশ্য ছিল না এবং আমি কাউকে বা সমাজের কোনও একটি অংশকে খারাপ বোঝাতে চাইনি। এই শোয়ের ফরম্যাটের মধ্যে ভেসে গিয়ে আমার মুখ থেকে ওই কথা বেরিয়েছে। কিন্তু আমি মানি, যে কথা বলার সময় আমার আরও সতর্ক হওয়া উচিত ছিল।” বোর্ডের ব্যাপারে পান্ডিয়া লেখেন, “আমি বিসিসিআইকে সবথেকে উপরে রাখি, এবং বলতে চাই এই ধরণের ঘটনা আর কোনও দিন হবে না।”

কিন্তু শো-কজের জবাব দিলেও মন গলেনি বিসিসিআই কর্তাদের। আশঙ্কা ছিলই। এ বার তা সত্যিও হলো। অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে প্রথম একদিনের ম্যাচ থেকে বাদ পড়লেন হার্দিক পান্ড্য ও লোকেশ রাহুল। তাঁদের ছাড়াই ঘোষণা করা হবে ভারতের প্রথম একাদশ।

Shares

Comments are closed.