ফের বিতর্কে ‘কেদারনাথ’, ছবির মুখ্য চরিত্র কেন মুসলিম? প্রশ্ন তুললেন বর্ষীয়ান বিজেপি নেতা

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ব্যান করতে হবে অভিষেক কাপুরের ছবি ‘কেদারনাথ’। টিজার মুক্তির পরেই এই হুমকি দিয়েছিলেন কেদারের পুরোহিতরা। এ বার আসরে নামল বিজেপি।

বিজেপির এক বর্ষীয়ান নেতা শনিবার দাবি করেছেন, নিষিদ্ধ করতে হবে ‘কেদারনাথ’। এই নিয়ে সেন্ট্রাল বোর্ড অফ ফিল্ম সার্টিফিকেশন (CBFC)-কে চিঠিও দিয়েছেন বিজেপি নেতা অজেন্দ্র অজয়। প্রসঙ্গত, এই বিজেপি নেতা আবার রাজ্য বিজেপি’র মিডিয়া রিলেশন টিমের সদস্য। ওই চিঠিতে সিবিএফসি-র প্রধান প্রসূন যোশীকে তিনি লিখেছেন, পরিচালক ছবিতে কেদারে ঘটে যাওয়া প্রাকৃতিক দুর্যোগের ভয়াবহতা এবং মানুষের সমস্যা নিয়ে কিছুই দেখাননি। বরং তাঁর অভিযোগ, ছবিতে হিন্দুদের ভাবাবেগ নিয়ে মজা করেছেন পরিচালক অভিষেক কাপুর। তোল্লাই দিয়েছেন ‘লাভ জিহাদ’-এর মতো বিষয়কে।

টিজারে দেখা গিয়েছে নায়ক-নায়িকার চুম্বনের দৃশ্য। সঙ্গে ট্যাগলাইন ‘লাভ ইজ পিলগ্রিমেজ’ অর্থাৎ ‘ভালোবাসাই তীর্থযাত্রা’। আর এই নিয়েই বেজায় চটেছেন অজেন্দ্র অজয়। তাঁর বক্তব্য প্রকৃতির চরম রোষের শিকার যে এলাকা, সেই প্রেক্ষাপটে এ ধরণের রোম্যান্টিক প্রেমের গল্প দেখানো কখনই যুক্তিযুক্ত নয়। কেদারনাথের মন্দিরের সামনে এ ভাবে চুম্বনের দৃশ্য দেখানোর অর্থ কোটি কোটি হিন্দুদের আধ্যাত্মিক বিশ্বাস নিয়ে খেলা করা।

‘কেদারনাথ’ ছবির প্রেক্ষাপট ২০১৩ সালে কেদারে ঘটে যাওয়া ভয়াবহ দুর্যোগ। আর প্রকৃতির এমন প্রকোপের মধ‍্যেও যে প্রেম তার নিজের খেয়ালে চলতে পারে সিনেমায় সেটাই দেখাতে চেয়েছেন পরিচালক। এক মুসলিম যুবক মনসুরের চরিত্রে অভিনয় করেছেন সুশান্ত সিং রাজপুত। আর হিন্দু তরুণী মুক্কুর চরিত্রে রয়েছেন সারা আলি খান। আর ঠিক এইখানেই সমস্যা হয়েছে কট্টরপন্থীদের। তাঁদের অভিযোগ নিজের সিনেমায় লাভ জিহাদের বিষয়কে প্রাধান‍্য দিয়েছেন পরিচালক। প্রসঙ্গত, লাভ জিহাদের মাধ‍্যমে মুসলিম পুরুষরা হিন্দু মেয়েদের ধর্মান্তর করার চেষ্টা করেন। ‘কেদারনাথ’ ছবির টিজারে মুসলিম ছেলে এবং হিন্দু মেয়ের প্রেম দেখানো হয়েছে। আর তার ফলেই তৈরি হয়েছে বিতর্ক। ছবির মুখ্য চরিত্র কেন হিন্দু  নয়, তা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন বিজেপি নেতা অজেন্দ্র অজয়।

বারবার মুখে পড়ছে ক্যামেরার ফ্ল্যাশ, ক্ষেপে গেলেন সঞ্জুবাবা, প্রকাশ্যেই পাপারাৎজিকে দিলেন গালাগাল!

তবে এটাই প্রথম নয়। এর আগে চারধামের পুরোহিতদের পাশাপাশি ‘কেদারনাথ’ ব্যান করার দাবি তুলেছিলেন কেদার সভার চেয়ারম্যান বিনোদ শুক্লাও। তাঁর অভিযোগ, ছবিতে একটি নাচের দৃশ্যের শ্যুটিং হয়েছে মন্দিরের সামনে যা যথেষ্টই অশালীন। বিনোদ জানিয়েছেন, এ ছবি মুক্তি পেলে হিন্দুদের ভাবাবেগে আঘাত লাগতে পারে। তাই ব্যান করতে হবে এই ছবি। ছবি নিষিদ্ধ করা না হলে বড় আন্দোলন হবে বলে কার্যত হুমকিও দেন বিনোদ শুক্লা। এ ছাড়াও বিনোদ বলেন, পোস্টারে দেখা গিয়েছে সারাকে কাঁধে করে বয়ে নিয়ে যাচ্ছেন এক পিঠ্‌ঠুর (যারা কেদার যাত্রায় তীর্থযাত্রীদের পিঠে বয়ে নিয়ে যান) চরিত্রে অভিনয় করা সুশান্ত। শুক্লার দাবি এটা অন্যায়। কারণ কেদার যাত্রায় যতো পিঠ্‌ঠু রয়েছেন তাঁরা কেউই মুসলিম নন। আর ছবিতে সুশান্তের চরিত্রের নাম মনসুর। এ দিকে সারা আলি খান আবার ছবির পোস্টার শেয়ার করতে গিয়ে ক্যাপশন দিয়েছেন, “কোনও ট্র্যাজেডি, প্রকৃতির রোষ, এমনকী স্বয়ং ঈশ্বরও প্রেমের শক্তিকে দমন করতে পারেন না।“ এতেও আপত্তি জানিয়েছেন, কেদার সভার চেয়ারম্যান এবং মন্দিরের পুরোহিতরা।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More