৩০ কিলোমিটার পাড়ি দেবে মাত্র ৭ মিনিটে, ৬০০ কিমি/ঘণ্টা বেগে চিনের ম্যাগলেভ ট্রেন তাক লাগাবে বিশ্বকে

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

    দ্য ওয়াল ব্যুরো: ম্যাগনেটিভ লেভিটেশন ম্যাগলেভ ট্রেনের জন্য বিশ্বে পরিচিত চিন। সুপারফাস্ট বুলেটকেও গতিতে, রূপে, চাকচিক্যে হার মানায় এই ট্রেন। ঠিক যেন হাওয়ার মতো গতি। পলক ফেলতেই পৌঁছবে গন্তব্যে। এই ম্যাগলেভ ট্রেনকেই আরও ঘষেমেজে উন্নততর করে তুলল চিন। ৬০০ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা বেগে এখন এই ট্রেন ছুটবে সাংঘাই পুডোং আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে লঙইয়াং রোড স্টেশন অবধি।

    বিশ্বের সবচেয়ে দ্রুততম ম্যাগলেভ ট্রেনের তকমা আগেই পেয়েছে চিন। বিশেষত গতির জন্য বিখ্যাত সাংঘাই ম্যাগলেভ। নীল রঙা ছুঁচলো মুখে ছাই রঙা শরীর নিয়ে, সেই ২০০৩ সাল থেকে ছুটে চলেছে ম্যাগলেভ। পুড়োং থেকে সাংঘাই সিটি সেন্টার অবধি ৩০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দেয় ম্যাগলেভ। বর্তমানে এই ম্যাগলেভেরই গতি আরও বাড়িয়ে দিয়েছে চিন। সাধারণত ৪৩১ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা বেগে ছুটবে এই ট্রেন। সর্বোচ্চ গতি হবে ৬০০ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা।

    ব্রিটেনের বিরমিংঘাম ম্যাগলেভ ও জার্মানির এম-বাহনের মতোই চিনের ম্যাগলেভ। যাত্রা শুরুর পরে রাজনৈতিক, প্রযুক্তিগত নানা কারণে ২০০৪-২০০৬ সাল পর্যন্ত কয়েক কোটি টাকা ক্ষতিতে চলেছিল ম্যাগলেভ। সেই সমস্যা কাটিয়ে উঠে ম্যাগলেভকে আরও ঝাঁ চকচকে করে তুলেছে সাংঘাই ম্যাগলেভ ট্রান্সপোর্টেশন ডেভেলপমেন্ট লিমিটেড। জানা গেছে, ৩০ কিলোমিটার পথ এখন ম্যাগলেভ পাড়ি দেবে ৭ মিনিট ২০ সেকেন্ডে। লেট করলেও সেটা হবে ৫০ সেকেন্ডের মতো। তার বেশি একেবারেই নয়।

    বর্তমানে বেজিং-সাংহাই রেল লাইনে বুলেট ট্রেনের সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৩৫০ কিলোমিটার। ১৩০০ কিলোমিটার মোট পথ এই ট্রেন পাড়ি দেয় চার ঘণ্টার কিছু বেশি সময়ে। তা ছাড়া,  চিনের হেনান প্রদেশের ঝেঙঝৌ থেকে পূর্ব চিনের জিয়াংশু প্রদেশের শুঝৌ পর্যন্ত ঘণ্টায় ৩৮০ কিলোমিটার বেগে চলে হাই স্পিড ট্রেন।  দেশের দীর্ঘ ১৬ হাজার কিলোমিটার রেলপথ হাই স্পিড ট্রেন দিয়ে জুড়ে ফেলে গোটা বিশ্বকে ইতিমধ্যেই তাক লাগিয়ে দিয়েছে বেজিং।

    জাপানের এসসি ম্যাগলেভ

    সিআরআরসি কুইংডাও-এর চিফ ইঞ্জিনিয়ার ডিং সানসানের কথায়, বেজিং থেকে সাংঘাই বিমানপথে লাগে সাড়ে চার ঘণ্টা, হাই স্পিড ট্রেনে পাঁচ ঘণ্টার আশপাশে আর ম্যাগলেভে মাত্র তিন ঘণ্টায়।

    দ্রুতগতির ম্যাগলেভ টেকনোলজি নিয়ে শুধু চিন নয়, নজির গড়েছে জাপানও। বস্তুত, জাপানই এই প্রযুক্তির অন্যতম পথ প্রদর্শক। ২০১৫ সালে ৬০৩ কিমি/ঘণ্টা বেগে এসসি ম্যাগলেভ ছুটিয়ে বিশ্বে রেকর্ড করেছিল জাপান। টোকিও থেকে নাগোয়া পর্যন্ত ফের ম্যাগলেভ লাইন তৈরি করছে তারা। এই ম্যাগলেভও হবে রূপে-গুণে অনন্য। তবে সেটি চালু হবে ২০২৭ সালে।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More