শনিবার, জুলাই ২০

বিতর্কিত টুইটের জের, যোগীর মানহানির অভিযোগে ফের গ্রেফতার টিভি চ্যানেলের সম্পাদক

 দ্য ওয়াল ব্যুরো: সুপ্রিম কোর্টের রায়ের পরেও গ্রেফতার হলেন সাংবাদিক। ফের সেই নয়ডাতেই। নেশান লাইভ চ্যানেলের সম্পাদক অনশুল কৌশিককে সোমবার রাতে গ্রেফতার করে পুলিশ। এর আগে গ্রেফতার হয়েছিলেন এই চ্যানেলেরই প্রধান ইশিকা সিং এবং আরও এক সম্পাদক অনুজ শুক্ল। মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের মানহানির ঘটনায় এখনও পর্যন্ত মোট পাঁচ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তার মধ্যে রয়েছেন নেশান লাইভ চ্যানেলের তিন সাংবাদিক।

মঙ্গলবার অনশুলকে জেলা আদালতে তোলা হলে বিচারক তাঁকে ১৪ দিনের বিচার বিভাগীয় হেফাজতে পাঠান। একই অভিযোগে ওই চ্যানেলের হেড ইশিকা সিংকেও বিচার বিভাগীয় হেফাজতে পাঠানো হয়।

গত ৬ জুন চ্যানেলের এক অনুষ্ঠানে এক মহিলা উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের বিরুদ্ধে আপত্তিজনক মন্তব্য করেন। যোগীর প্রেমিকা বলে নিজেকে দাবি করেন। নেশান টিভি চ্যানেলে সম্প্রচারিত সেই সাক্ষাত্‍‌কার পরে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায়। যাঁরা নিজেদের সোশ্যাল মিডিয়া প্রোফাইলে এই ভিডিও পোস্ট করেন তাঁদের পাকড়াও করা শুরু করে পুলিশ।

নেশন লাইভের প্রধান ইশিকা সিং ও এক সম্পাদক অনুজ শুক্ল

নিজের প্রোফাইলে এই ভিডিও পোস্ট করে গ্রেফতার হন দিল্লির সাংবাদিক প্রশান্ত কানোজিয়া। তাঁর নামে অভিযোগ ওঠে, মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের ভাবমূর্তি কলঙ্কিত করার চেষ্টা চালিয়েছেন প্রশান্ত। শনিবার উত্তরপ্রদেশের পুলিশ তাঁকে নিজের বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে। এই গ্রেফতারিকে বেআইনি বলে দাবি করে সুপ্রিম কোর্টে আর্জি জানান তাঁর স্ত্রী।  মঙ্গলবার তার শুনানি হয়। সেই শুনানিতে প্রশান্তকে মুক্তি দেওয়ার নির্দেশ দেয় বিচারপতি ইন্দিরা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বেঞ্চ।

প্ররশান্তর টুইটের সূত্র ধরেই খোঁজ শুরু হয়। নাম জড়ায় নেশান লাইভ টিভি চ্যানেলের। জানা যায়, এই চ্যানেলের মারফৎই ওই ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে নেট দুনিয়ায়।

পুলিশ জানিয়েছে, জেলাশাসকের নির্দেশে ওই টিভি চ্যানেল বন্ধ করে দেওয়া হতে পারে। চ্যানেলের সম্পাদক অনশুল কৌশিকের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ১৫৩, ৫০১, ৫০৫ (১) এবং ৫০৫ (২)ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। অন্যদিকে, বেআইনি এবং আপত্তিকর খবর তৈরির অভিযোগে চ্যানেলের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪২০, ৪৬৭ ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

 

Comments are closed.