শনিবার, সেপ্টেম্বর ২১

‘জিহাদের যুবরাজ’ ওসামা-পুত্র হামজ়া বিন লাদেন নিহতই, নিশ্চিত করল আমেরিকা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: নিহতই হয়েছে লাদেন-পুত্র হামজ়া। এতদিনে নিশ্চিত করল আমেরিকা।

লাদেন পুত্রের মাথার দাম এক সময় ১০ লক্ষ ডলার ঘোষণা করেছিল আমেরিকা। ওসামা বিন লাদেনের পরে বয়স্ক নেতাদের প্রভাব ফিকে হতে থাকায় তরুণ মুখ হামজ়াই হয়ে উঠেছিল আল কায়দার নতুন মুখ। সন্ত্রাসের এক নতুন নাম। ওসামা-পুত্র সেই হামজ়া বিন লাদেনের মৃত্যু সংবাদ নিয়ে গত বছর থেকেই টালবাহানা করছে আমেরিকা। কখনও দাবি করা হয়েছে প্রকাশ্যে দেখা গেছে হামজ়াকে, আবার কখনও মার্কিন গোয়েন্দারা খবর দিয়েছেন, নিহত হয়েছে ওসামা-পুত্র। গত বুধবার সাংবাদিক বৈঠক করে আমেরিকার প্রতিরক্ষা সচিব মার্ক এসপার বলেছেন, “আমার কাছে বিস্তারিত তথ্য নেই, তবে এটা নিশ্চিত হামজ়া বিন লাদেন হত।” তবে কী ভাবে বা কোথায় হামজ়ার মৃত্যু হয়েছে সে ব্যাপারে মুখ খোলেননি তিনি।

১৯৮৯ সালে সৌদি আরবের জেড্ডায় জন্ম হামজ়ার। ওসামার তৃতীয় স্ত্রীর সন্তান হামজ়া। পাকিস্তানের অ্যাবটাবাদে মার্কিন নেভি সিলের হাতে ওসামা এবং তার আর এক ছেলে নিহত হওয়ার পর আল কায়দার নেতা নির্বাচিত হন আয়মান আল জাওয়াহিরি। ২০১৫ সালে এই জাওয়াহিরিই এক অডিয়ো বার্তায় ঘোষণা করেছিলেন, আল কায়দার ‘অন্যতম প্রধান নেতা’ হিসেবে নির্বাচন করা হয়েছে হামজ়াকেই। হামজ়ার বয়স তখন ২৬ বছর। তাকে  ‘জিহাদের যুবরাজ’ বলে ঘোষণা করে আল কায়দা।

২০১৫ সাল থেকে ২০১৮ পর্যন্ত নানা একাধিক অডিয়ো বার্তায় শোনা গিয়েছিল, সিরিয়ায় জঙ্গিদের জোট বাঁধার কথা বলছে হা‌মজ়া। তরুণদের ওসামার আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং অন্য পশ্চিমী দেশগুলির রাজধানীতে হামলা চালানোর বার্তা দিত হামজ়া।  পাশাপাশি আল কায়দার আরব উপদ্বীপ শাখার সঙ্গে হাত মিলিয়ে সৌদি আরবের বিরুদ্ধে লড়তে সৌদি জনজাতিগুলিকে একজোট হতেও বলেছিল সে।

গত বছরের মাঝামাঝি শোনা গিয়েছিল, হামজ়ার নাগরিকত্ব বাতিল করেছে সৌদি আরব। তার পরেই সৌদি আরবকে হুমকি দিয়ে ভিডিয়ো সামনে এনেছিল ওসামা-পুত্র। এর পর থেকে তার আর কোনও খোঁজ মেলেনি। মার্কিন গোয়েন্দা বাহিনী এফবিআই-এর ধারণা ছিল, পাকিস্তান, আফগানিস্তান, সিরিয়া ও ইরানেই ঘোরাফেরা করত হামজ়া। পরে জানা যায় হামজ়া নিহত হয়েছে।

Comments are closed.