বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ১৪

অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর পেটে লাথি! অভিযোগ বিজেপি নেতার বিরুদ্ধে, ফের উত্তপ্ত ন্যাজাট

দ্য ওয়াল ব্যুরো: জমিতে বেড়া দেওয়া দেওয়া নিয়ে গন্ডগোলের জেরে শুরু হয় বচসা, তা থেকে হাতাহাতি। শেষমেশ রাজনৈতিক বিবাদের চেহারা নেয় স্থানীয় ঝামেলা। এই অবস্থায় দু’পক্ষের ঝামেলার মাঝে পড়ে পেটে লাথি খেলেন এক অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূ। অভিযোগ, বসিরহাট মহকুমার সন্দেশখালির ন্যাজাট থানার রাজবাড়ি এলাকায় বিজেপি নেতা নারায়ণ পাইকের হামলায় এই অবস্থা হয়েছে ছ’মাসের অন্তঃসত্ত্বা ওই বধূর। স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি তিনি।

স্থানীয় সূত্রের খবর, গোপাল মণ্ডল এবং আনন্দ মণ্ডল ওই এলাকার সক্রিয় তৃণমূলকর্মী। শনিবার সকাল আটটা নাগাদ বাড়িতে গোয়াল ঘরের বেড়া সংস্কার করছিলেন তাঁরা। সেই সময়েই এলাকার বিজেপি নেতা নারায়ণ পাইকের নেতৃত্বে সুশান্ত পাইক ও জয়ন্ত পাইক এসে মণ্ডল পরিবারের সদস্যদের কাজে বাধা দেয় বলে অভিযোগ।

এর প্রতিবাদ করতেই তৃণমূল কর্মী গোপাল মণ্ডল ও তার ভাই আনন্দ মণ্ডলকে বিজেপি নেতার সঙ্গে থাকা দলবল বেধড়ক মারধর করে বলে অভিযোগ। এই সময়ে গোপালের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী ইলা মণ্ডল ঝামেলা থামাতে এলে, তাঁকে ধাক্কা দেওয়া হয় বলে অভিযোগ।

কিন্তু শনিবার সকালে সে দিনের মতো ঝামেলা মিটে গেলেও, রবিবার সকালে ফের শুরু হয় গন্ডগোল। এ দিন মণ্ডল বাড়ির গৃহবধূ, গোপাল মণ্ডলের স্ত্রী ইলা ও তাঁর শাশুড়ি ফের জমির বেড়া ঠিক করতে গেলে, বিজেপি নেতা নারায়ণ পাইকের নেতৃত্বে একটি দল এসে আবার হামলা করে বলে জানা গিয়েছে।

ইলার অভিযোগ, হামলাকারীরা তাঁর শাশুড়ি-মাকে দূরে সরিয়ে ফেলে দেয় ধাক্কা দিয়ে। এই সময়েই ওই অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর পেটে লাথি মেরে, গলা টিপে ধরে এলোপাথাড়ি মারধর করা হয় বলেদাবি তাঁর। এই সময়ে বাড়িতে স্বামী গোপাল ও আনন্দ ছিলেন না, বাজার করতে গিয়েছিলেন বলে জানা গিয়েছে।

সেই সুযোগেই বিজেপি নেতা নারায়ণ হামলা চালায় বলে দাবি মণ্ডল পরিবারের। অভিযোগ পেয়ে তদন্তে নামে ন্যাজাট থানার পুলিশ। ইলার শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাঁকে কলকাতায় চিত্তরঞ্জন হাসপাতালে পাঠানো হয়।

এই ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকায়। অভিযুক্তদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়ার দাবি করেছে মণ্ডল পরিবার। অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে মারধরের ঘটনায় প্রতিবাদ করছে গোটা পাড়া।

কিছু দিন আগেই ন্যাজাট জ্বলছিল অশান্তির আঁচে। পরিস্থিতি একটু স্বাভাবিক হতে না হতেই ফের ভয় ও আতঙ্কের পরিবেশ তৈরি করা হচ্ছে বলে স্থানীয় মানুষদের অভিযোগ।

Comments are closed.