বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ১৪

স্বাভাবিক হচ্ছে উপত্যকা, জম্মু-কাশ্মীরের পাঁচ জেলায় চালু টুজি ইন্টারনেট পরিষেবা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হচ্ছে জম্মু ও কাশ্মীরের পরিস্থিতি। সংবাদ সংস্থা এএনআই জানাচ্ছে, শনিবার সকাল থেকে পাঁচ জেলায় চালু হয়েছে টুজি ইন্টারনেট পরিষেবা। জম্মু, রেয়াসি, সাম্বা, কাঠুয়া, এবং উধমপুর- এই পাঁচ জেলায় প্রাথমিক পরিষেবা চালু হয়েছে।

শুক্রবারই স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল, সোমবার থেকে খুলবে স্কুল এবং সরকারি দফতর। জম্মু ও কাশ্মীরের মুখ্য সচিব বিভিআর সুব্রহ্মণ্যম জানিয়েছেন, ধাপে ধাপে বাকি জেলাতেও চালু হবে ইন্টারনেট পরিষেবা।

৩৭০ ধারা বিলোপের দিন তিনেক আগে থেকেই কাশ্মীরে ইন্টারনেট এবং ফোন পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়া হয়। জম্মুতে কিছু জায়গায় সাময়িক পরিষেবা চালু হলেও তা মোটেই সার্বিক ছিল না। কাশ্মীর টাইমস-এর সম্পাদক অনুরাধা ভাসিন দাবি জানিয়েছেন, দ্রুত যোগাযোগ ব্যবস্থা স্বাভাবিক করা হোক। সেই সঙ্গে তিনি এ-ও দাবি জানিয়েছেন, উপত্যকার বেশ কিছু জায়গায় সংবাদমাধ্যমের প্রতিনিধিরা স্বাধীন ভাবে কাজ করতে পারছে না। তা করতে দেওয়া হোক।

কার্ফু, ইন্টারনেট বন্ধ, ইত্যাদি নিয়ে একটি মামলার প্রেক্ষিতে দেশের শীর্ষ আদালত ইতিমধ্যেই বলে দিয়েছে, “এক রাতে কাশ্মীরের পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে না। ওখানে শান্তি ফেরাতে সময় লাগবে। কেন্দ্র সেই সময় নিক। আমরা চাই উপত্যকায় শান্তি বিরাজ করুক।” প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হয়, সন্ত্রাসবাদীরা যাতে ইন্টারনেট ব্যবহার করে নাশকতা না করতে পারে, সে কারণেই এই পদক্ষেপ। ২০১৬ সালে বুরহান ওয়ানি-সহ তিন জঙ্গির মৃত্যুর পরও ইন্টারনেট ও ফোন পরিষেবা বন্ধ করে.দেওয়া হয়েছিল কাশ্মীরে।

৩৭০ ধারা বিলোপের পর ইদ এবং স্বাধীনতা দিবস গিয়েছে। বড় কোনও গণ্ডগোলের ঘটনা ঘটেনি কাশ্মীরে। তবে বিভিন্ন জায়গা থেকে বিক্ষিপ্ত গণ্ডগোলের খবর মিলেছে। উপত্যকায় শান্তি ফেরানো প্রশাসনের কাছেও চ্যালেঞ্জ।

Comments are closed.