মঙ্গলবার, মার্চ ১৯

দুপুরবেলায় অঙ্ক কষেন, বিকেলে খেলেন দাবা, দিব্যি আছেন ১১৬ বছরের কানে তানাকা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বয়স তাঁর ১১৬। এখনও যথেষ্টই শক্ত-সামর্থ্য। প্রতিদিন ভোর ৬টায় ঘুম থেকে ওঠেন তিনি। রোজ দুপুরে অঙ্ক করা তাঁর নেশা। সঙ্গে রয়েছে দাবা খেলার শখ। দাবার চালে আশেপাশের সকলকে মাত দেন অনায়াসেই। তিনি কানে তানাকা। জাপানের এই মহিলাকে বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক মানুষের খেতাব দিয়েছে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস। তবে বয়স যে কানে তানাকার জীবনে কোনও ফ্যাক্টরই নেই সেটাই রোজ বুঝিয়ে দেন ১১৬ বছরের এই বৃদ্ধা।

যে বছর ওয়ার্নার ব্রাদার্স প্রথম প্লেন আবিষ্কার করেছিলেন সেই বছর অর্থাৎ ১৯০৩ সালের ২ জানুয়ারি জন্ম এই কানে তানাকার। আপাতত তিনি একটি নার্সিংহোমের বাসিন্দা। পশ্চিম জাপানের ফুকুওকা শহরের একটি নার্সিংহোমে থাকেন তিনি। সেখানেই বাকিদের সঙ্গে দিব্যি হেসেখেলে দিন কাটাচ্ছেন কানে তানাকা। সকলকে বলেন, “এটাই নাকি তাঁর জীবনের সেরা সময়।”  ১৯২২ সালে হিডিও তানেকাকে বিয়ে করেন কানে তানেকা। চার সন্তানের অভিভাবক তানেকা দম্পতি দত্তক নেন তাঁদের পঞ্চম সন্তানকে। হালফিলে বার্ধক্যজনিত কিছু সমস্যা ছাড়া আর কোনও শারীরিক সমস্যাই নেই এই বৃদ্ধার জীবনে।

প্রবাদে আছে বয়স্ক মানুষ আর শিশুর মধ্যে নাকি কোনও পার্থক্য থাকে না। কানে তানাকার ক্ষেত্রেও ব্যাপারটা খানিকটা তেমনই। সবার সঙ্গে হেসেখেলেই দিন কাটান তিনি। দাবা খেলা আর অঙ্ক কষার মাঝে মাঝে আবার প্র্যাকটিস করেন ক্যালিগ্রাফিও। গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে বলা হয়েছে অবসর সময়ে ওথেলো গেম খেলা কানে তানেকার সবচেয়ে পছন্দের জিনিস। এই খেলায় রীতিমতো পারদর্শী তিনি। প্রায় সব দানেই হারিয়ে দেন প্রতিপক্ষকে। চলতি বছরে কানে তানাকাকে বিশেষ সম্মান প্রদান করেছেন ফুকুওকা শহরের মেয়র সোইচিরো তাকাশিমা।

Shares

Comments are closed.