বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ১৯

ট্রেনে ভারতীয়কে অপমান, যাত্রীকে নামিয়ে দিলেন নিউজিল্যান্ডের কন্ডাকটর

দ্য ওয়াল ব্যুরো : গত ৮ অগাস্ট নিউজিল্যান্ডের ওয়েলিংটন স্টেশন থেকে একটি ট্রেন যাচ্ছিল আপারহাটের দিকে। ট্রেনে ছিলেন এক ভারতীয় যাত্রী। তিনি সেলফোনে কারও সঙ্গে হিন্দিতে কথা বলছিলেন। তা থেকে ট্রেনের যাত্রী এক তরুণী বুঝতে পারে তিনি ভারতীয়। সে ওই যাত্রীকে লক্ষ্য করে কটূক্তি করতে থাকে। কাছেই ছিলেন ট্রেনের কন্ডাকটর জে জে ফিলিপস। ভারতীয় যাত্রীর উদ্দেশে কটুকাটব্য করছে দেখে তিনি তরুণীকে ট্রেন থেকে নেমে যেতে বলেন। নিউ জিল্যান্ড হেরাল্ড নামে এক সংবাদপত্রে এই খবর প্রকাশিত হয়েছে। জাতিবিদ্বেষী আচরণের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ায় কন্ডাকটর ফিলিপসের প্রশংসা করেছেন অনেকে।

ওই ঘটনার এক প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন, অভিযুক্ত তরুণীর বয়স ১৬-১৭। সে ভারতীয় যাত্রীকে হিন্দিতে কথা বলতে দেখে চেঁচাতে থাকে, গো ব্যাক টু ইওর কান্ট্রি! ডোন্ট স্পিক দ্যাট ল্যাঙ্গোয়েজ হিয়ার!

ট্রেনের পরের স্টেশন এলে ফিলিপস তাকে বলেন, তুমি নেমে যাও। আমি ট্রেনের ভিতরে এসব বরদাস্ত করব না। মেয়েটি নামতে অস্বীকার করে। তখন কন্ডাকটর পুলিশ ডাকেন।

প্রত্যক্ষদর্শী বলেন, ট্রেনের সব যাত্রীই কন্ডাকটরকে সমর্থন জানিয়েছে। মেয়েটির সঙ্গে বাদানুবাদে ট্রেন স্টেশনে দাঁড়িয়েছিল ২০ মিনিট। তাতেও কেউ বিরক্ত হয়নি। কন্ডাকটর মেয়েটিকে সাফ জানিয়ে দেন, আমি এসব সহ্য করব না। তুমি টিকিট কেটেছ বলেই ট্রেনে চড়তে পাবে, এমন কোনও কথা নেই। এখনই ট্রেন থেকে নেমে যাও।

নিউজিল্যান্ড হেরাল্ডকে ভারতীয় যাত্রী জানিয়েছেন, ওই তরুণী চিৎকার শুরু করতে তিনি ঘাবড়ে যান। কন্ডাকটর জানিয়েছেন, তিনি সেই সময় কিছু দূরে টিকিট চেক করছিলেন। এক যাত্রী ওই তরুণীর দিকে তাঁর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। ফিলিপস বলেন, আমি দেখলাম একটি টিন এজার মেয়ে ভারতীয় যাত্রীর উদ্দেশে কটূক্তি করছে। ভারতীয় ভদ্রলোক কাউকে ডিসটার্ব করেননি। তিনি ফোনে মাতৃভাষায় কথা বলছিলেন। তাতেই মেয়েটি রেগে যায়।

ফিলিপস সংবাদপত্রকে জানিয়েছেন, প্রত্যেক যাত্রীকে নিরাপদে গন্তব্যে পৌঁছে দেওয়া তাঁর কাজ। প্রত্যেকেরই সম্মান পাওয়া উচিত, তিনি যে জাতেরই মানুষ হোন না কেন।

Comments are closed.