রবিবার, সেপ্টেম্বর ১৫

বোর্ডের পরীক্ষা-প্রবেশিকা-কেরিয়ার! কী করে ম্যানেজ করবে পড়ুয়ারা, পথ দেখাবে এডুমোটিভ

দ্য ওয়াল ব্যুরো: তাক লাগানো নম্বর পেয়ে, নামিদামী প্রবেশিকা পরীক্ষায় পাশ করার সুযোগ পেয়ে, চোখধাঁধানো কেরিয়ার গড়তে কে না চায়! কিন্তু চাইলেই তো হয় না, তার জন্য প্রয়োজন মেধা ও পরিশ্রম। কিন্তু মুশকিলটা হয় তাদের, যারা পর্যাপ্ত মেধা থাকা সত্ত্বেও এবং আন্তরিক পরিশ্রমের পরেও আশানুরূপ ফলাফল পায় না। বারবার চেষ্টাতেও না হয় প্রবেশিকায় ভাল নম্বর, না হয় পছন্দের কেরিয়ার তৈরির সুযোগ।

কিন্তু ‘এডুমোটিভ’ বলছে, একটু ঠিকঠাক গাইডেন্সের অভাবেই বহু মেধাবী ও পরিশ্রমী পড়ুয়া আশানুরূপ ফল করতে পারে না পরীক্ষায়। ওই অভাবটুকুর জন্য অনেকের জীবনটাই নষ্ট হয়ে যায়। এবার থেকে আর সে অবকাশ থাকবে না, এডুমোটিভের হাত ধরলে।

কী এই এডুমোটিভ?

এক কথায় উত্তর দিতে গেলে বলতে হয়, এডুমোটিভ একটি কোচিং সেন্টার। যদিও কোচিং সেন্টারের ধারণা কলকাতা শহরে মোটেও নতুন নয়, কিন্তু নতুন ধারণারও তো নতুন জন্ম হয়! সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ঘটে যায় বিবর্তন। বর্তমান বাজার চলতি জিনিসের ত্রুটি ও ফাঁকফোকর শুধরে নিয়ে তৈরি হয় নতুন ব্যবস্থা।

এমনই নতুন ধারণা নিয়ে কলকাতার দুপ্রান্তে শুরু হচ্ছে এডুমোটিভ। তাদের একটি প্রতিষ্ঠান উত্তর কলকাতায়, অন্যটি দক্ষিণে। যারা বলছেএক এক জন পড়ুয়ার এক একটা অসুবিধা থাকলেও সেটা পরিষ্কার করার দায়িত্ব নেবে তারা। শুধু তা-ই নয়। তারা জানাচ্ছে, আগে থেকেই বিভিন্ন স্কুলে স্কুলে গিয়ে বোর্ড পরীক্ষা ও বিভিন্ন প্রবেশিকা পরীক্ষা সম্পর্কে পড়ুয়াদের নিয়ে সেমিনারের আয়োজন করবে তারা। এবং সেটাও বিনামূল্যে।

এডুমোটিভের তরফে মহম্মদ শাহরোজ় বলছেন, “পড়ুয়াদের একটা বড় সমস্যা হয়, বোর্ড এক্সামের আগে-পরে পৌঁছে, দিশাহীন হয়ে পড়ে তারা। হয়তো সেই সময়ে হালটা একটু ধরলেই তরতর করে এগোবে কেরিয়ারের নৌকা, কিন্তু সেই হাল ধরার অভাবেই দিকভ্রান্ত হয় অনেকে। এডুমোটিভ সেই হাল ধরার কাজটাই করবে। আমরা ইতিমধ্যেই স্কুলে স্কুলে গিয়ে দশম থেকে দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রছাত্রীদের নিয়ে সেমিনার করতে শুরু করেছি। উপস্থিত থাকছেন স্কুলের শিক্ষকরাও।”

“পড়ুয়াদের মধ্যে থেকেই আমরা বাছাই করে নিই, কারা আইআইটি, জয়েন্ট, নিট– এই প্রবেশিকা পরীক্ষাগুলোয় ভাল নম্বর পেয়ে পাশ করে কেরিয়ার তৈরি করতে চাইছেন।”– বললেন মহম্মদ শাহরোজ়।

সেমিনারের একটি সংক্ষিপ্ত আউটলাইনও পাওয়া গেল তাঁর কাছ থেকে। যেমন:-

১) বোর্ডের পরীক্ষার সঙ্গে সঙ্গেই কী করে প্রবেশিকার জন্য নিজেকে তৈরি করতে হবে।
২) পাহাড়প্রমাণ সিলেবাসের স্তূপে কী করে সময় বার করতে হবে আলাদা আলাদা বিষয় পড়ার জন্য।
৩) কী কী বই দরকার, বোর্ড এবং প্রবেশিকা দুই মিলিয়ে।
৪) এমসিকিউ পদ্ধতিতে প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার কিছু শর্টকাট কৌশল।
৫) বোর্ডে এবং প্রবেশিকায় ভাল ফলের জন্য নিশ্চিত সাজেশন।

এ সবের পাশাপাশি, এডুমোটিভ নিজেদের সেরা ফ্যাকাল্টি দিয়ে বানানো বিশেষ টেস্ট সিরিজ়ের মাধ্যমেও নিজেদের যাচাই করে নেওয়ার সুযোগ দিচ্ছে পড়ুয়াদের। প্রবেশিকার টেস্টে এমসিকিউ সলভ করার জন্য দিচ্ছে ওএমআর শিট-ও। এডুমোটিভের দাবি, এই ধারাবাহিক পদ্ধতির মধ্যে দিয়ে গেলে প্রতিটা ছাত্র আরও একটু ভাল ফল করবে।

দেখে নিন, বিশেষ বিশেষ পরীক্ষার জন্য এডুমোটিভের টেস্ট সিরিজ়ের সংখ্যা।

এআইআইএমএস/ এনইইটি (ক্লাস ১২) ২২ + ৫ (বোর্ড)
এআইআইএমএস/ এনইইটি (১২ পাশ করার পর) ২৪
জেইই (মেনস+অ্যাডভান্সড) (ক্লাস ১২) ২০ + ৫ (বোর্ড)
জেইই (মেনস+অ্যাডভান্সড) (১২ পাশ করার পর) ২১
  মাধ্যমিক (ক্লাস ১০) ১৮
  উচ্চমাধ্যমিক (ক্লাস ১২) ১৮
  সিবিএসই (ক্লাস ১০) ১৬
  সিবিএসই (ক্লাস ১২) ১৪
  আইসিএসই (ক্লাস ১০) ২৮
 আইএসসি (ক্লাস ১২) ২১

 

আপাতত শ্যামবাজার ও গোলপার্ক– শহরের এই দুটি প্রান্তে খোলা হচ্ছে এডুমোটিভ। অ্যাডমিশন চলছে। ভর্তি হওয়ার জন্য দিতে হবে প্রাথমিক একটি পরীক্ষা। তার পরেই পাওয়া যাবে স্মার্ট ক্লাসরুমে বসে কোচিং ক্লাস করার সুযোগ। মিলবে অডিও-ভিস্যুয়াল ব্যবস্থায় শেখার সুযোগ।

তা হলে আর দেরি না করে শুরু করে দিন প্রস্তুতি। এডুমোটিভের হাত ধরে। এই শহরে বসেই পড়াশোনা করেজাতীয় স্তরের বড় পরীক্ষার বৈতরণী পেরোনো অনেকটাই সহজ হতে পারে বলে আশ্বাস দিচ্ছে তারা।

এডুমোটিভ সম্পর্কে বিস্তারিত খোঁজ চাইলে যোগাযোগ করতে পারেন: 9748692221 অথবা 9007042226

(বিজ্ঞাপন প্রতিবেদন)

Comments are closed.