রবিবার, সেপ্টেম্বর ২২

শহিদ জওয়ানের কফিনের সঙ্গে সেলফি তোলার অভিযোগ মিথ্যা, পুলিশকে চিঠি মন্ত্রীর

দ্য ওয়াল ব্যুরো : পুলওয়ামায় নিহত জওয়ানের কফিনের সামনে সেলফি তুলেছেন কেন্দ্রীয় পর্যটনমন্ত্রী আলফনসো কান্নানথানম। এই অভিযোগে রবিবার নিন্দার ঝড় বয়ে গিয়েছিল সোশ্যাল মিডিয়ায়। পরে ওই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন মন্ত্রী। শুধু তাই নয়, তিনি কেরল পুলিশের ডিজিকে পালটা অভিযোগ জানিয়েছেন, দুষ্কৃতীরা তাঁর বিরুদ্ধে মিথ্যা প্রচার করছে।

আলফনসো-র কথায়, আমি যখন কফিনের কাছে দাঁড়িয়েছিলাম, কেউ ছবি তুলেছিল। আমার মিডিয়া সেক্রেটারি সেই ছবি ফেসবুকে পোস্ট করে। এরপর দুষ্কৃতীরা অভিযোগ করতে থাকে, আমি নাকি কফিনের সামনে দাঁড়িয়ে সেলফি তুলেছি। সোশ্যাল মিডিয়ায় তারা এই মিথ্যা অভিযোগ ছড়ায়। কয়েকজন দুষ্কৃতীর এই কাজে জনসমক্ষে আমার সম্মানহানি হয়েছে। এই ধরনের কাজ ভারতীয় দণ্ডবিধি অনুযায়ী শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

গত রবিবার শহিদ জওয়ান বসন্ত কুমার ভি ভি-র দেহ তাঁর জন্মস্থান লাক্কিডিতে আনা হয়। ওই জায়গাটি কেরলের ওয়াইনাদ জেলায় অবস্থিত। বাড়ির কাছেই ওই জওয়ানের শেষকৃত্য হয়। রবিবার তাঁর কফিনের সামনে যখন শত শত লোক শ্রদ্ধা জানাচ্ছিলেন, তখনই মন্ত্রী সেলফি তোলেন বলে অভিযোগ। তিনি ওই অভিযোগ অস্বীকার করার পরেও সোশ্যাল মিডিয়ায় নিন্দার ঝড় থামেনি। নেটিজেনরা লিখেছেন, স্যার আপনার আরও দামি ক্যামেরায় ছবি তোলা উচিত ছিল। এই ছবিতে আপনার মুখের লজ্জাটাও ঠিকমতো ধরা পড়ছে না। আর একজন লিখেছেন, এটা নাটক করার সময় নয়।

গত বৃহস্পতিবার জম্মু-শ্রীনগর হাইওয়ের ওপরে সিআরপিএফ জওয়ানরা হামলার শিকার হন। সেদিন ৭৮ টি বাসে চড়ে শ্রীনগরের উদ্দেশে যাচ্ছিলেন আড়াই হাজার সিআরপিএফ কর্মী। এমন সময় সাড়ে তিনশ কেজি বিস্ফোরক নিয়ে কনভয়ে ধাক্কা মারে একটি স্করপিও গাড়ি। বিস্ফোরণের শব্দ শোনা যায় ১০ কিলোমিটার দূর থেকে। ৪০ জনের বেশি সিআরপিএফ কর্মী শহিদ হন। তার পরে শোকের ছায়া নেমে আসে দেশ জুড়ে।

রবিবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বিহারে এক জনসভায় বলেন, আমি উপস্থিত জনতাকে জানাতে চাই, আমার হৃদয়েও আগুন জ্বলছে। সিআরপিএফ থেকেও বলা হয়, পাকিস্তানের বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কেরলে বিখ্যাত তারকা মোহনলালের একটি ছবির শ্যুটিং-এর সময় অভিনেতা ও কলাকুশলীরা মৃত জওয়ানদের স্মরণে নীরবতা পালন করেন।

নিহত জওয়ান বসন্ত কুমার মুল্লু কুরুমা উপজাতির মানুষ ছিলেন। তাঁর মা, স্ত্রী ও দুই সন্তান আছেন।

Comments are closed.