শুভেন্দু অধিকারীর নতুন পদক্ষেপ, তিনটি সমবায় ব্যাঙ্কের মাধ্যমে স্বস্তি লক্ষাধিক মানুষকে

পূর্ব মেদিনীপুর জেলার বিদ্যাসাগর সেন্ট্রাল কো-অপারেটিভ ব্যাঙ্ক, কন্টাই কো-অপারেটিভ ব্যাঙ্ক এবং কন্টাই কৃষি ও গ্রামোন্নয়ন ব্যাঙ্কের বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত রবিবার ঘোষণা করলেন তিনি।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো: একদিকে করোনাভাইরাস সংক্রমণের জেরে লকডাউন আর অন্যদিকে ঘূর্ণিঝড় উমফান। দুইয়ের ধাক্কায় পূর্ব মেদিনীপুরের কৃষকরা অনেকেই আর্থিক সমস্যায়। অনেক ছোট ব্যবসায়ীও সমস্যায়। তাঁদের পাশে দাঁড়াতে জেলার তিনটি সমবায় ব্যাঙ্কের তরফে কয়েকটি সিদ্ধান্ত ঘোষণা করলেন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। জেলাবাসীর বক্তব্য, সংকটের সময়ে ফের মানবিক পদক্ষেপ করলেন শুভেন্দু।

পূর্ব মেদিনীপুর জেলার বিদ্যাসাগর সেন্ট্রাল কো-অপারেটিভ ব্যাঙ্ক, কন্টাই কো-অপারেটিভ ব্যাঙ্ক এবং কন্টাই কৃষি ও গ্রামোন্নয়ন ব্যাঙ্কের বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত রবিবার ঘোষণা করলেন তিনি। শুভেন্দু অধিকারী জানান, এই সমবায় ব্যাঙ্কগুলি থেকে যেসব কৃষক, ক্ষুদ্র, মাঝারি ও ছোটো শিল্পের সঙ্গে জড়িত ব্যবসায়ী, পরিবহণ ক্ষেত্রের ব্যবসায়ী ঋণ নিয়েছেন আগেই তাঁদের জন্য তিন মাসের মোরাটোরিয়াম ঘোষণা করা হয়েছিল। সেটা ৩০ সেপ্টেম্বর অবধি বাড়িয়ে দেওয়া হল। অর্থাৎ, মোট ছ’মাসের জন্য মোরাটোরিয়ামের সুযোগ দেওয়া হল। ঋণগ্রাহকরা অতিরিক্ত ছ’টি কিস্তিতে টাকা শোধ করতে পারবেন। এর জন্য তাঁদের উপরে কোনও অতিরিক্ত অর্থের বোঝা চাপবে না।

আরও পড়ুন

কেরলে মুরগির ডিমে সবুজ কুসুম, অবাক কাণ্ডের রহস্য ফাঁস করলের বিজ্ঞানীরা

এর পাশাপাশি মন্ত্রীর ঘোষণা, দুই মেদিনীপুর ও ঝাড়গ্রাম জেলায় ব্লক প্রতি ১ লক্ষ টাকা করে অর্থসাহায্য দেওয়া হবে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন সেন্টারগুলির জন্য। শুভেন্দুবাবু বলেন, “করোনা মোকাবিলায় গড়া রাজ্য সরকারের তহবিলে এই তিনটি সমবায় ব্যাঙ্কের মাধ্যমে দেড় কোটি টাকা দেওয়া হয়েছে। কন্টাই কো- অপারেটিভ ব্যাঙ্ক ভারত সেবাশ্রম সংঘের মাধ্যমে সাড়ে চার লক্ষ মানুষের অন্নসংস্থানের ব্যবস্থা করেছে। এবার তিনটি জেলার প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন সেন্টারগুলিতে স্যানিটাইজার, শুকনো খাবার ইত্যাদির জন্য সাধ্যমতো ব্লক প্রতি ১ লক্ষ টাকা করে দেওয়া হবে। এতে ৫৪টি ব্লক ও বেশ কয়েকটি পুরসভার পাশে থাকা সম্ভব হবে।”

এদিন শুভেন্দু অধিকারী আরও জানান, ফণী ও উমফান ঘূর্ণিঝড় থেকে শিক্ষা নিয়ে সমবায় ব্যাঙ্কগুলির পক্ষে এবার থেকে কৃষিঋণ দেওয়া হবে। মোট ৫৫০ কোটি টাকার কৃষিঋণ দেওয়া হবে। এতে কৃষি, উদ্যানপালন ও প্রাণীসম্পদ বিকাশের সঙ্গে যুক্ত মানুষেরা সুবিধা পাবেন। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কৃষকদের জন্য যে ঘোষণা করেছেন তার বাইরে সমবায় ব্যাঙ্কগুলির মাধ্যমেও সহায়তা প্রদান করা হবে।

২০১৯-২০ সালে পানের বরজের জন্য যাঁরা ঋণ নিয়েছিলেন উমফানে ক্ষতির জন্য তাঁদের ‘সদস্য কল্যাণ তহবিল’ থেকে কন্টাই এআরডিবি ব্যাঙ্ক প্রত্যেককে ১০ হাজার ও তমলুক এআরডিবি ব্যাঙ্ক প্রত্যেককে ৫ হাজার টাকা করে অর্থসাহায্য দেবে। এছাড়াও কন্টাই এআরডিবি ব্যাঙ্ক নতুন পানের বরজের জন্য ঋণ দিতে ১২০ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে। পান চাষিদের জন্য এবার বিমাও চালু করা হবে, যার ৫০ শতাংশ প্রিমিয়াম ঋণগ্রহীতা দেবেন এবং ৫০ শতাংশ দেবে ওই ব্যাঙ্ক। প্রবীণ নাগরিকদের জন্য ১ শতাংশ বাড়তি সুদ এই সমবায় ব্যাঙ্কগুলি দেবে বলেও জানান শুভেন্দুবাবু। তাঁর কথায়, সংকটের সময়ে অসম যুদ্ধে জয়ের প্রত্যয় নিয়েই এই মানবিক পদক্ষেপ।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More