শনিবার, আগস্ট ২৪

প্রেমিকের চরম সিদ্ধান্তে প্রেমিকা শ্রীঘরে, বিয়েতে ‘না’ বলাই অপরাধ নাকি অন্য রহস্য

দ্য ওয়াল ব্যুরো, আলিপুরদুয়ার: প্রেমিকা বিয়েতে রাজি হয়নি। সেই কারণেই আত্মহত্যা করল প্রেমিক। আর তার জেরে প্রেমিকা ও তাঁর বাবা-মাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। অভিযোগ, আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়া হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, আলিপুরদুয়ার শহর লাগোয়া ভোলারডাবরি গ্রামের মৃত প্রেমিকের নাম পাপাই মল্লিক (২৬)। ১০ অগস্ট বাড়ি থেকে ১০০ মিটার দূরে একটি গাছে গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করে পাপাই। ওই দিন রাতেই প্রেমিকা ও তাঁর বাড়ির লোকেদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ জানায় তাঁর বাড়ির লোকেরা। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ সোমবার রাতে প্রেমিকা ও তাঁর বাবা ও মাকে গ্রেফতার করে।

মৃত প্রেমিকের দাদা রনি মল্লিক বলেন, “এর আগেও ওই মেয়েটির এক বোনের সঙ্গে সম্পর্কের জেরে আরও এক যুবক গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করে। এবার আমার ভাইয়ের সঙ্গে একই ঘটনা ঘটল। ভাই টোটো চালিয়ে মেয়েটির পরিবারকে প্রচুর টাকা পয়সা দিয়েছে। কিন্তু তার পরেও ভাইকে বিয়ে করতে রাজি না হওয়াতেই ভাই আত্মহত্যা করল। আমরা গ্রেফতার ৩ জনেরই কঠোর শাস্তি চাই।“

সোমবার রাতে তাঁদের তিন জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে । এই ঘটনায় আলিপুরদুয়ারে ব্যাপক চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে। জেলার পুলিশ সুপার নগেন্দ্রনাথ ত্রিপাঠি বলেন, “আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগে আমরা ৩ জনকে গ্রেফতার করেছি। তদন্ত হবে।”

যাবতীয় অভিযোগ অবশ্য অস্বীকার করেছে প্রেমিকার পরিবার। প্রেমিকার বাবা কানাই পণ্ডিত বলেন, “আমার মেয়ের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিল কিনা জানি না। তবে পারিবারিক কারণে ছেলেটি আত্মহত্যা করেছে। আর এখন আমাদের ফাঁসানো হচ্ছে।”

Comments are closed.