Latest News

টানা ঘরবন্দি দশায় শিশুরা অস্থির হয়ে উঠছে? জেনে নিন বাবা-মায়ের করণীয় কী

পায়েল ঘোষ

বছর দেড়েক হতে চলল বাচ্চারা বাড়িতে আটকে। আগামী কয়েকমাসের মধ্যেও স্কুল খোলার সম্ভাবনা নেই। তাই ক্রমেই ওরা হয়ে উঠছে মনমরা, খিটখিটে আর মানসিকভাবে ক্লান্ত। কিন্তু এভাবে দিনের পর দিন চলে ওদের মনে ক্রমশ চাপ বাড়বে। তার প্রভাব পড়বে সব ক্ষেত্রে।

তাহলে উপায়?

কয়েকটি বিষয় খেয়াল রাখা দরকার। বিশেষ করে বাবা-মায়েদের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ।

দিনের শুরুতেই ওদের নিয়ে বসুন। ওদের কাছ থেকে শুনুন কীভাবে ওরা দিনটা কাটাতে চায়। তারপর এক সঙ্গে বসে একটা রুটিন বানান। যার মধ্যে অবশ্যই পড়াশোনা, খেলাধুলো, গল্প আড্ডার একটা ভারসাম্য থাকবে।

প্রতিদিন নিয়ম করে বিকেলে ওদের একটু বাইরে বা বাড়ির ছাদে নিয়ে যান। যদি কেউ সাইক্লিং করতে চায়, বাধা দেবেন না। অন্য বাচ্চারা যদি রাজি হয় খেলাধুলো করতে, অবশ্যই অভিভাবকদের তত্ত্বাবধানে তারা খেলতেই পারে। বলাই বাহুল্য, অবশ্যই ভাইরাসের থেকে বাঁচার জন্য প্রয়োজনীয় সাবধানতা নিতে হবে।

প্রতিদিন ওদের বিজ্ঞান বা সাহিত্য ভিত্তিক একটি করে নতুন তথ্য লিখতে বলুন নোটবুকে। সঙ্গে সম্ভব হলে ছবি সাঁটতে বা আঁকতে বলতে পারেন। এতে ওর নিজের একটা তথ্য ভাণ্ডার তৈরি হবে। ওদের নিজের মতন করে কিছু নতুন খেলা, বিজ্ঞানভিত্তিক এক্সপেরিমেন্ট করতে বলুন।

ছোট বাচ্চাদের জন্য এখন বিভিন্ন ধরনের ইনডোর গেম পাওয়া যায়, যা ওদের মানসিক বিকাশে বিশেষভাবে সহায়তা করে। চেষ্টা করুন সেসব খেলাগুলোর সঙ্গে ওদের পরিচয় করাতে।

প্রতিদিন অন্তত এক পাতা করে গল্পের বই পড়ার একটা অভ্যাস তৈরি করতে উৎসাহ দিন এই সময়টায়। প্রথমে হয়ত উৎসাহ পাবে না। কিন্তু অভিভাবকদের হাল ছাড়লে হবে না। পাশে থাকতে হবে এই সময়ে।

বাড়ির সহজ কাজগুলোর কিছু দায়িত্ব ওদের দিন এবং কাজ যত্নসহকারে করতে পারলে ওদের পুরস্কৃত করুন মাঝে মাঝে।

চেষ্টা করুন ওদের সঙ্গে প্রকৃতির একটা সহজ সম্পর্ক তৈরি করে দিতে হবে এই সময়। বাড়িতে গাছপালা যা আছে সেগুলির যত্ন করতে শেখান।

অনেক স্কুলেই অনলাইন ক্লাস চলছে, দিনের বেশ কিছুক্ষণ সময় ওদের স্ক্রিনের সামনে থাকতে হয়। তাই সবসময় চেষ্টা করুন ওরা যাতে অবসর সময়টা টিভি বা মোবাইল ফোন ছাড়া কাটাতে পারে। প্রথম কিছুদিন অসুবিধে হলে দেখবেন, আসতে আসতে ওটাই ওদের অভ্যাস হয়ে যাবে। ছুটির দিনে বরং সবাই মিলে এক সঙ্গে বসে কিছু ভালো অনুষ্ঠান বা সিনেমা দেখতে পারেন।

ওদের বন্ধুবান্ধবদের সঙ্গে নিয়মিত ফোনে বা ভিডিও কলের মারফত কোথা বলতে দিন, যাতে ওরা নিজেদের বন্ধুদের থেকে বিচ্ছিন্ন না মনে করে।

You might also like