Latest News

কম খরচেই বেড়িয়ে আসুন দেশের নানা জায়গা থেকে, রইল হদিশ

দ্য ওয়াল ব্যুরো: করোনা আবহে সবকিছুই যেন থমকে গিয়েছে। স্বাভাবিক জীবনযাপনের ধরনে এসেছে নানা পরিবর্তন। ওয়ার্ক ফ্রম হোমের দুনিয়াতে ঘরে বসে কাজ করতে করতে মানুষ ক্লান্ত ও একঘেয়ে জীবনে একটু হলেও বিরক্ত হয়ে উঠছে! তার ওপর অর্থনৈতিক পরিকাঠামোও যথেষ্ট বিপর্যস্ত, কাটছাঁট হয়েছে মাইনেও কিন্তু খরচ কমেনি। এই সব কিছুর চাপ আমাদের ঠেলে দিচ্ছে হতাশার দিকে! কিন্তু হতাশ হলে চলবে না, কথায় বলে হাওয়া বদল করলে মন ভাল হয়ে যায়! তাই সাধ্যের মধ্যেই সাধ মিটিয়ে বেড়িয়ে আসা দরকার। দেশের মধ্যেই এরকম বহু জায়গা আছে যেখানে কম খরচেই আপনি ঘুরে আসতে পারবেন। তাহলে দেরি করছেন কেন? আজই ঝোলা কাঁধে নিয়ে বেরিয়ে পরুন! কোন পথে যাবেন তার যদি হদিশ পেতে চান, তাহলে একবার নজর দিতে পারেন এই তালিকাতে, হলফ করে বলা যায় এই শীতের সফর জমে যাবে।

চেন্নাই, তামিলনাড়ু

ভারতের অন্যান্য শহরগুলোর থেকে চেন্নাই একেবারে আলাদা। এখানকার সংস্কৃতি, ঐতিহ্য আর রাস্তার ধারের বিভিন্ন জিনিসের দোকানপাট চেন্নাইকে আরও বেশি করে প্রাণবন্ত করে তুলেছে। এখানে খুব কম টাকাতে যাতায়াতে সুবিধে যেমন রয়েছে, তেমনই দোকানগুলোর ট্র্যাডিশনাল জিনিসপত্রও পর্যটকদের ভীষণভাবে আকর্ষণ করে। এখানে সস্তাতে খাওয়ার ব্যবস্থাও রয়েছে, কম টাকাতে সুস্বাদু নিরামিষ হোটেল পেয়ে যাবেন ফুটপাথেই। পৃথিবীর দীর্ঘতম বিচ হল মেরিনা বিচ, তারই তীরে অবস্থিত এই ঐতিহ্যবাহী শহরে কাটিয়ে যেতে পারেন ছুটির দিনগুলো।

বাজেটের মধ্যে থাকার ব্যবস্থা:

ইলিয়ট বিচের কাছে রয়েছে হোটেল মারোমা স্যুটস, আপনার সাধ্যের মধ্যেই এখানে থাকার ব্যবস্থা রয়েছে। কম খরচে ভাল জায়গাতে থাকতে চাইলে এখানে বুকিং করতে পারেন।

জয়পুর, রাজস্থান

গোলাপি শহর জয়পুরের ইতিহাস কম বেশি সকলেরই জানা। ঐতিহ্যনগরী রাজস্থানের জয়পুরের পরতে পরতে লেগে রয়েছে ইতিহাসের ছোঁয়া। সাধ্যের মধ্যেই স্বপ্নপূরণ করতে পারবেন! এখানকার দুর্গ, পাহাড়, মন্দির, শিল্প সংস্কৃতি আপনাকে অবাক করবেই। একবার এলে, বার বার ফিরে আসতে ইচ্ছে করবে এই ‘রয়্যাল সিটি’তে। এছাড়াও রয়েছে এখানকার অল্পখরচে সুস্বাদু ও মুখরোচক খাবার, যার স্বাদ আপনি চাইলে ভুলতে পারবেন না।

সাধ্যের মধ্যে থাকার ব্যবস্থা:

নিজের বাজেটের মধ্যেই পেয়ে যাবেন আরামদায়ক হোটেল, আর চুটিয়ে মজা করতে পারবেন ছুটির দিনগুলো। শুধু আগে থেকে বুকিং করে আসতে হবে জয়পুরের হেরিটেজ হোটেল ডেরা রাওয়াতসারে।

দীঘা, পশ্চিমবঙ্গ

কলকাতার থেকে মাত্র কয়েক ঘণ্টার পথ পেরোলেই দীঘার সমুদ্র সৈকত। সপ্তাহের শেষে উকেন্ড ট্যুরের জন্য দীঘা সবচেয়ে ভাল অপশন। মধ্যবিত্তের নাগালের মধ্যেই রয়েছে দীঘার বেড়ানোর বাজেট। তাই সমুদ্র সৈকতে বালির ওপর দাঁড়িয়ে সূর্যোদয় ও সূর্যাস্ত দেখতে চাইলে আজই কেটে ফেলুন দীঘার টিকিট। এর সঙ্গে আরও রয়েছে বিভিন্ন রকমের মাছ ও বাঙালি খাবারের সম্ভার, তাহলে দেরি না করে ঘুরে যান বাংলার সমুদ্র শহর থেকে।

বাজেটের মধ্যে থাকার ব্যবস্থা:

সমুদ্র সৈকতের একবারে কিনারে রয়েছে লে রোই দিঘা হোটেল। হোটেলের পরিবেশ, আতিথেয়তা ও সুব্যবস্থা আপনাকে মুগ্ধ করবেই! তাই কম খরচে দীঘা বেড়াতে চাইলে চটপট বুকিং করুন, আর এখানে কাটিয়ে যান উইকেন্ডের ছুটির দিন।

পন্ডিচেরি

আপনার সাধ্যের মধ্যেই আরও একটা ঘুরতে যাওয়ার ঠিকানা হল পন্ডিচেরি, চাইলে ঘুরে আসতে পারেন এই রঙিন শহর থেকে। এখানে যানবাহন থেকে খাওয়াদাওয়া সবকিছুর খরচাই রয়েছে আপনার নাগালের মধ্যে। দুচাকাতে চেপে ঘুরে ফেলতে পারেন পুরো শহর- মন্দির, গির্জা, রঙিনবাড়ি, ফ্রেঞ্চ টাউন সবকিছুই! আবার যদি চান পায়ে হেঁটে ঘুরে দেখতে পারেন পন্ডিচেরিকে। এখানে পর্যটকদের অরভিলা আশ্রমেও থাকার ব্যবস্থা রয়েছে, হোটেলে না থাকতে চাইলে কম খরচে এখানে কাটাতে পারেন আপনার ছুটির দিনগুলো।

বাজেটের মধ্যে থাকার ব্যবস্থা:

গান্ধি বিচ, গণেশ মন্দির, আর অরবিন্দ আশ্রমের কাছেই রয়েছে মেল ভিলা হোমস্টে। চাইলে খুবই কম খরচে এখানেও থাকতে পারেন, একেবারে বাড়ির মতো সুযোগসুবিধা ও নিরাপত্তা যে পাবেন সে কথা হলফ করে বলা যায়।

You might also like