Latest News

চোখ দেখে ধরা যাবে স্ট্রোক হবে কিনা! মাথার ব্যামোর পূর্বাভাসও দেবে রেটিনা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ঝড়-বৃষ্টির পূর্বাভাস আগেভাগেই দিতে পারে আবহাওয়া দফতর। ভূমিকম্পের পূর্বাভাস দেওয়াও সম্ভভ। কিন্তু হার্ট কখন বিকল হবে বা মাথার ভেতর জটিল রোগ বাসা বাঁধবে, সে পূর্বাভাস দেওয়ার পদ্ধতি এখনও তেমনভাবে সামনে আসেনি। বিশেষত স্ট্রোক, ডিমেনশিয়ার মতো মস্তিষ্কের জটিল অসুখ আগেভাগে আঁচ করা যায় না।

কিন্তু, এবার তা সম্ভব। হার্ট অ্যাটাক হবে কিনা, আচমকা ব্রেন-স্ট্রোক হানা দেবে কিনা, এমনকি স্মৃতিনাশের আশঙ্কা আছে কিনা, তা বলে দেওয়া যাবে চোখ দেখেই।

চোখের মনিই হল আসল টার্গেট পয়েন্ট। চোখ দেখে হার্ট বা মস্তিষ্কের রোগের লক্ষণ চিনে নেওয়ার পদ্ধতি আবিষ্কার করে ফেলেছেন বিজ্ঞানীরা। দীর্ঘদিন ধরেই এই নিয়ে গবেষণা চলছিল। সম্প্রতি একটি মেডিক্যাল জার্নালে প্রতিবেদন ছাপা হয়েছে, চোখের রেটিনা দেখে ব্রেন-স্ট্রোক, ডিমেনশিয়ার মতো অসুখের আগাম খবর মেলা সম্ভব। রোগী সতর্কও থাকতে পারবেন, চিকিৎসাও শুরু হবে দ্রুত।

What Your Eyes Can Tell You About Your Health - Eye Problems

চোখ দেখে কীভাবে আঁচ করা যাবে? গবেষকরা বলছেন, চোখের রোগ রেটিনোপ্যাথি ধরা পড়লে বুঝতে হবে, ব্রেন-স্ট্রোকের সম্ভাবনা আছে। আমার ডিমেনশিয়ারও উপসর্গ হল রেটিনোপ্যাথি। এমন অনেক মানুষ আছেন যাঁদের কখনও হার্টের বা মস্তিষ্কের অসুখ করেনি। কিন্তু যদি চোখের রোগ বা রেটিনা ক্ষতিগ্রস্থ হতে শুরু করে কোনও কারণে, দৃষ্টি ঝাপসা হয়ে যায়, তাহলে বুঝতে হবে সমূহ বিপদ অপেক্ষা করছে।

New Diabetic Retinopathy Treatment Gets FDA "Breakthrough Therapy" Approval  - Diabetes News Journal
ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথি

রেটিনোপ্যাথির মূল কারণ হল ডায়াবেটিস আর উচ্চরক্তচাপ। রেটিনা চোখের সবচেয়ে সংবেদনশীল পর্দা। আলোকরশ্মি চোখের ভিতর ঢুকে এই রেটিনায় প্রতিফলিত হয়েই দৃশ্যমানতা তৈরি করে। রক্তে শর্করার পরিমাণ বেড়ে গেলে রেটিনার সরু জালকের মধ্যে দিয়ে রক্তপ্রবাহ বাধা পায়। সরু রক্তজালক চিরে গিয়ে সেখান থেকে রক্ত ও অন্যান্য তরল লিক করে। রেটিনার কোষ ফুলে ওঠে, দৃষ্টি ঝাপসা হয়ে যায়। অনেক সময় চোখের সামনে কালো কালো স্পট দেখা যায়, অন্ধত্বও আসতে পারে। গবেষকরা বলছেন, চোখে রক্তপ্রবাহ ক্ষতিগ্রস্থ হলে তার প্রভাব পড়ে মস্তিষ্কে। ব্রেন-স্ট্রোকের ঝুঁকি বেড়ে যায়।

Stroke: What You Need to Know | Brain health neuroscience, Brain health,  Neuroscience

ডায়াবেটিস, উচ্চরক্তচাপ, রেটিনোপ্যাথি, স্ট্রোক এইসব কিছুই একে অপরের সঙ্গে কোনও না কোনওভাবে সম্পর্কিত। গবেষকরা বলছেন, হাই প্রেশার, সুগার-সহ নানা রিস্ক ফ্যাক্টর মস্তিষ্কের রক্তবাহী ধমনীর পথ আটকে দেয়। ফলে ধমনীর মধ্যে দিয়ে রক্তপ্রবাহ বাধা পায়, রক্তে ভাসমান চর্বি ধমনীতে আটকে গিয়ে রক্ত চলাচল পুরোপুরি বন্ধ করে দিতে পারে। এমনটা হলে মস্তিষ্কের কোষে অক্সিজেন পৌঁছতে পারে না, ধীরে ধীরে মাথার কোষগুলো নিস্তেজ হয়ে যেতে থাকে। তখন চোখে অন্ধকার লাগে, হাত-পা, জিভ অসাড় হয়ে যায়, এই অবস্থাকেই বলে ব্রেন-স্ট্রোক। বড়সড় ব্রেন-স্ট্রোক হলে রোগীর শরীরের একদিন পক্ষাঘাতগ্রস্থও হয়ে পড়তে পারে। স্ট্রোক হওয়ার পর সাড়ে চার ঘণ্টা হল গোল্ডেন আওয়ার। এর মধ্যে ইন্টারভেনশন পদ্ধতির সাহায্যে মস্তিষ্কের রক্তবাহী ধমনীর রক্তপ্রবাহ স্বাভাবিক করে দিতে পারলে রোগীর স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে সময় লাগে না। কিন্তু দেরি হলেই বিপদ।

Why You Should Take Heed of the Warning From a 'Mini-Stroke' – Health  Essentials from Cleveland Clinic

গবেষকরা বলছেন, চোখের রেটিনার অবস্থা, হাল-হকিকত দেখে এই স্ট্রোকের আগাম আভাস পাওয়া যেতে পারে। রেটিনার রক্তনালীগুলির অবস্থা কেমন, চোখে রক্তপ্রবাহ কেমন হচ্ছে তা পরীক্ষা করে স্ট্রোকের পূর্বাভাস দেওয়া যেতে পারে। যদি দৃষ্টি ঝাপসা হতে থাকে আর পরীক্ষায় রেটিনোপ্যাথি ধরা পড়ে তাহলে সঙ্গে সঙ্গে চিকিৎসা শুরু করতে হবে। বুঝতে হবে, রোগী ডায়াবেটিস বা উচ্চরক্তচাপ, হাই-কোলেস্টেরলের শিকার। এইসব ক্ষেত্রেই ব্রেন-স্ট্রোকের শঙ্কা বেশি।

dementia patient financial plan: How to put your money matters in order if  dementia strikes - The Economic Times

ডিমেনশিয়া বা স্মৃতিনাশের ক্ষেত্রেও ব্যাপারটা একইরকম। মার্কিন ‘ন্যাশনাল আই ইনস্টিটিউট’-এর গবেষকরা বলছেন, রক্তচাপ বাড়তে থাকলে হৃদরোগ ও মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণের আশঙ্কা বেড়ে যায়। ব্রেনের কগনিটিভ ফাংশন বিগড়ে যায়। তখন স্মৃতিশক্তি চলে যাওয়া বা ডিমেনশিয়ার সম্ভাবনা বাড়তে থাকে। রক্তচাপ বাড়লে মস্তিষ্কে অক্সিজেনযুক্ত রক্তচলাচল কমে যায়। এতে ভুলে যাওয়ার ঝুঁকি বাড়ে। পরবর্তীকালে সেটাই অ্যালঝাইমারের কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। এই ডিমেনশিয়ারও পূর্বাভাস দিতে পারে চোখ। কারণ রক্তচাপ বাড়লে চোখের রক্তবাহিনালীগুলি সরু ও শক্ত হতে থাকে। রক্ত চলাচল বাধা পেয়ে চোখ ফুলে যায়। এই লক্ষণ দেখেই সতর্ক হওয়া যায়।

You might also like