Latest News

গরম জল চুলের জন্য উপকারী না ক্ষতিকারক! জেনে নিন বিশেষজ্ঞের মত

দ্য ওয়াল ব্যুরো: শীতকালে সারাদিনের কাজের পর গরম জলে হালকা গা ধুয়ে ফেললে স্ট্রেস যেন কোথায় পালিয়ে যায়। কিন্তু অতিরিক্ত গরম জলে বারবার স্নান করতে নিষেধ করছেন নিউ দিল্লির রয়্যাল লাস ক্লিনিকের ডঃ সায়েদ। অতিরিক্ত গরম চুল, ত্বকের জন্য খুব একটা উপকারী নয়। একদিকে যেমন ত্বক রুক্ষ, শুষ্ক করে তোলে। তেমনই চুলের উপরেও একই প্রভাব পড়ে।

ডঃ সায়েদ বলছেন, আজকাল সারাবছর ধরেই চুল পড়ার সমস্যায় অধিকাংশ মেয়ে ভোগেন। কিন্তু শীতে অন্যান্য সময়ের তুলনায় বেশি চুল পড়লে, সেটা গরম জলের কারণে হতে পারে। চুল ধোওয়ার সময় গরম জল ব্যবহার করলে রুক্ষ হয়ে যায়। শ্যাম্পু করার একদিন পরেই চুল আরও বেশি আঠা আঠা হয়ে যেতে পারে। চুলের গোড়া নরম আর দুর্বল হয়ে যেতে পারে।‌ সেই থেকেই চুল পড়ার সমস্যা শুরু হয়। শীতে চুল ধোওয়ার জন্য গরম জলের পরিবর্তে ঈষদুষ্ণ জলে চুল ধুতে বলছেন তিনি।

গরম জলে স্নান করলে, বা চুল ধুলে স্ক্যাল্পের রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি পায়। চুলের গোড়ায় ময়লা জমে থাকলে, সেটাও তৎক্ষণাৎ চলে যায়। তবে এর ক্ষতিকারক দিকও আছে।

১. স্ক্যাল্পের ন্যাচারাল অয়েলের ভারসাম্য নষ্ট হয়।

২. চুলের গোড়া আরও শুষ্ক করে তোলে। ফলে খুসকির সমস্যা দেখা দেয়।

৩. চুলের গোড়া নরম এবং দুর্বল করে তোলে। ফলে চুল পড়ার সমস্যা আরও বেড়ে যায়।

৪. চুলের স্বাভাবিক গঠন নষ্ট করে দেয়। ফলে ডগা ভেঙে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

একইসঙ্গে ঠান্ডা জলে চুলে কী কী হতে পারে, সেটা নিয়েও আলোচনা করেছেন ডঃ সায়েদ।

১. নর্মাল বা ঠান্ডা জলে চুল ধুলে, চুল আরও বেশি স্বাস্থ্যোজ্জ্বল দেখায়।

২. রুক্ষ চুল আরও বেশি স্মুদ আর ঝকঝকে দেখায়।

৩. ডগা ফাটার সমস্যাও হয় না।

৪. রক্ত সঞ্চালন বাড়িয়ে তোলে, ফলে নতুন চুল গজায়।

৫. অন্যদিকে চুলের ঘনত্ব কম দেখাতে পারে ঠান্ডা জলে স্নান করলে। পাতলা চুলের সমস্যা থাকলে ঠান্ডা জলে স্নান করতে নিষেধ করছেন তিনি।

You might also like