ভাইপো না বলে নাম বলুন, ছাত্র-যুবর নয়নের মণিকে ভয় কেন: কৈলাসকে বিঁধলেন কুণাল

৯৫৬

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো: গত কয়েকদিনে ধরেই তৃণমূল ভবনে পালা করে সাংবাদিক বৈঠক করছেন শাসকদলের নেতারা। আজ রবিবার ছিল রাজ্যসভার প্রাক্তন সাংসদ কুণাল ঘোষের দিন। সেই সাংবাদিক বৈঠক থেকে বিজেপির সর্বভারতীয় সম্পাদক তথা বাংলার দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয়কে তীব্র আক্রমণ করলেন কুণাল।

শনিবার সাংবাদিক বৈঠক করে কৈলাস আক্রমণ শানিয়েছিলেন ‘ভাইপো’র বিরুদ্ধে। পাল্টা এদিন কুণাল বলেন, “ক্ষমতা থাকলে, হিম্মত থাকলে, এক বাপের বেটা হলে ভাইপো না বলে নাম করে বলুন।” তিনি আরও বলেন, “গতকাল কৈলাস বিজয়বর্গীয় একের পর এক মিথ্যে আক্রমণ করেছেন। আমাদের সাংসদ, আমাদের যুব নেতাকে নিয়ে ব্যক্তিগত আক্রমণ করেছেন। তাঁর চরিত্রহনন করার চেষ্টা করছেন। ছাত্র-যুব সমাজের নয়নের মণিকে আপনারা আক্রমণ করছেন। তরতাজা এক জন নেতাকে ভয় কীসের?” তাঁর কথায়, “রাজীব গান্ধীকেও এক সময় এই ভাবে ব্যক্তিগত আক্রমণ করা হয়েছিল।”

এখানেই থামেননি কুণাল। তিনি বলেন, “বাংলার একটি ছেলে পড়াশোনা করার পর, ব্যবসা করার পর যদি সংগঠন করেন, কাজ করেন তাহলে এত ব্যক্তিগত আক্রমণ কেন? ২০১৬-র কথা মনে আছে? বলেছিলেন ভাগ মুকুল ভাগ। তখন কেন বলেননি, ভাগ ভাতিজা ভাগ?”

এরপর কৈলাসের ছেলে আকাশ বিজয়বর্গীয়কে নিয়েও আক্রমণ করেন তিনি। বলেন, “আকাশ বিজয়বর্গীয়কে চেনেন কৈলাস বিজয়বর্গীয়? আপনার ছেলে মধ্যপ্রদেশে ব্যাট দিয়ে পুরসভার কর্মীদের মেরে ছিল। আর আপনি এখানে এসে বড় বড় কথা বলছেন! দম থাকলে ভাতিজা না বলে নাম নিয়ে কথা বলুন। হ্যাঁ আমি নাম নিয়ে বলছি আপনার ছেলে গুন্ডা।”

বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু কুণালের সাংবাদিক বৈঠকের প্রতিক্রিয়ায় বলেছেন, “শুধু ভাইপো বলতেই তৃণমূল তেলেবেগুনে জ্বলে উঠছে। সাংবাদিক বৈঠক ডাকছে। এরপর নাম বললে তো ধর্মতলায় ধর্না দিতে বসে পড়বে দেখছি!” তাঁর কথায়, “ভাইপো বললেই বাংলার মানুষ বোঝেন কার কথা বলা হচ্ছে। নাম বলার দরকার নেই।” সায়ন্তন রসিকতা করে বলেন, “এত দিন জানতাম কানাকে কানা, খোঁড়াকে খোঁড়া বলতে নেই। এখন তো দেখছি ভাইপোকে ভাইপোও বলা যাবে না, কী জ্বালা!”

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More