ইডেনের আন্ডার গ্যালারিতে কোয়ারান্টাইন সেন্টার করতে চায় কলকাতা পুলিশ

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো : অতিমহামারীর সময় ডিউটি করতে গিয়ে যে পুলিশকর্মীরা করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন, তাঁদের জন্য জরুরি ভিত্তিতে ইডেন গার্ডেনসের আন্ডার গ্যালারিতে কোয়ারান্টাইন সেন্টার করতে চায় কলকাতা পুলিশ। সেজন্য শুক্রবার কলকাতা পুলিশের তরফে ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন অব বেঙ্গল (সিএবি)-কে অনুরোধ করা হয়েছে। এদিন লালবাজারে সিএবি-র কর্তাদের সঙ্গে পুলিশের জরুরি বৈঠক হয়। তারপর সিএবি ও পুলিশের প্রতিনিধিরা যৌথভাবে ইডেন গার্ডেনস পরিদর্শন করেন। সেই সময় উপস্থিত ছিলেন সিএবি-র প্রেসিডেন্ট অভিষেক ডালমিয়া এবং অনারারি সেক্রেটারি স্নেহাশিস গঙ্গোপাধ্যায়।

আপাতত স্থির হয়েছে, ইডেনের ই, এফ, জি এবং এইচ ব্লকে কোয়ারান্টাইন সেন্টার করা হবে। পরে যদি আরও জায়গা প্রয়োজন হয়, তাহলে জে ব্লকও নেওয়া হবে। নিরাপত্তার জন্য ইডেনের অন্যান্য অংশ থেকে পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন করে ফেলা হবে ওই ব্লকগুলিকে।

সিএবি-র প্রশাসনিক কার্যকলাপ চালানো হয় ক্লাব হাউস থেকে। সেজন্য ক্লাব হাউসের কাছে অবস্থিত বি, সি, ডি, কে এবং এল ব্লকে কোয়ারান্টাইন সেন্টার করা হচ্ছে না। অভিষেক ডালমিয়া এদিন বলেন, “সংকটের সময় প্রশাসনকে আমাদের সাহায্য করা উচিত। যাঁরা কোভিডের বিরুদ্ধে লড়াই করছেন সেই পুলিশকর্মীদের জন্য ইডেনে কোয়ারান্টাইন সেন্টার করা হচ্ছে। ই, এফ, জি, এইচ ও জে ব্লককে ইডেনের অন্যান্য অংশ থেকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলা হবে। ইডেনের যে এলাকায় প্রশাসনিক কাজকর্ম হয়, সেখানে যাতে কোনও অসুবিধা না হয়, সেদিকে নজর রাখা হবে।”

শুক্রবার জানা যায়, রাজ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ১১৯৮ জন। এ পর্যন্ত এটাই ২৪ ঘণ্টায় সর্বাধিক বৃদ্ধি। একইসঙ্গে রাজ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ২৬ জনের। সুস্থ হয়েছেন ৫২২ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় মোট আক্রান্তের অর্ধেকের বেশি দুটি জেলায়। কলকাতা ও উত্তর ২৪ পরগনায়। কলকাতায় করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৩৭৪ জন। উত্তর ২৪ পরগনায় ৩২৮ জন। ২৪ ঘণ্টায় মোট মৃত্যুর অর্ধেক কলকাতাতেই। মহানগরে কোভিডের কারণে মৃত্যু হয়েছে ১৩ জনের। উত্তর ২৪ পরগনায় মৃত্যু হয়েছে ৬ জনের।

এদিন রাজ্যে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ২৭ হাজার ১০৯ জন। মোট সুস্থ হয়ে ওঠার সংখ্যা ১৭ হাজার ৩৪৮ জন। মোট মৃত্যু হয়েছে ৮৮০ জনের। এই মুহূর্তে কোভিড-১৯ সক্রিয় রয়েছে আট হাজার ৮৮১ জনের শরীরে।

রাজ্যের তিন জেলায় গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন সংক্রামিতের খোঁজ মেলেনি। সেই জেলাগুলি হল, কালিম্পং, পুরুলিয়া এবং ঝাড়গ্রাম। এদিন ঝাড়গ্রামের ছ’জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। ফলে জঙ্গলমহলের এই জেলায় ফের করোনা অ্যাকটিভ সংখ্যা শূন্য হয়ে গিয়েছে।

কলকাতা ও উত্তর ২৪ পরগনার পরে গত ২৪ ঘণ্টায় সবচেয়ে বেশি সংক্রামিতের হদিশ মিলেছে হাওড়ায়। সেখানে ১৩০ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। তা ছাড়া দক্ষিণ ২৪ পরগনায় করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ১০৪ জন ও হুগলিতে ৭১ জন।

উত্তরবঙ্গের জেলাগুলিতেও সংক্রমণের হারে বিশেষ কোনও বদল নেই। সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয়েছেন মালদহে, ৪৯ জন। তারপর দার্জিলিং, ২৮ জন।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More