বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ১৭

কর্ণাটকের সরকার থাকবে না যাবে? নির্ভর করছে স্পিকারের ওপরে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কর্ণাটকে শাসক কংগ্রেস ও জেডি এস জোটের ১৩ জন বিধায়ক রেজিগনেশন লেটার জমা দিয়েছেন। স্পিকার রমেশ কুমার মঙ্গলবার ইস্তফাপত্রগুলি খতিয়ে দেখবেন। তিনি যদি ইস্তফা গ্রহণ করেন, তাহলে নিশ্চিতভাবেই সরকার সংখ্যালঘু হয়ে পড়বে। বিজেপির সামনে সরকার গঠনের সুযোগ আসবে।

সরকার বাঁচাতে দু’টি পথ নিচ্ছে শাসক জোট। প্রথমত, তারা ইস্তফা ঠেকাতে আইনের পথে যাওয়ার কথা ভাবছে। দ্বিতীয়ত বিক্ষুব্ধ বিধায়কদের মন্ত্রী করার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। সেজন্য সোমবারই মুখ্যমন্ত্রী এইচ ডি কুমারস্বামী বাদে বাকি সব মন্ত্রী ইস্তফা দিয়েছেন। কিন্তু গত মাসেই দুই নির্দল বিধায়কের বিক্ষোভ সামলাতে তাঁদের মন্ত্রী করা হয়েছিল। তাঁরা জোট ভেঙে বিজেপির পক্ষে যোগ দিয়েছেন। এই অবস্থায় মন্ত্রী করার প্রস্তাব দিয়ে ১৩ জনকে ফের শাসক জোটে ফেরানো যাবে কিনা, তাতে সন্দেহ আছে পর্যবেক্ষকদের।

গত শনিবার কংগ্রেস ও জেডিএসের ১১ জন বিধায়ক স্পিকারের অফিসে রেজিগনেশন লেটার জমা দেন। তখন স্পিকার অফিসে ছিলেন না। তিনি জানিয়েছেন, সংবিধান অনুযায়ী কাজ করবেন। তাঁর কথায়, এখনও পর্যন্ত কোনও বিধায়ক আমার সঙ্গে দেখা করতে চাননি। কেউ যদি দেখা করতে চান, আমার অফিসে আসতে পারেন।

তিনি যদি বিদ্রোহীদের ইস্তফা গ্রহণ করেন, তাহলে ২২৪ সদস্যের বিধানসভায় কংগ্রেস-জেডি এস জোটের বিধায়কের সংখ্যা ১১৮ থেকে কমে হবে ১০৩। সেই অবস্থায় বিধানসভায় গরিষ্ঠতা পেতে গেলে লাগবে ১০৫ টি আসন। বিজেপির ১০৫ টি আসনই আছে। তার ওপরে তারা দুই নির্দল বিধায়কেরও সমর্থন পাচ্ছে।

যে বিধায়কেরা ইস্তফাপত্র জমা দিয়েছেন, তাঁদের চ্যাটার্ড বিমানে মুম্বইয়ে উড়িয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তাঁরা ছিলেন পাঁচ তারা সফিটেল হোটেলে। হোটেলের সামনে যুব কংগ্রেসের সদস্যরা বিক্ষোভ দেখায়। পরে বিধায়কদের সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে কোনও অজ্ঞাত স্থানে। যতদূর জানা গিয়েছে, তাঁদের মুম্বইয়ের বাইরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

সরকার পক্ষের আরও বিধায়ক যাতে ইস্তফা না দিতে পারেন, সেজন্য জেডি এস তার এমএলএ-দের সরিয়ে নিয়ে গিয়েছে বেঙ্গালুরু থেকে। কোদাগুতে প্যাডিংটন রিসর্টে ৩৫ টি ঘর ভাড়া করে তাঁদের রাখা হয়েছে।

এখনও পর্যন্ত ১০ জন কংগ্রেসী বিধায়ক ইস্তফাপত্র জমা দিয়েছেন। রোশন বেগ নামে এক বিধায়ক দলের নেতাদের ভাঁড় বলে বিদ্রুপ করেছিলেন। দলবিরোধী কাজের জন্য গত মাসেই তাঁকে সাসপেন্ড করা হয়েছে।

Comments are closed.