শুক্রবার, জানুয়ারি ১৮

গণতন্ত্রের স্বার্থে সংসদে আসুন, বিএনপিকে আহ্বান হাসিনার

দ্য ওয়াল ব্যুরো : বাংলাদেশে একাদশ সাধারণ নির্বাচনকে প্রহসন বলেছে বিরোধী বিএনপি জোট। বিরোধীদের মধ্যে যাঁরা ভোটে জিতেছেন, সংসদেই আসছেন না তাঁরা। শনিবার বিএনপির সাংসদদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আহ্বান জানালেন, গণতন্ত্রের স্বার্থে সংসদে আসুন। গঠনমূলক প্রক্রিয়ায় অংশ নিন।

তাঁর কথায়, বিএনপি নির্বাচনে পরাজয়কে মেনে নিক। গণতন্ত্রের স্বার্থেই সংসদে আসুক।

এদিন হাসিনা আওয়ামি লিগের কেন্দ্রীয় অফিসে ভাষণ দেন। তিনি বিএনপি সম্পর্কে বলেন, তাদের যথাযথ নেতৃত্ব নেই। তারা দেশের স্বাধীনতার বিরুদ্ধে। ধ্বংসাত্মক রাজনীতি করাই তাদের কাজ। সেজন্যই পার্টির এই হাল। সবদিক বিবেচনা করে বিএনপির এখন গণতান্ত্রিক পথে ফিরে আসা উচিত।

বিরোধীরা কেন ভোটে কম আসন পেয়েছে, সে সম্পর্কে তিনি বলেন, বিএনপি নেতৃত্বাধীন ঐক্যফ্রন্ট ঠিক করতে পারেনি কে তাদের নেতা হবেন। তারা খুনের রাজনীতি করে মানুষের সমর্থন হারিয়েছে। আত্মগোপন করে থাকা লোকজনদের দিয়ে তারা পার্টি চালিয়েছে। সেজন্যই মানুষ তাদের সমর্থন করেনি।

হাসিনার মতে, এবারের ভোটে সবচেয়ে লক্ষণীয় বিষয় ছিল ভোটারদের উৎসাহ। বিশেষত যুবক ও মহিলাদের উৎসাহ ছিল সবচেয়ে বেশি।

তাঁর দাবি, এবারের ভোটে কয়েকটি জায়গায় বিএনপি এবং জামাত ব্যালট পেপার ছিনতাই করেছে, নির্বাচন বানচাল করার চেষ্টাও করেছে। কিন্তু তা সত্ত্বেও ভোট ছিল মোটের অপর শান্তিপূর্ণ। বিএনপি নির্বাচনে হেরে গিয়েছে। সেজন্য তাদের নিজেদেরই দোষ দেওয়া উচিত।

আওয়ামি লিগকে বিপুল ভোটে জেতানোর জন্য বাংলাদেশের মানুষকে ধন্যবাদ দেন হাসিনা। তাঁর কথায়, মানুষ আমাদের ওপরে আস্থা রেখেছেন। এতে আমাদের দায়িত্ব আরও বেড়ে গেল। আমাদের মাথায় এখন একটিই বিষয় আছে। উন্নয়নের কর্মসূচি বাস্তবায়িত করতে হবে। তাতে মানুষের আর্থসামাজিক অবস্থা উন্নত হবে। আমাদের ভাবতে হবে, কী ধরণের কর্মসূচি নিলে মানুষের জীবনযাত্রার মান উন্নত হতে পারে।

সরকারের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা সম্পর্কে তিনি বলেন, আগামী দিনে গ্রামের মানুষ শহরের মতোই নানা সুযোগ-সুবিধা পাবেন। জনগণের বিভিন্ন অংশের মধ্যে আয়ের বৈষম্য কমিয়ে আনা হবে। তৃণমূল স্তরের মানুষের উন্নতির জন্য চেষ্টা করবে সরকার।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা করেন, তাঁর সরকার ২০২০ সালের মার্চ থেকে ২০২১ সালের মার্চ পর্যন্ত বিশ্ব জুড়ে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও বঙ্গবন্ধু মুজিবর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী পালন করবে। দেশের জনগণ যে আওয়ামি লিগকে এই দু’টি অনুষ্ঠান করার সুযোগ দিয়েছেন, সেজন্য তিনি তাঁদের ধন্যবাদ দেন।

Shares

Comments are closed.