বুধবার, অক্টোবর ১৬

ইদ সামলে চ্যালেঞ্জ ১৫ অগস্ট, কাশ্মীরে বাসিন্দারাই ভরসা পুলিসের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: গত কয়েকদিনের থমথমে ভাবটা একটু হলেও কমেছিল এদিন। ইদের সকাল থেকে অনেকটাই চেনা রূপে দেখা গিয়েছে উপত্যকাকে। ভিড় বেড়েছে পথে। ইদগাহে প্রার্থনার জন্য জড়ো হন মানুষ। বিনা গোলমালে মিটল ইদ-পর্ব। আর তারপরেই নতুন চ্যালেঞ্জ– স্বাধীনতা দিবস। নির্বিঘ্নে ১৫ অগস্ট পালন করতে এখন কাশ্মীরের স্থানীয় বাসিন্দাদের উপরেই নির্ভর করছে পুলিশ, প্রশাসন।

ইতিমধ্যেই কাশ্মীরের বাসিন্দাদের কাছে যে কোনও সন্দেহজনক কিছু দেখতে পেলে পুলিশকে খবর দেওয়ার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। বলা হয়েছে কোনও সন্দেহজনক ব্যক্তি বা দ্রব্য কোথাও দেখলেই যেন পুলিশকে খবর দেওয়া হয়।

একই সঙ্গে কোনও রকম অস্ত্রশস্ত্র বহন করার উপরেও নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। রেডিও, কোনও রকম পাউডার, সিগারেট, দেশলাই, লাইটার ক্যামেরাও হাতে নিয়ে রাস্তায় ঘোরা যাবে না। যে কোনও জায়গায় পুলিশ যদি পরিচয় জানতে চায় সেটাও জানাতে হবে।

গত এক সপ্তাহ ধরেই, জম্মু-কাশ্মীরের কার্ফু-নিষেধাজ্ঞা চলছে। সোমবার ইদের সকালে কিছুটা শিথিল হলেও মসজিদে প্রার্থনা শেষ হতেই থমথমে পরিবেশ ফিরে আসে উপত্যকায়। শুনশান হয়ে যায় রাস্তাঘাট। অনেক জায়গাতেই নতুন করে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

রবিবারও, শ্রীনগরে কার্ফু জারি করা হয়েছিল। ইদের দিন সোমবার তা তুলে নেওয়া হয়। তবে, এ দিন বড়ো জমায়েত করে প্রার্থনার অনুমতি দেওয়া হয়নি। তার বদলে স্থানীয় মসজিদেই প্রার্থনা সারেন সাধারণ মানুষ। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে, অনন্তনাগ, বদগাম, বারামুলা ও বন্দিপোরের সর্বত্র নির্বিঘ্নে প্রার্থনা মিটেছে। বারামুলার জামিয়া মসজিদে প্রায় ১০ হাজার মানুষের জমায়েত হয়েছিল বলেও দাবি করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক।

Comments are closed.