সোমবার, এপ্রিল ২২

জালিয়ানওয়ালাবাগ: ব্রিটিশ দূতের দাদুর বাবা তখন প্রধানমন্ত্রী, তিনিও শিউরে উঠেছিলেন

দ্য ওয়াল ব্যুরো: আজ সেই অভিশপ্ত ১৩ এপ্রিল। ১০০ বছর আগে জালিয়ানওয়ালাবাগে এই দিনেই বিনা অপরাধে মারা গিয়েছিলেন অসংখ্য ভারতীয়। নেতৃত্বে ছিল ব্রিটিশ সরকার। ব্রিটেনের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রীও শিউরে উঠেছিলেন এই ঘটনায়। হতবাক হয়ে বলেছিলেন, “এ যে হিংসার ভয়াবহ বহিঃপ্রকাশ।“

জালিয়ানওয়ালাবাগ হত্যাকাণ্ড। কেউ বলেছেন ‘ইটস এ ম্যাসাকার’। কারও কথায়, ‘ব্রিটিশ শাসনের সবচেয়ে ন্যক্কারজনক ঘটনা।‘ ইতিহাসের পাতায় জালিয়ানওয়ায়ালাবগের প্রতিশব্দ ‘ব্রিটিশ শাসনের লজ্জা’।

এই নারকীয় হত্যাকাণ্ডের জন্য সম্প্রতি দুঃখপ্রকাশও করা হয়েছে ব্রিটিশ পার্লামেন্টেও। ব্রিটেনের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী টেরেসা মে এবং প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনও কড়া ভাষায় সমালোচনা করেছেন এই ঘটনার। যদিও ব্রিটেনের প্রধান বিরোধী দল লেবার পার্টির মতে, সেই অর্থে ভারতের কাছে ক্ষমা চায়নি ব্রিটিশ সরকার। কারণ এখনও লিখিতভাবে ক্ষমা চায়নি ব্রিটিশ প্রশাসন।

কিন্তু এইসবের মাঝে পেরিয়ে গিয়েছে ১০০ বছর। তবে শতবর্ষ পরে জালিয়ানওয়ালাবাগ প্রসঙ্গে উঠে এসেছে নানান তথ্য।

শনিবার জালিয়ানওয়ালাবাগের শতবর্ষপূর্তি অনুষ্ঠানে অমৃতসরে জালিয়ানওয়ালাবাগ মেমোরিয়ালে গিয়েছিলেন ভারতের বর্তমান ব্রিটিশ হাই কমিশনার ডমিনিক অ্যাসকুইথ। সেখানেই সেদিনের নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে তিনি বলেছেন, “ব্রিটিশ ইতিহাসের সবচেয়ে লজ্জাজনক ঘটনা এই জালিয়ানওয়ালাবাগ হত্যাকাণ্ড।“তিনি আরও বলেন, “এই ঘটনার জন্য ব্রিটেন গভীর ভাবে শোকপ্রকাশ করছে। আমরা গর্বিত যে একুশ শতকে ভারত এবং ব্রিটেনের মধ্যে বন্ধুত্বের সম্পর্ক রয়েছে।“

তবে কেবল ডমিনিক নন, তাঁর ঠাকুর্দার দাদু (great grandfather) এইচ এইচ অ্যাসকুইথও তীব্র ভাষায় নিন্দা করেছিলেন এই ঘটনার। একথা নিজেই জানিয়েছেন ডমিনিক। তিনি বলেন, ১৯০৮ থেকে ১৯১৬ –দীর্ঘ আট বছর তাঁর great grandfather ছিলেন তৎকালীন ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী। জালিয়ানওয়ালাবাগের ঘটনা প্রসঙ্গে তিনিও বলছিলেন, “ব্রিটিশ শাসনের অন্যতম নিন্দনীয়, নৃশংস ঘটনা। হিংসার নিকৃষ্টতম বহিঃপ্রকাশ।“ শুধু ডমিনিক অ্যাসকুইথ কিংবা তাঁর প্র-পিতামহ নন, ইতিহাসের এই নৃশংস হত্যাকাণ্ডকে মেনে নিতে পারেননি কুইন এলিজাবেথও (দ্বিতীয়)। জালিয়ানওয়ালাবাগের হত্যাকাণ্ডকে ভারতে ব্রিটিশ শাসনের কলঙ্কের অধ্যায় বলেই অভিহিত করেন রানি।

আজ থেকে ঠিক ১০০ বছর আগে ১৯১৯ সালের ১৩ এপ্রিল অমৃতসরের জালিয়ানওয়ালাবাগে একটি প্রতিবাদ সমাবেশে ব্রিটিশ জেনারেল ডায়ারের নেতৃত্বে সমবেত জনতার ওপর টানা ১০ মিনিট গুলি চালানো হয়। গুলি চালানোর আগে জালিয়ানওয়ালাবাগ চত্বরের মূল ফটক বন্ধ করে দিয়েছিল ব্রিটিশ সেনারা। ওই চত্বরটি থেকে বেরনোর মাত্র দুটি সরু রাস্তা ছিল। একটি আটকে রাখে ব্রিটিশ সেনা। অন্য মুখে ছিল তালাবন্ধ লোহার দরজা। বহু মানুষ প্রাণ বাঁচাতে পাশের একটি কুয়োতে ঝাঁপ দিয়েছিলেন। পরিসংখ্যান বলছে, গুলি চলেছে ১৬৫০ রাউন্ড। নিমেষে ঝাঁঝরা হয়ে গিয়েছিলেন অসংখ্য নারী-পুরুষ-শিশু। মাত্র ১০ মিনিটেই শ্মশান হয়ে যায় জালিয়ানওয়ালাবাগ। সে সময় ব্রিটিশ তদন্তে বলা হয়েছিল মৃত্যু হয়েছে ৩৭৯ জনের। তবে পরবর্তী সময়ে ভারতীয় ইতিহাসবিদদের অনেকেই বলেছেন মৃতের সংখ্যা ছিল এক হাজারের বেশি।

Shares

Comments are closed.