মঙ্গলবার, নভেম্বর ১২

চন্দ্রপৃষ্ঠের উজ্জ্বল ছবি প্রকাশ করল ইসরো

দ্য ওয়াল ব্যুরো: চন্দ্রপৃষ্ঠের উজ্জ্বল ছবি প্রকাশ করল ভারতের মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্র ইসরো। টুইট করে তারা এই ছবি প্রকাশ করেছে। চন্দ্রযান টু-তে থাকা পে লোডারের বিশেষ ইনফ্রারেড ক্যামেরার সাহায্যে ছবিগুলি তোলা হয়েছে। এই ধরনের ক্যামেরাকে বলা হয় ইমেজিং ইনফ্রারেড স্পেকটোমিটার। চাঁদের উত্তর গোলার্ধের বেশ দূরের অংশের ছবি তুলে পাঠিয়েছে চন্দ্রযান ২।

বিবৃতিতে ইসরো জানিয়েছে, চাঁদের পৃষ্ঠ থেকে সূর্যের আলো প্রতিফলিত হয় এবং চন্দ্রপৃষ্ঠ থেকে যে চাঁদের দীপ্তি বার হয়ে আসে তা পরিমাপ করে ছবি তুলতে পারে ইমেজিং ইনফ্রারেড স্পেকটোমিটার বা আইআইআরএস।

চন্দ্রযান ২-তে পাঠানো ল্যান্ডার বিক্রমকে সফট ল্যান্ডিং করাতে চেষ্টার ত্রুটি করেনি ইসরো, যদিও শেষ মুহূর্তে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ায় সেই স্বপ্ন পুরোপুলি সফল হয়নি। বিক্রম চাঁদে নামে ঠিকই, তবে কাজ করাতে পারেনি। বিক্রমের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেছিল মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসাও। যদিও শেষ পর্যন্ত যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

বিশেষ ক্যামেরায় তোলা ছবি বিশ্লেষণও করেছে নাসা। এই ছবিপ জানা  বিশ্লেষণ করে শুধু যে চাঁদের পৃষ্ঠের প্রাকৃতিক রূপ জানা গেছে তা নয়, বিচ্ছুরিত রশ্মি বিশ্লেষণ করে জানা সম্ভব চাঁদ কী উপাদানে তৈরি, অর্থাৎ চাঁদের কোথায় কী খনিজ থাকতে পারে। চন্দ্রপৃষ্ঠের বিভিন্ন অংশ, যেমন মারফিল্ড, স্টেবিনস এবং কির্কউডের অবতল অংশের ছবি দেখে বিজ্ঞানীরা বুঝেছেন, উপযুক্ত ভাবেই বিশ্লেষণ করতে পারছে আইআইআরএস। চন্দ্রপৃষ্ঠ থেকে বিচ্ছুরিত রশ্মির বর্ণচ্ছটা বিশ্লেষণ করে চন্দ্রপৃষ্ঠ সম্পর্কেও অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিতে পেরেছে আইআইআরএস।

পৃথিবীর প্রথম দেশ হিসাবে চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে নামার কৃতিত্ব অর্জন করার জন্য ১০০০ কোটি টাকারও বেশি খরচ করেছে ভারত। কাজে ত্রুটি থাকার জন্যই বিক্রম সফট ল্যান্ডিংয়ে ব্যর্থ হয়েছে বলে দূরর্শনকে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে জানান নাসার নির্দেশক কে শিবন।

সাতমহলা আকাশের নীচে

Comments are closed.