ইস্টবেঙ্গলে এলেন আইরিশ মিডফিল্ডার ও প্রিমিয়ার লিগের স্ট্রাইকার

৩৩

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো : ঝুলি থেকে ধীরে ধীরে সব তাস বের করছে ইস্টবেঙ্গল। এতদিন তাদের নানা টানাপোড়েন ছিল, সেগুলি মিটতেই সই পর্ব মিটিয়ে নিতে চলেছে লাল হলুদ ক্লাব।

ইতিমধ্যেই অবশ্য ভারতীয় ফুটবলারদের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ করে নিয়েছিল শ্রী সিমেন্ট ইস্টবেঙ্গল। এবার কোচ রবি ফাউলারকে চূড়ান্ত করার সঙ্গে সঙ্গেই তারা বিদেশী নিয়োগে ব্যস্ত হয়ে গিয়েছে। এর আগে তারা সই করিয়েছে স্কট নেভিলকে। তিনি অস্ট্রেলিয়ার বিসব্রেন রোয়ার ক্লাব থেকে আসছেন।
এই ক্লাবেই শেষ কোচিং করিয়েছেন কোচ ফাউলার। তাঁর সঙ্গে ইস্টবেঙ্গলের চুক্তির সময় বলাই ছিল, তিনি অস্ট্রেলিয়ার এ লিগ খেলা ক্লাব থেকে নামী ফুটবলারদের নিয়ে আসবেন। সেই হিসেবেই নেভিলেকে এক বছরের লোনে পেয়েছে লাল হলুদ।

শনিবারই ক্লাবের তরফে আরও দুই বিদেশীকে নিয়োগ চূড়ান্ত করেছে। তাঁরা হলেন আইরিশ মিডফিল্ডার অ্যান্টনি পিলকিঙটন ও প্রিমিয়ার লিগে খেলা ওয়েলসের নামী স্ট্রাইকার অ্যারণ জসুয়া আমাডি হলোওয়ে। পিলকিঙটন ১৪ বছরের ফুটবলার জীবনে পুরোটাই ইংলিশ লিগে খেলেছেন। মোট ৪০০ টির মতো ক্লাব ম্যাচ খেলে গোল করেছেন ৮৩টি।

৩২ বছরের এই তারকা প্রিমিয়ার লিগে নরউইচ সিটির হয়ে ২০১১ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত খেলেছেন। ৭৫টি ম্যাচে তাদের হয়ে ১৪টি গোল করেছিলেন। তিনি অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার, গোল করতেও সিদ্ধহস্ত। সব থেকে বড় কথা, তিনি উঠে এসেছেন ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেডের যুব অ্যাকাডেমি থেকে। তারপর তিনি কার্ডিফ সিটি ও গত মরসুমে খেলেছেন উইগান সিটির হয়ে।

তিনি ইস্টবেঙ্গলে যোগ দেওয়ার পরে এক প্রেস বিবৃতিতে জানিয়েছেন, ‘‘আমার ভাল লাগছে ভারতে এমন একটি ক্লাবে যাচ্ছি, তাদের বহু সমর্থক রয়েছে, তাদের আবেগ রয়েছে ফুটবল খেলাকে নিয়ে। আমি নিজেও রোমাঞ্চিত ভাল ফুটবল খেলার বিষয়ে, এটা আমার কাছে চ্যালেঞ্জের বলতে পারেন। জানি, আমাকে নিয়ে প্রত্যাশা থাকবে, আমি সেই প্রত্যাশা পূরণের চেষ্টা করব।’’
শুধু তাই নয়, আইরিশ এই ফুটবলার জানেন আইএসএলে তাঁর দল খেতাবের জন্য লড়বে, সেই কথা মনে রেখেই পরিষ্কার বলেন, ‘‘ইস্টবেঙ্গলকে চ্যাম্পিয়ন করার জন্য যা করণীয় আমাদের করতে হবে।’’

পিলকিঙটন ছাড়াও আরও এক নামী তারকা, তিনিও ওয়েসেলস-এর হয়ে প্রিমিয়ার লিগে খেলেছেন। সেই অ্যারণ বলেছেন, ‘‘আমি শুনেছি ভারতে যে কোনও মাঠে ফুটবল পাগল মানুষ খেলা দেখতে আসেন। হয়তো এই মুহূর্তে পরিস্থিতির জন্য ফাঁকা মাঠে খেলতে হবে। কিন্তু আমি অপেক্ষায় থাকব কলকাতায় ভরা গ্যালারির সামনে খেলা দেখানোর।’’

অ্যারণ যদিও শেষ মরসুমে খেলেছেন বিসব্রেন রোয়ার ক্লাবেই, যে দলের কোচ ছিলেন ফাউলার স্বয়ং। দুই ফুটবলারই ইতিমধ্যেই গোয়া চলে এসেছেন। তাঁরা হোটেলে কোয়ারেন্টিন পর্ব কাটিয়ে দলের সঙ্গে অনুশীলনে যোগ দেবেন।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More