রবিবার, সেপ্টেম্বর ১৫

৩৯ বউ, ৯৪ ছেলেমেয়ে, পৃথিবীর সবচেয়ে বড় পরিবার এই ভারতেই

দ্য ওয়াল ব্যুরো: পৃথিবীর সব থেকে বড় পরিবার রয়েছে মিজোরামে। পরিবারের প্রধান জিওনা চানা। তাঁর ৩৯ স্ত্রী ছাড়াও, ৯৪ সন্তান, ১৪ পুত্রবধূ এবং ৩৩ নাতি-নাতনি রয়েছে।

১৯৪৫ সালে বাংলাদেশ লাগোয়া মিজোরামের এক মধ্যবিত্ত পরিবারে জন্ম জিওনার। মাত্র ১৭ বছর বয়সে প্রথমবার বিয়ে। তিনি একটি বিয়ে করে সন্তুষ্ট থাকতে চাননি। জিওনা এর পরেও একের পর এক বিয়ে করেছেন। সব শেষে তাঁর স্ত্রীর সংখ্যা দাঁড়ায় ৩৯। এত স্ত্রী বিশ্বে আর কারও নেই। তিনি এক বছরে সর্বাধিক দশটি বিয়ে করার রেকর্ডও গড়েছেন। সব স্ত্রীই তাঁর সঙ্গে থাকেন।

জিওনার বাড়িটিও সংসারের মতোই বড়। ১০০ ঘরের বাড়ি। সব স্ত্রীর ঘরই তাঁর ঘরের পাশেপাশে। বিয়ের দিন অনুযায়ী তাঁরা দূরে বা কাছে থাকেন। অর্থাৎ, প্রথম স্ত্রী থাকে সবচেয়ে দূরে আর শেষ বিবাহ করা স্ত্রী জিওনার ঘরের একদম পাশে। তবে সবারই জিওনার ঘরে ঢোকার অনুমতি আছে।

একশ ঘরের বাড়ি।

জিওনার শুধু ৩৯ জন স্ত্রীই নয়, রয়েছে ৯৪ জন সন্তান ও ৩৩ জন নাতি নাতনি। সব ছেলেরাই জিওনার বাড়িতে নিজেদের স্ত্রী নিয়ে থাকেন। তবে জিওনা এখানে থামতে চাননি। জানিয়েছেন তার এই পরিবারকে আরও বড় করতে চান। তাই তিনি সব সময়ই একজন স্ত্রীকে পাশে রাখতে চান।

জিওনা ও তাঁর স্ত্রীরা।

জিওনার পরিবারে স্ত্রীদের ও ছেলেদের আলাদা ঘর থাকলেও হেঁসেল অর্থাত্‍ রান্নাঘর একটাই। অর্থাৎ, জিওনা-সহ ৩৯ জন স্ত্রী, ৯৪ জন ছেলে মেয়ে ও ৩৩ জনের খাবার এক সঙ্গেই হয়।

জিওনার পরিবারের প্রতিদিন ১০০ কেজি চাল আর ৭০ কেজির বেশি আলু রান্না হয়। আর যেদিন মাংস হয় সেদিন তো ৬০ কেজি আলু আর ৪০টির বেশি মুরগি লাগে। জিওনার ছেলেরা সবাই চাষের কাজ ও পশুপালন করায় পরিবারে খাদ্যের অভাব নেই মোটেও।

জিওনা একটি সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন, “আমি বিশ্বের সবচেয়ে বড় পরিবারের কর্তা হতে পেরে গর্বিত। আমি আরও বাড়াতে চাই এই পরিবার। আমার দেখভাল করার জন্য এখন অনেকেই রয়েছে। এটাই পরম শান্তির।”

তার পরিবারের সদস্যদের জন্য আলাদা স্কুলও বানিয়েছেন জিওনা। যেখানে তাঁর ছেলে-মেয়ে এবং নাতি-নাতিনিরা পড়াশোনা করেছে কিংবা করে। এখন সেই স্কুলটি সরকারের কিছু অনুদানও পায়।

Comments are closed.