শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২০

ভারতের সঙ্গে কথা বলার কোনও মানে হয় না : ইমরান

দ্য ওয়াল ব্যুরো : শপথ নেওয়ার দিন থেকে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলে আসছেন, তিনি ভারতের সঙ্গে আলোচনা চান। কিন্তু কিছুদিন আগে নিউ ইয়র্ক টাইমস সংবাদপত্রে সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ভারতের সঙ্গে কথা বলার কোনও মানে হয় না। আমি অতীতে তাদের সঙ্গে কথা বলতে চেয়েছি। দুই দেশের সীমান্তে শান্তি চেয়েছি। দুর্ভাগ্যের বিষয়, তারা ভেবেছে আমি তাদের খুশি করতে চাইছি।

জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ সুবিধা লোপ করার পরেই ভারতের বিরুদ্ধে গরম গরম মন্তব্য করে চলেছে পাকিস্তান। বৃহস্পতিবারই ইমরান টুইট করে বলেন, ভারত যদি ফলস ফ্ল্যাগ আক্রমণ চালায়, পাকিস্তান পালটা জবাব দিতে বাধ্য হবে।

কাকে বলে ফলস ফ্ল্যাগ অপারেশন?

অনেক সময় কোনও সেনাবাহিনী যুদ্ধের আগে নিজের দেশেই ছদ্মবেশে হামলা চালায়। তারপর মিথ্যা করে বলে, শত্রু দেশ এই কাজ করেছে। তারপর সেই দেশে হামলা করে। অর্থাৎ কোনও দেশের বিরুদ্ধে হামলা চালানোর জন্য মিথ্যা অজুহাত খাড়া করার নাম ফলস ফ্ল্যাগ অপারেশন।

ত্রুকে ধোঁকা দেওয়ার এই পদ্ধতি বহুকাল ধরে প্রচলিত। ফলস ফ্ল্যাগ নামটি অবশ্য এসেছে জলদস্যুদের থেকে। তারা অনেক সময় নিজেদের জাহাজে কোনও দেশের পতাকা তুলে রাখত। সমুদ্রে দুর থেকে দেখে অন্য জাহাজ বুঝতে পারত না ওই জাহাজে জলদস্যুরা আছে। সেই সুযোগে দস্যুরা সেই জাহাজের কাছে গিয়ে আক্রমণ চালাত।

বর্তমানে জল, স্থল ও আকাশযুদ্ধে ফলস ফ্ল্যাগ আক্রমণ চালানো হয়। সাইবার দুনিয়াতেও ফলস ফ্ল্যাগ কথাটি পরিচিত। কেউ নিজের পরিচয় গোপন রেখে অপরের অ্যাকাউন্ট হ্যাক করলে, গোপন তথ্য চুরি করলে তাকে ফলস ফ্ল্যাগ অপারেশন বলা হয়।

পাকিস্তান বহুবারই দাবি করেছে, ভারত জঙ্গি হামলার অজুহাত দিয়ে তাদের ওপরে হামলা চালানোর ছক কষছে। তারা জঙ্গিদের মদত দেওয়ার কথা স্বীকার করে না। তাদের দাবি, কাশ্মীর এবং ভারতের অন্যান্য প্রান্তে জেহাদি কার্যকলাপের যা অভিযোগ ওঠে, তার বেশিরভাগ মিথ্যা। পাকিস্তানের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করে তাদের আক্রমণের একটা অজুহাত খাড়া করতে চায় ভারত। টুইটারে ফলস ফ্ল্যাগ অভিযানের কথা বলে ইমরান কার্যত আগের অভিযোগেরই পুনরাবৃত্তি করেছেন।

Comments are closed.