শনিবার, সেপ্টেম্বর ২১

অধীর চৌধুরীর ঘনিষ্ঠ নেতা হুমায়ুন কি বিজেপিতে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিতে চলেছেন হুমায়ুন কবীর। ভোট গণনার দিনই এলাকা ছেড়ে দিল্লিতে পাড়ি দিয়েছেন তিনি। সেখানে বিজেপি নেতাদের সঙ্গে দেখা করে খুব শীঘ্রই তিনি গেরুয়া শিবিরে যোগ দেবেন বলে খবর। কংগ্রেসের প্রতি বীতশ্রদ্ধ হয়েই দল ছাড়ছেন হুমায়ুন কবীর।

১৯৮২ সাল থেকে রাজনীতিতে আছেন বেলডাঙা ২ নম্বর ব্লকের শক্তিপুরের হুমায়ুন কবীর। ৩০ বছরের বেশি সময় ধরে কংগ্রেস করছেন তিনি। ২০১১ সালে রেজিনগর বিধানসভা থেকে কংগ্রেস বিধায়ক নির্বাচিত হন হুমায়ুন। এরপর কংগ্রেস ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দিয়ে ২০১২ সালে তৃণমূলের মন্ত্রী হন। মাত্র ৬ মাস মন্ত্রী থাকার পর উপনির্বাচনে রেজিনগরে পরাজিত হন হুমায়ুন। এর পরই তৃণমূলের সঙ্গে তাঁর দূরত্ব বাড়তে থাকে। দলবিরোধী কার্যকলাপের জন্য তাঁকে শোকজ করে শাসক দল। ফের কংগ্রেসে ফিরে আসেন তিনি। এবারের পঞ্চায়েত নির্বাচনে জেলা পরিষদের কংগ্রেস প্রার্থী হিসেবে ভোটে দাঁড়ান। কিন্তু ভোটের দিন সকালেই নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর কথা ঘোষণা করেন হুমায়ুন কবীর।

বৃহস্পতিবার হুমায়ুন কবীর জানান, পুলিশ ও শাসক দলের গুন্ডামিতে তাঁর অধীনস্থ পঞ্চায়েতগুলিতে কংগ্রেস প্রার্থী ও কর্মীরা লাঞ্ছিত হয়েছেন। শাসকদল তাঁদের ভোট করতে দেয়নি। সে কারণে ভোটের দিন তিনি সরে দাঁড়িয়েছিলেন। এছাড়া তাঁর এলাকার কয়েকটি পঞ্চায়েতের কয়েকজন কাউন্টিং এজেন্ট ভোট গণনার দিন গণনা কেন্দ্রে গেলে তাঁদের তাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন হুমায়ুন। এদিন তিনি বলেন, “তৃণমূলের সঙ্গে লড়াই করার সাহস ও মানসিকতা জেলা কংগ্রেসের নেই। কংগ্রেস এখন দুর্বল হয়ে পড়েছে। রাজ্যে এত মার খাচ্ছে দল, কিন্তু দলের হাইকমান্ডের কোনও প্রতিক্রিয়া নেই । এই কংগ্রেসের সঙ্গে থাকা যায় না।” তারপর কিছুদিনের মধ্যেই বিজেপিতে যোগ দেবেন বলে জানা গিয়েছে। এ প্রসঙ্গে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরি বলেন, “কে কোন দলে যাবেন, সেটা তাঁর নিজস্ব ব্যাপার। তবে হুমায়ুন কবীরকে হারানোর জন্য তৃণমূল সবরকম চেষ্টা করেছে।

Leave A Reply