Latest News

ঘরোয়া রান্নাতেই বাজিমাৎ ভাইফোঁটায়

রাত পোহালেই ভাইফোঁটা। এই বিশেষ দিনটিতে ভাইয়ের জন্য স্পেশাল কিছু রান্না করতে মন চায় সকলেরই। ভাবছেন কোন ম্যেনুতে এবছর চমকে দেবেন ভাইকে! তেমনই পাঁচটি জিভে জল আনা নিখাদ বাঙালি রেসিপির খোঁজ দিলেন রন্ধনশিল্পী রঞ্জনা দাস।সুক্তো
উপকরণ: উচ্ছে দুটো, ছোট বেগুন তিনটে, দুটো আলু, তিনটে রাঙালু, একটি কাঁচকলা, ডাঁটা তিন-চারটে, কয়েকটা বিনস,
ভেজে রাখা বড়ি, নুন চিনি পরিমাণমতো, দুধ বড় দুচামচ, তেজপাতা একটা, সরষের তেল পরিমাণ অনুযায়ী, পাঁচফোড়ন ১ চামচ, ময়দা ১ চামচ, সামান্য ঘি।
১ ইঞ্চি আদা আর ১ চামচ রাঁধুনি ভালো করে বেটে আলাদা করে সরিয়ে রাখতে হবে। আর প্রত্যেকটি সবজি লম্বা লম্বা করে কেটে নুন মাখিয়ে ভেজে নিতে হবে।
ভাজা মশলা: গোটা ধনে, গোটা জিরে, শুকনো লংকা সমপরিমানে শুকনো কড়াইতে ভেজে গুঁড়ো করে রাখা।প্রণালী: পাত্রে তেল দিয়ে ফোড়ন দিতে হবে তেজপাতা ও পাঁচফোড়ন। এরপর আদা ও রাঁধুনিবাটা দিয়ে ভালো করে মশলাটা কষিয়ে নিতে হবে অন্যান্য উপকরণের সঙ্গে। এরপর ভেজে রাখা সবজিগুলো দিয়ে দিতে হবে। ভালো করে কষানো হয়ে গেলে সামান্য জল দিয়ে এবং দুধ দিয়ে ফুটতে দিতে হবে। এরপর মাখা মাখা হয়ে এলে ময়দা গুলে জল দিয়ে দিতে হবে। কিছুক্ষণ পর নামিয়ে নিয়ে আগে থেকে তৈরি করে রাখা ভাজা মশলা উপরে ভালো করে ছড়িয়ে দিয়ে চাপা দিয়ে রাখতে হবে, আর গরম গরম পরিবেশন করতে হবে। সবার শেষে একটু তেজপাতা বাটা মিশিয়ে ভালো করে নাড়িয়ে উপর থেকে ঘি ছড়িয়ে দিতে হবে সামান্য।

পটল আলুর মিলমিশ
উপকরণ: পটল ২৫০ গ্রাম, আলু ২৫০ গ্রাম টুকরো করে কেটে নেওয়া। ২ইঞ্চি আদা ও ২টি টম্যেটো এবং ১ চামচ কিশমিশ একসাথে বেটে নেওয়া। সাদা ও কালো তিল দু’চামচ করে ড্রাই রোস্ট করে গুঁড়ো করে নেওয়া। ঝাল লংকার গুঁড়ো ১ চামচ। সরষের তেল পরিমাণমতো। নুন হলুদ স্বাদ অনুযায়ী। গোটা গরম-মশলা ফোড়নের জন্য।প্রণালী: আলু পটল আলাদা করে নুন হলুদ মাখিয়ে ভালো করে ভেজে তুলে রাখতে হবে। এরপর কড়াইতে তেল দিয়ে তেজপাতা ও গোটা গরম মশলা ফোড়ন দিতে হবে। এরপর আদা, টম্যেটো ও কিশমিশের পেস্ট দিয়ে ভালো করে কষিয়ে নিতে হবে। এরপর একে একে নুন, হলুদ, লংকাগুঁড়ো দিয়ে ভালো করে নাড়িয়ে ভেজে রাখা আলু পটল দিয়ে ভালো করে কষিয়ে নিতে হবে। কষানো মশলা থেকে তেল ছাড়লে সামান্য জল দিয়ে ফুটিয়ে নিতে হবে। নামানোর আগে গুঁড়ো করে রাখা সাদা ও কালো তিল ছড়িয়ে মাখোমাখো করে নামিয়ে নিতে হবে।

বাদশাহি মুগের ডাল
উপকরণ: মুগের ডাল ২৫০ গ্রাম, গ্রেট করে নেওয়া একটা গাজর, আমাদা ও খোওয়া ক্ষীর বাটা দু’চামচ, ফোড়নের জন্য এলাচ তিনটে,নুন হলুদ স্বাদমতো, সরষের তেল পরিমাণ অনুযায়ী।
দু চামচ ধনে, দু চামচ জিরে, দুটি এলাচ, একটি দারচিনি,আর একটি কালো বড় এলাচ একসঙ্গে ড্রাই রোস্ট করে গুঁড়ো করে একটি ভাজা মসলা তৈরি করে নিতে হবে।প্রণালী: মুগের ডাল ভেজে খুব ভালো করে ধুয়ে নিতে হবে। এরপর কিছু আমআদা নুন হলুদ দিয়ে সেদ্ধ করে নিতে হবে। অন্য একটি পাত্রে সর্ষের তেল গরম করে আমাদা কুচি ও এলাচ ফোড়ন দিয়ে, তার মধ্যে গ্রেট করে রাখা গাজর দিয়ে ভালো করে নাড়িয়ে কিছুক্ষণ পর সেদ্ধ মুগ ডাল দিয়ে দিতে হবে। এরপর কিছুক্ষণ নাড়িয়ে পরিমাণ অনুযায়ী নুন হলুদ এবং সামান্য জল দিয়ে দিতে হবে। কিছুক্ষণ পর ভালো করে ফুটে এলে গ্যাস বন্ধ করে আমআদা আর খোওয়া ক্ষীর বাটা মিশিয়ে দিতে হবে। সবশেষে উপর থেকে ভাজা মসলার গুঁড়ো ছড়িয়ে দিতে হবে।

মনোহারী চিংড়ি
উপকরণ: মাঝারি সাইজের চিংড়ি মাছ ২৫০ গ্রাম, নারকেল বাটা ১কাপ বেটে নিতে হবে, ৪টে কাঁচালংকা, একটা টমেটো পেস্ট করে নেওয়া, স্বাদমতো নুন, চিনি, হলুদ। ১/২ কাপ গুঁড়ো দুধ, ৫-৬ চামচ সরষের তেল, দুটি কলাপাতা।প্রণালী: চিংড়ি মাছ সহ সমস্ত উপকরণ খুব ভালো করে মেখে নিতে হবে। এরপর পাত্রে দু’চামচ মতো তেল দিতে হবে। এর উপরে কলাপাতাটা দিয়ে সমস্ত মিশ্রণটি ঢেলে উপর দিয়ে আরেকটি কলাপাতা চাপা দিয়ে ভারী কিছু চাপা দিতে হবে। মৃদু আঁচে মিনিট পাঁচেক রান্না হতে দিতে হবে। এরপর আস্তে করে কলাপাতা দুটো টেনে সরিয়ে ফেলতে হবে । মিশ্রণটাকে কড়াইতে আরও দু মিনিট ফুটিয়ে নামিয়ে নিতে হবে।

আমসত্ত্ব আলুবোখারার চাটনি
উপকরণ: একটা আমসত্ত্ব, ১০০ গ্রাম গুড়, ১ চামচ জিরে, বিটনুন ১ চামচ, গোলমরিচ গুঁড়ো ১ চামচ, তেজপাতা দুটো তিনটে, শুকনো লংকা ২টো, মৌরি ১ চামচ, সরষের তেল, নুন সামান্য, ফোড়নের জন্য আমাদা কুচি, একটা টম্যেটো- বেটে রাখতে হবে।প্রণালী:আমসত্ত্ব ছোট টুকরো করে কেটে রাখতে হবে। আলুবোখারা দানা ফেলে সামান্য জলে ভিজিয়ে রাখতে হবে। এবার একটা পাত্রে সামান্য সরষে তেল দিয়ে তেজপাতা ফোড়ন দিয়ে সব উপকরণ ভালো করে মিশিয়ে দিতে হবে। ফুটে উঠলে নামিয়ে নিয়ে ওপর থেকে আদা কুচি ও ভাজা মশলা ছড়িয়ে দিতে হবে।

You might also like